ব্যাংক কার্ডে আন্তর্জাতিক কেনাকাটায় কড়াকড়ি

প্রকাশিত: 8:13 PM, November 20, 2019 | আপডেট: 8:13:PM, November 20, 2019

দেশের বেশকিছু তফসিলি ব্যাংক তাদের কার্ডে আন্তর্জাতিক কেনাকাটা সীমিত করেছে। ফলে এখন আর আন্তর্জাতিক বা প্রিপেইড কার্ডে আগের মতো সেবা পাওয়া যাচ্ছে না।

এবার দেশের ভিতরেও এমন সুবিধা সীমিত করতে বেসরকারি ইস্টার্ন ব্যাংক লিমিটেড তার গ্রাহকদের এসএমএস দিয়ে জানিয়েছে।

মঙ্গলবার ব্যাংকটি তার গ্রাহকদের এক এসএমএসের মাধ্যমে জানিয়েছে, তাদের গ্রাহকরা দেশে রাইড শেয়ারিং উবার ব্যবহার করে, কিংবা উবারের খাবার ডেলিভারি উবার ইটস ব্যবহার করে ইবিএল ব্যাংকের কোনো প্রকার কার্ড ব্যবহার করতে পারবেন না।

ব্যাংকটি অবশ্য এজন্য রেগুলেটরের নির্দেশ ক্রমেই কাজটি করছে বলেও জানিয়েছে এমএসএসে।

২০১৬ সালে বাংলাদেশ ব্যাংক সার্কুলার জারি করে আন্তর্জাতিক বাজার থেকে ঘরে বসে পণ্য কেনার সুবিধা চালু করে ক্রেডিট ও প্রি-পেইড কার্ডে।

এতোদিন একটা নির্দিষ্ট পরিমাণ অর্থের এমন কেনাকাটা করা গেলেও সম্প্রতি বিভিন্ন ব্যাংক থেকে তার গ্রাহকদের জানানো হয়েছে এমন সুবিধা আর দেয়া যাচ্ছে না।

ব্যাংকগুলোর এমন সিদ্ধান্তে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে ডিজিটাল মার্কেটিংয়ের সঙ্গে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে জড়িত ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান।

এর আগে গত ১৪ নভেম্বর থেকে হঠাৎ করেই দেশের আন্তর্জাতিক ও প্রিপেইড কার্ড ব্যবহারকারীরা বিদেশী কোনো পণ্য বা সেবা নেওয়ার পর কার্ডের মাধ্যমে মূল্য পরিশোধ করতে পারছে না।

এর ফলে দেশের ই-কমার্স, ডিজিটাল মার্কেটিং প্রতিষ্ঠান, অনলাইন ট্রাভেল প্রতিষ্ঠানসহ নানা ধরনের প্রতিষ্ঠান বেকায়দায় পড়ে যায়।

এমন সঙ্কট সমাধানে ইতোমধ্যে বাংলাদেশ ব্যাংকের সঙ্গে বৈঠক করেছেন বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেস বেসিস সভাপতি সৈয়দ আলমাস কবীবের নেতৃত্বে এক প্রতিনিধি দল।

গত রোববার অনুষ্ঠিত ওই বৈঠকে ব্যাংকগুলোর এমন পদক্ষেপ বৈদেশিক মুদ্রা সংরক্ষণে কার্যকরী ভূমিকা না রেখে বরং ব্যবসায়িক পরিবেশ নষ্ট করে উদ্যোক্তাদের কার্যক্রম ব্যাহত করবে বলে তুলে ধরেন বেসিস প্রতিনিধিরা। একই সঙ্গে ডিজিটাল বাংলাদেশের চালিকা শক্তি এই প্রযুক্তিনির্ভর ব্যবসাগুলোকে পর্যায়ক্রমে বন্ধ হয়ে যেতে বাধ্য করবে, যা দেশের অর্থনীতির জন্য হুমকিস্বরূপ বলেও তুলে ধরেন তারা।

পরে বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেপুটি গভর্নর আহমেদ জামাল বেসিসের প্রস্তাবনা শোনেন। আগামী সপ্তাহে ব্যাংকের সঙ্গে বৈঠিক করে প্রস্তাবনা বাস্তবায়নের উদ্যোগ নেওয়া হবে বলে জানান বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেপুটি গভর্নর।

-টেকশহর।