ভান্ডারিয়ায় চুরির দায়ে কোমলমতি ২ শিশুকে গাছের সাথে বেঁধে নির্মম নির্যাতন!

প্রকাশিত: ৮:১৭ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ৮, ২০১৯ | আপডেট: ৮:১৯:অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ৮, ২০১৯
ছবি: টিবিটি

মজিবর রহমান, পিরোজপুর প্রতিনিধি: পিরোজপুরের ভাণ্ডারিয়ায় চুরির অভিযোগে দুই শিশুকে গাছের সঙ্গে বেঁধে অমানুষিক নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে। নির্যাতনের শিকার ওই দুই শিশুরা হলো উপজেলার উত্তর ভিটাবাড়ীয়া গ্রামের তাজাম্মেল হাওলাদারের ছেলে মো. রাকিব হাওলাদার (১০) ও একই গ্রামের রুবেল বয়াতির ছেলে হৃদয় বয়াতি (১০)।

এরা দুজনেই এ বছর পিইসি পরীক্ষা অংশ নিয়েছে। এ ঘটনায় ভাণ্ডারিয়া থানা পুলিশ নির্যাতনকারী মুদি দোকানী খলিলুর রহমান ও তার ছেলে মেহেদি হাসানকে গ্রেপ্তার করেছে।

আজ রোববার দুপুরে দোকান থেকে টাকা চুরির অভিযোগে ওই দুই শিশুকে গাছের সাথে বেঁধে নির্যাতন করা হয়। এ ঘটনায় নির্যাতিত রাকিব হাওলাদারের মা রাশিদা বেগম বাদী হয়ে ভাণ্ডারিয়া থানায় দুজনকে আসামি করে মামলা দায়ের করেন।

মামলার সূত্রে যায়, রাকিব হাওলাদার ও তার বন্ধু হৃদয় বয়াতি রবিবার দুপুরে খলিলুর রহমানের মুদি দোকানের সামনে থেকে যাওয়ার সময় খলিলুর রহমান ও তার ছেলে মেহেদি হাসান তাদেরকে বাড়ির মধ্যে ডেকে নিয়ে যায় এবং টাকা চুরির মিথ্যে অভিযোগ এনে উঠানের একটি গাছের (কাফুলা গাছ) সঙ্গে বেঁধে তাদের ওপর নির্মম নির্যাতন চালায়।

এ সময় প্রতিবেশীরা নির্যাতনের দৃশ্য মোবাইল ফোনে ধারণ করে। পরে এলাকাবাসীর সহায়তায় গুরুতর আহত অবস্থায় শিশু দুটিকে উদ্ধার করে ভাণ্ডারিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়।

মামলার বাদী নির্যাতনের শিকার রাকিব হাওলাদারের মা রাশিদা বেগম বলেন, আমার ছেলে ও তার সহপাঠিকে মিথ্যা অভিযোগ এনে বর্বর নির্যাতন করা হয়েছে। এই ঘটনার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন তিনি।

ভাণ্ডারিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি)এস এম মাকসুদুর রহমান জানান, এ ঘটনায় থানায় নিয়মিত মামলা রুজু করা হয়েছে। পুলিশ তাৎক্ষণিক অভিযুক্ত ওই দুই আসামিকে গ্রেপ্তার করেছে।