বড়লেখায় ইউএনও’র তাৎক্ষনিক হস্তক্ষেপে রক্ষা পেল বিধবার ভিটেবাড়ি

পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশের পরেই

আব্দুর রব আব্দুর রব

বড়লেখা (মৌলভীবাজার) প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ৭:১৭ অপরাহ্ণ, জুন ২২, ২০২১ | আপডেট: ৭:১৭:অপরাহ্ণ, জুন ২২, ২০২১

বড়লেখা উপজেলা নির্বাহী অফিসার খন্দকার মুদাচ্ছির বিন আলী ও প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা উবায়েদ উল্লাহ খানের তাৎক্ষণিক হস্তক্ষেপে রক্ষা পেল সেই বিধবার ভিটেবাড়ি। তাদের নির্দেশে প্রবেশ রাস্তায় কাটা খাল ভরাট করে দিলেন ইউপি মেম্বার বিজয় কৃষ্ণ দাস। তিনি সরকারী প্রকল্পের কাজে হতদরিদ্র বিধবা প্রতিভা রাণী দাসের বসতভিটের রাস্তায় খাল কেটে মাটি নিয়ে পার্শবর্তী রাস্তা ভরাট করেন।

গত ১৪ জুন বিভিন্ন দৈনিকে ‘বড়লেখায় বিধবার বাড়ির রাস্তায় খাল কেটে ইজপিপি প্রকল্পের মাটি ভরাট করলেন মেম্বার’ শিরোনামে একটি সংবাদ প্রকাশ হলে ঘটনাটি পরিবেশমন্ত্রী শাহাব উদ্দিন এমপি, ইউএনও ও প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার নজরে আসে।

জানা গেছে, উপজেলার দাসেরবাজার ইউনিয়নের পানিসাওয়া গ্রামের নিকেশ দাসের বাড়ি হতে ফকিরবাজার পাকা রাস্তা পর্যন্ত গ্রামীণ কাঁচা রাস্তা পুনঃসংস্কারের জন্য ২০২০-২১ অর্থ বছরে ইজিপিপি প্রকল্পে ২ লাখ টাকা বরাদ্দ হয়। গত ৩১ মার্চের মধ্যে সংস্কার কাজ সম্পন্নের নির্দেশনা নিয়ে প্রকল্প কমিটির সভাপতি ইউপি মেম্বার বিজয় কৃষ্ণ দাস সংশ্লিষ্ট রাস্তার সংস্কার কাজ করতে গিয়ে হতদরিদ্র বিধবা প্রতিভা রাণী দাসের বসতঘরে যাতায়াতের রাস্তায় খাল কেটে মাটি নিয়ে যান। বৃষ্টিপাতে মাটি ধ্বসে পড়ায় তিনি মারাত্মক দূর্ভোগে পড়েন।

বিধবা প্রতিভা রাণী দাস জানান, ইউপি মেম্বার আমার বসতভিটের যাতায়াত রাস্তায় খাল কেটে মাটি নেওয়ায় মারাত্মক সমস্যায় পড়েন। এব্যাপারে পরিবেশমন্ত্রী ও ইউএনও বরাবরে তিনি ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ দেন। তার দূর্ভোগের ঘটনাটি পত্রিকায় প্রকাশিত হলে সকলের নজরে আসে। প্রশাসন তাংক্ষণিক ব্যবস্থা নিয়ে বসতঘরের সামনের খাল ভরাট করে দিয়েছেন। এজন্য তিনি পরিবেশমন্ত্রী শাহাব উদ্দিন এমপি, ইউএনও খন্দকার মুদাচ্ছির বিন আলী ও প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা উবায়েদ উল্লাহ খানের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ ও ধন্যবাদ জানিয়েছেন।

ইউএনও খন্দকার মুদাচ্ছির বিন আলী জানান, প্রকল্পের রাস্তার পানি নিষ্কাষন ব্যবস্থা করতে দরিদ্র বিধবার বসতভিটার যাতায়াত রাস্তাটি কেটে ফেলায় তিনি বেশ ক্ষতির সম্মুখিন হন। গণমাধ্যমে এ সংক্রান্ত একটি সংবাদ প্রকাশিত হলে বিষয়টি তার ও স্থানীয় সংসদ সদস্য এবং বন ও পরিবেশমন্ত্রী শাহাব উদ্দিন এমপির নজরে আসে। মন্ত্রী মহোদয় বিষয়টি গুরুত্ব সহকারে দ্রæত দেখার কথা বলায় তিনি তাৎক্ষনিক ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে ইউপি মেম্বারকে বসতভিটের সামনের গভীর স্থান ভরাট করে দেওয়ার নির্দেশ দেন। রোববার ইউপি মেম্বার স্থানটি ভরাট করে দিয়েছেন। এতে বিধবার বসতভিটের আর ক্ষতির আশংকা নেই।