বড়লেখায় অপহরণ মামলায় গ্রেফতার ২, স্কুলছাত্রী উদ্ধার

ভালোবেসে ঘর বাঁধার স্বপ্নে পালানোর গুঞ্জন

আব্দুর রব আব্দুর রব

বড়লেখা (মৌলভীবাজার) প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ৭:২০ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ১৪, ২০২০ | আপডেট: ৭:২০:অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ১৪, ২০২০
মৌলভীবাজার জেলা

বড়লেখায় স্কুলছাত্রী অপহরণ মামলা দায়েরের ১২ ঘন্টার মধ্যে সোমবার রাতে পুলিশ সিলেটের জকিগঞ্জ বাজার এলাকা থেকে অপহৃত স্কুলছাত্রীকে উদ্ধার ও ২ অভিযুক্তকে গ্রেফতার করেছে। এরা হচ্ছে উপজেলার রাঙাউটি গ্রামের দুদু মিয়ার ছেলে সাইফুর রহমান (১৯) ও তার বড়বোন সুমি আক্তার পপি (৩৫)।

মঙ্গলবার আদালতের মাধ্যমে গ্রেফতার দুই আসামীকে কারাগারে প্রেরণ ও উদ্ধার ষোড়ষী স্কুলছাত্রী সুহাদা রহমান ইভাকে তার বাবার কাছে হস্তান্তর করেছে পুলিশ। তবে স্থানীয় সুত্র জানায় ভালবেসে প্রেমিকের হাতধরে ঘর ছেড়ে অবশেষে পুলিশের হাতে আটক হয়ে বড়বোনসহ প্রেমিকের টাই হলো কারাগারে আর বাবার বাড়ি প্রত্যাবর্তন করলো প্রেমিকা স্কুলছাত্রী ইভা।

পুলিশ ও মামলার এজাহার সুত্রে জানা গেছে, বড়লেখা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণীর ছাত্রী ও পৌরশহরের গাজিটেকা পুরুষ গ্রামের চক এলাকার অব্দুল কুদ্দুসের মেয়ে সুহাদা রহমান ইভা (১৬) রোববার গভীর রাতে নিখোঁজ হয়। স্কুলছাত্রী নিখোঁজের ঘটনায় তার চাচা আব্দুর রুপ উপজেলার রাঙাউটি গ্রামের দুদু মিয়ার ছেলে সাইফুর রহমানকে (১৯) আসামী করে থানায় অপহরণ মামলা (মামলা নং-০৮-১৪/১) দায়ের করেন।

সোমবার রাতে এসআই শরীফ উদ্দিনের নেতৃত্বে পুলিশ সিলেটের জকিগঞ্জ বাজার এলাকায় অভিযান চালিয়ে স্কুলছাত্রীকে উদ্ধার এবং সাইফুর রহমান ও তার বোনকে আটক করে থানায় নিয়ে যান। এলাকায় গুঞ্জন চলছে, স্কুলছাত্রী ইভার সাথে সাইফুর রহমানের দীর্ঘদিন ধরে প্রেম ভালোবাসা চলছিল। প্রেমের টানেই ঘর বাঁধতে তারা পালিয়েছিল। কিন্তু বিধি বাম হওয়ায় পুলিশের হাতে ধরা পড়ে বড় বোনসহ প্রেমিকের টাই হয়েছে কারাগারে।

বড়লেখা থানার এসআই শরীফ উদ্দিন জানান, উদ্ধার স্কুলছাত্রীকে তার বাবার কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে এবং আটক সাইফুর রহমান ও সুমি আক্তার পপিকে অপহরণ মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে মঙ্গলবার আদালতে সোপর্দ করেন। বিজ্ঞ আদালত তাদেরকে জেল হারতে প্রেরণের আদেশ দিয়েছেন।