বিয়ের ১০ দিনের মাথায় কিশোরী বধূর মরদেহ উদ্ধার

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ৮:৩২ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ২০, ২০২১ | আপডেট: ৮:৩২:অপরাহ্ণ, এপ্রিল ২০, ২০২১

মিজানুর রহমান নয়ন, কুমারখালী (কুষ্টিয়া) প্রতিনিধি: কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে বিয়ের ১০ দিনের মাথায় রিমা (১৬) নামের এক কিশোরী বধূর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার (২০ এপ্রিল) দুপুরে শিলাইদহ ইউনিয়নের জোড়ারপুর গ্রামের কিশোর পিয়াসের (১৮) ঘর থেকে উদ্ধার করা হয়। নিহত ব্যক্তি পিয়াসের স্ত্রী।

এলাকাবাসী ও নিহতের পরিবার সুত্রে জানা গেছে, উপজেলার কয়া ইউনিয়নের বেড় কালুয়া গ্রামের রেজাউলের মেয়ে রিমা। সে অষ্টম শ্রেণিতে পড়ত। প্রায় ১০ দিন আগে জোড়ারপুরের খোকনের কিশোর ছেলে পিয়াসের সাথে বাল্য বিয়ে হয়। পিয়াস পেশায় একজন দিনমজুর। রিমার জীবনে অতীতে আরো এক বিয়ের ঘটনা ছিল। এনিয়ে দ্বিতীয় বিয়ের পর থেকেই পারিবারিক কলহ চলে আসছিল। এরই মাঝে আজ দুপুরে স্বামীর ঘর থেকে পুলিশ ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করে।

নাম প্রকাশে অনুচ্ছুক কিশোরীর বধূর শ্বশুড় বাড়ির লোকজন বলেন, পারিবারিক কলহের জের ধরে রিমা ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করেছে। তবে রিমা’র বাবা বাড়ির স্বজনরা অভিযোগ হত্যা করে ঝুলিয়ে রাখা হয়েছে।

নিহতের বাবা রেজাউল বলেন, ১০ দিন আগে পারিবারিক ভাবে ওদের বিয়ে হয়। রিমা’র এর আগেও একটা বিয়ে হয়েছিল। পূর্বের বিয়ে নিয়ে পরিবারে অশান্তি ছিল। এরমাঝে আজ মঙ্গলবার সকালে সাড়ে ১১ টার দিকে লোকমুখে মেয়ের মৃত্যুর খবর পাই। খবর পেয়ে মেয়ের শ্বশুড় বাড়ি এসে দেখি বাইরে মাথায় পানি ঢালছে লোকজন। এরপর গ্রাম্য ডাক্তার এসে মৃত ঘোষণা করেন।

নিহতের বাবা আরো বলেন, মেয়েকে তার স্বামী, শ্বশুড়-শ্বাশুড়ী মিলে হত্যা করেছে। হত্যার পর ঝুলিয়ে আত্মহত্যার গল্প শোনাচ্ছে।

কুমারখালী থানার অফিসার ইনচার্জ মজিবুর রহমান বলেন, শ্বশুড় বাড়ি থেকে কিশোরী বধূর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করে মর্গে পাঠানো হয়েছে। রিপোর্ট পেলে প্রকৃত ঘটনা জানা যাবে।