‘বেদের মেয়ে জোসনা’ খ্যাত অঞ্জু ঘোষ গায়িকাও ছিলেন

টিবিটি টিবিটি

বিনোদন ডেস্ক

প্রকাশিত: ১১:২৮ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১১, ২০১৮ | আপডেট: ১১:২৮:অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১১, ২০১৮

টিবিটি বিনোদনঃ’বেদের মেয়ে জোসনা’ দিয়ে ইতিহাস করা নায়িকা অঞ্জু ঘোষ গায়িকাও ছিলেন। নিজের ফেসবুক প্রোফাইলে ছবি পোস্ট করে এমনটাই জানালেন অঞ্জু ঘোষের গানের গীতিকার, বরেণ্য গীতিকার হাসান মতিউর রহমান।

মঙ্গলবার (১১ সেপ্টেম্বর) ফেসবুকে এক স্ট্যাটাসে ‘যদি রাত পোহালে শোনা যেতো বঙ্গবন্ধু মরে নাই’ গানের গীতিকার হাসান মতিউর রহমান লিখেন, ‘এই সেই অঞ্জু ঘোষ। সবার প্রিয় নায়িকা এবং গায়িকা। জন্ম ফরিদপুরে। বড় হয়েছেন চট্টগ্রামে। প্রথমে যাত্রাপালায়। পরে বড় পর্দায়। ২২ বছর পর আবার এসেছেন নিজের দেশে। ম্যাডামের সাথে আমার কাজের অনেক স্মৃতি।’

‘বেদের মেয়ে জোসনা’ সুপারহিট হবার পর আর পেছনে তাকাতে হয়নি। ৯০ সালের কথা। বাসার টিঅ্যান্ডটি নম্বরে ফোন। ধরতেই অপর প্রান্ত থেকে বললেন ‘অঞ্জু কথাচিত্র’ থেকে বলছি। আমাদের ম্যাডাম আপনার সাথে একটু কথা বলবেন। সব শুনে বললাম কাল কাকরাইলের অফিসে ১১টায় আসবো। পরদিন সময় মতোই গেলাম। দেখি ম্যাডাম টেবিলে হরেক রকম খাবার সাজিয়ে অপেক্ষা করছেন। ঢুকলাম। ভয়ে ভয়ে। সামনাসামনি এই প্রথম দেখা।’

‘দেখেই বললেন, আমাকে কিছু গান লিখে দিতে হবে। আমি গাইবো। শুটিং থেকে ফেরার সময় সেদিন আরিচা ঘাটে শুনি এক মুদি দোকানে একটা গান বাজছে। খবর নিয়ে জানলাম শিল্পী আশরাফ উদাসের ‘হারানো প্রেম’- গান লিখেছেন আপনি । অনেক ভালো লেগেছে আমার। এই রকম কিছু গান লিখে দিন। লিখবেন আমার উত্তরার বাসায় বসে। দুইটা গাড়ি।

একটা আপনার জন্য। যতদিন গান লেখা-রেকর্ডিং শেষ না হয় ততদিন ড্রাইভার আপনার পিছে আঠার মতো লেগে থাকবে। রাজি হলাম। সুর করার জন্য সাথে নিলাম আশরাফ উদাসকে। ছুটির দিনে আশরাফ প্র্যাকটিস করায়। ভালো সম্মানী দেয়। মাঝেমধ্যে যাই। গান লিখি চলে আসি।’

‘তার বাসায় যখন তখন ফিল্মের পার্টি আসে। উনাদেরও সময় দেন। আমাকে ম্যাডামের বেডরুমে বিশ্রাম নিতে বলে যান। ওই এক রুমেই শুধু এসি বেডরুমের দেয়ালে খাজা বাবার দরবারের বিরাট ছবি। ম্যাডাম আজমির শরিফের ভক্ত। যতবার রুমে ঢোকেন ততবার মুখে এবং কপালে হাত ছুঁইয়ে বাবাকে সম্মান দেখান। গান লেখা শেষ।

মিউজিক করার দায়িত্ব দিলেন ফরিদ আহমেদ ভাইকে। স্টুডিও নিলাম বেইলি রোডের পান্না ভাইয়ের অডিও আর্টে। বাজালেন মানাম ভাই, লিটন ডি কস্টা, মরহুম বারি সিদ্দিকী, মনিরুজ্জামান ভাই। গিটার সেলিম হায়দার ভাই। তবলায় মিলনদা।’

তিনি আরও লেখেন, ‘রাত ৩টায় শুরু করতাম ভয়েস নেয়া। দিনে ম্যাডাম শুটিং করতেন। একে একে হয়ে গেল ১২ গান। অনেক কাজের মাঝেও কী করে যে গাইলেন! দম ছোট তাই প্রতিটি শব্দ আলাদা করে গাইতে হলো। আমি অবাক হয়ে গেলাম। একদিন আসাদ গেটের মিডনাইট সান রেস্টুরেন্টে মহাআড়ম্বরে হলো ক্যাসেটের মোড়ক উম্মোচন। বসেছিল চলচ্চিত্র অঙ্গনের মিলনমেলা।

কে আসেনি ম্যাডামের দাওয়াতে! পরদিন বাজারে এলো আমার ‘চেনাসুর’ থেকে অঞ্জু ঘোষের নিজ কণ্ঠে গাওয়া একটি পূর্ণাঙ্গ গানের এলবাম ‘মালিক ছাড়া চিঠি’৷ এলবামের একটা গান ছিল ‘এইটে আমি ফার্স্ট হইয়া নাইনে উঠছি মাত্র/বইয়ের ভাঁজে হঠাৎ একদিন পাইলাম প্রেমপত্র।’