ভারতের ভবিষ্যত প্রধানমন্ত্রী সোনু সুদ!

টিবিটি টিবিটি

বিনোদন ডেস্ক

প্রকাশিত: ৬:০০ অপরাহ্ণ, মে ৬, ২০২১ | আপডেট: ৬:০০:অপরাহ্ণ, মে ৬, ২০২১

২০২০ সালে যখন করোনার ঢেউয়ে বেসামাল সারা বিশ্ব, ভারত খড়কুটোর মতো কিছু ধরে বাঁচতে চাইছে, তখন লাখ লাখ গরিব মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছিলেন অভিনেতা সোনু সুদ। তিনি পথ দেখিয়েছিলেন। পরবর্তী সময়ে সেই পথে হেঁটেছেন আরো অনেক সেলেব্রিটি। করোনার প্রথম ঢেউ যখন খানিকটা সামলে গিয়েছে, তখনও কিন্তু নিজের কাজ থামাননি সোনু।

আজ যখন সারা ভারতে ত্রাহি ত্রাহি রব, তখনও নিঃশব্দে নিজের কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন সোনু সুদ। সম্প্রতি তিনি কেন্দ্র ও রাজ্য সরকারের কাছে আবেদন করেছিলেন, যে সব বাচ্চারা কভিডের কারণে তাদের মা-বাবাকে হারিয়েছে, সরকার যেন তাদের পড়াশোনার ভার নেয়। তাঁর এই প্রস্তাবকে সমর্থন জানিয়েছিলেন দেশি গার্ল প্রিয়াঙ্কা। তাঁর এ সমর্থনের জন্যে প্রিয়াঙ্কাকে ট্যুইট করে আন্তরিক ধন্যবাদ জানালেন সোনু। লিখলেন, ‘অসংখ্য ধন্যবাদ প্রিয়াঙ্কা তোমার সমর্থনের জন্যে। আমি কথা দিচ্ছি এই স্বপ্নকে আমি বাস্তবে পরিণত করব’।

ঠিক কী লিখেছিলেন প্রিয়াঙ্কা চোপড়া?

প্রিয়াঙ্কা তাঁর জবাবে ট্যুইটে লম্বা টুইটে সোনুর কাজের প্রশংসা করে লেখেন, “আমার সহকর্মী @sonu_sood একাধারে দার্শনিক অন্যদিকে সমাজসেবী, তিনি ভাবেন এবং এগিয়ে যাওয়ার ক্ষমতা রাখেন। মহামারীর আমাদের অনেক ভয়াবহ কাহিনি সামনে এনেছে, বহু শিশু তাদের বাবা-মা হারিয়েছে, তাদের পড়াশোনা একেবারে থমকে যাবে এবার, তাদের ভবিষ্যৎ কী হতে পারে? সেই চিন্তা এখন থেকেই সোনু সুদ করছে। আমি অনুপ্রাণিত হয়েছি ওর এই ভাবনাতে। সোনুর পরামর্শ রাজ্য এবং কেন্দ্রীয় সরকার উভয়েরই বিবেচনা করা উচিত, এই বিপুল সংখ্যক শিশুদের ভবিষ্যতের কথা ভেবে তাদের পড়াশোনার দায়িত্ব প্রশাসনকেই নিতে হবে”।

সোনু সুদের এই ভিডিও ট্যুইটে বহু নেটাগরিক প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন। সেই ভিডিওতেই একজন অনুরাগী লিখেছেন, ‘সোনু সুদের আমাদের দেশের প্রধানমন্ত্রী হওয়া উচিত।’ সেই কমেন্টে সমর্থন জানিয়েছেন অনেকেই।

আরও অনেকেই লিখেছেন, দেশের এই পরিস্থিতিতে সোনু সুদের মতোই একজন মানুষের প্রধানমন্ত্রী হওয়া প্রয়োজন।

কেন্দ্রীয় সরকার যে একেবারে চুপ করে বসে আছে এমনটা নয়। কেন্দ্রীয় নারী ও শিশুকল্যাণ মন্ত্রী স্মৃতি ইরানি (Smriti Irani) অসহায় শিশুদের পাশে দাঁড়াতে বড় নির্দেশ দিয়েছেন। অসহায় শিশুদের সাহায্য করার জন্য হেল্পলাইন ১০৯৮ চালু করা হয়েছে। সংশ্লিষ্ট রাজ্যের প্রশাসন অথবা সেই জেলার শিশুকল্যাণ কমিটির কাছে পুরো বিষয়ের উপর নজর রাখার নির্দেশ দিয়েছেন তিনি।

সূত্র: নিউজ এইটিন।