বৃদ্ধ শ্বশুরকে জখম করলো ঘরজামাই!

প্রকাশিত: ৭:০৯ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ৮, ২০১৯ | আপডেট: ৭:০৯:অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ৮, ২০১৯
ছবি: টিবিটি

চুয়াডাঙ্গা সংবাদদাতা: চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার কুলচারা গ্রামে ঘরজামাইয়ের ধারালো অস্ত্রের কোপে মরাত্মক জখম হয় এক বৃদ্ধা শশুড়।

জানা গেছে, শনিবার দিবাগত রাত ৩ টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। চুয়াডাঙ্গা সাতগাড়ী কুলচারা গ্রামের আতিয়ার রহমানের ঘরজামাই দর্শনা নাস্তিপুর গ্রামের সিরাজুল ইসলামের ছেলে বিপ্লব পারিবারিক কলহের জের ধরে ধারালো অস্ত্রদিয়ে তার বৃদ্ধ শশুড়কে কুপিয়ে মারাত্মক রক্তাক্ত জখম করে।

এ ঘটনার বিবরনে আরো জানা যায়, কুলচারা গ্রামের আতিয়ার রহমানের মেয়ে রুবিনার সাথে দর্শনার নাস্তিপুর গ্রামের সিরাজুল ইসলামের ছেলে বিল্পবের সাথে বিয়ের একবছর যেতে না যেতেই সংসারে অশান্তি লেগেই থাকতো।

বিল্পব তেমন কোন কাজকর্ম না করায় সংসার চালাতে গিয়ে দেনাদায়ে জড়িয়ে পড়তো। এমতাবস্থায় তার শশুড় মেয়ের জামাইকে নিজ বাড়িতে থাকার আশ্রয় দেয়। দুই মাস আগে শশুড় আতিয়ারের সাথে কাজকর্ম না করা নিয়ে বাগবিতণ্ডা হয়। এতে রাগে-ক্ষোভে ফুসে থাকে জামাই বিল্পব। শনিবার দিবাগত রাত তিনটার দিকে বৃদ্ধ শুশুড় প্রকৃতির ডাকে সাড়া দিতে ঘর থেকে বাইরে বের হয়। এমন সময় সুযোগ বুঝে বিল্পব ধারালো শাবল দিয়ে হত্যার উদ্যেশ্যে তার শশুরকে এলোপাতাড়িভাবে কোপাতে থাকে।

হঠাৎ আক্রমনের শিকার শশুর আতিয়াররের চিৎকারে প্রতিবেশীসহ পরিবারের লোকজন ছুটে আসে। এমতাবস্থায় লোকজনের উপস্থিতি টেরপেয়ে বিল্পব পালিয়ে যায়। স্থানীয়রা মারাত্মক রক্তাক্ত জখম অবস্থায় আতিয়ারকে উদ্ধার করে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে নিয়ে যায়। আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

এঘটনার খবর শুনে চুয়াডাঙ্গার সদর থানার অফিসার ইনচার্জ আবু জিহাদ ফকরুল আলম খান সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। এবং গোপন তথ্যের ভিত্তিতে পালাতক ঘরজামাই বিল্পবকে আটক করতে সক্ষম হয়।

এবিষয়ে চুয়াডাঙ্গা সদর থানার অফিসার ইনচার্জ ( তদন্ত) লুৎফুলুল কবীর জানান পারিবারিক কলহের জের ধরে এঘটনার সুত্রাপাত হয়। পালাতক ঘরজামাই বিল্পবকে চুয়াডাঙ্গা জেলা পুলিশ সুপার জাহিদুল ইসলামের নির্দেশে তাকে গোপন তথ্যের ভিত্তিতে আটক করতে সক্ষম হয়। তার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে জেল হাজতে পাঠানো হবে বলে জানান।