ভারতে করোনার তৃতীয় ঢেউ ‘অনিবার্য’ : ড. বিজয়রাঘবন

টিবিটি টিবিটি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

প্রকাশিত: ৯:১৬ অপরাহ্ণ, মে ৫, ২০২১ | আপডেট: ৯:১৬:অপরাহ্ণ, মে ৫, ২০২১

করোনাভাইরাস মহামারির দ্বিতীয় ঢেউয়ে বেসামাল হয়ে পড়েছে ভারত। গত সপ্তাহ দুয়েক ধরে প্রায় প্রতিদিনই ভাঙছে আক্রান্ত-মৃত্যুর রেকর্ড। এর মধ্যেই বিশেষজ্ঞরা হুঁশিয়ারি দিয়েছেন, দেশটিতে করোনার তৃতীয় ঢেউয়ের আঘাত সুনিশ্চিত।

বুধবার ভারতের কেন্দ্রীয় বিজ্ঞান উপদেষ্টা ড. কে বিজয়রাঘবন গণমাধ্যমের সামনে বলেন, যে পরিমাণ ভাইরাস ভারতে ঘুরছে তাতে তৃতীয় ঢেউ আসা অবশ্যম্ভাবী। তবে ঠিক কবে সেই তৃতীয় ঢেউ আসবে তা পরিস্কার করতে পারেননি তিনি। তবে তৃতীয় ঢেউয়ের জন্য তৈরি থাকতে বলেন বিজয়রাঘবন।

তিনি এটাও বলেন যে যে টিকা দেওয়া হচ্ছে তা ভাইরাসের ধরণকে দমিয়ে দিতে সমর্থ। এর আগেই অবশ্য কেন্দ্রের তরফে তৃতীয় ঢেউয়ের কথা জানানো হয়েছে। সেই ধাক্কার জন্য মহারাষ্ট্র ইতোমধ্যেই নিজেদের প্রস্তুত করাও শুরু করেছে।

এমনও বলা হচ্ছে যে তৃতীয় ঢেউ শিশুদের জন্যও খারাপ হতে পারে। অনেক শিশুর আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা প্রবল। তাই আগে থেকেই তা রোখার বন্দোবস্ত তৈরি রাখতে হবে।

এদিন ফের একবার কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রণালয়ের তরফে মাস্ক পরা, দূরত্ব বজায় রাখা, প্রয়োজন ছাড়া বাড়িতেই থাকার ওপর জোর দেওয়া হয়েছে। অযথা জমায়েত না করার পরামর্শও দেওয়া হয়েছে।

ড. কে বিজয়রাঘবন। ছবি: ইন্টারনেট

করোনার দ্বিতীয় ধাক্কাতেই ভারতের স্বাস্থ্য ব্যবস্থার হাঁড়ির হাল হয়েছে। হাসপাতালে শয্যা নেই, রোজই অক্সিজেনের অভাবে মৃত্যু হচ্ছে মানুষের। বিদেশ থেকে সাহায্য আসলেও পরিস্থিতি শোধরাচ্ছে না। টিকাও প্রয়োজনের তুলনায় কম। সবথেকে গুরুত্বপূর্ণ কোনওভাবেই কমানো যাচ্ছে না সংক্রমণ।

সমগ্র দেশজুড়ে আংশিক লকডাউন, রাতের কার্ফু জারি করা হলেও পরিস্থিতির কোনও উন্নতি হচ্ছে না। এর মধ্যে তৃতীয় ঢেউ আসার এই খবর আরও ভয় ধরিয়ে দিচ্ছে ভারতবাসীসহ সকলের মনে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা জানিয়েছে, গত সপ্তাহে পৃথিবীর মোট সংক্রমণের ৪৬ শতাংশই ছিল ভারতের এবং এক-চতুর্থাংশ মৃত্যু হয়েছে এদেশে।

নরেন্দ্র মোদির সরকার কোভিড পরিস্থিতির মোকাবিলা করতে ব্যর্থ এমন হাওয়া উঠেছে বিভিন্ন মহলে। সম্প্রতি বুকার পুরস্কার জয়ী নামী অরুন্ধতী রয় লিখেছিলেন, ‘আমাদের সরকারের দরকার ভীষণভাবে, কিন্তু দেশে সরকার নেই।’

মোদিকে উদ্দেশ্য করে অরুন্ধতী এও লেখেন, ‘আপনি সমাধান করতে পারছেন না। শুধু অবস্থা আরও খারাপ করছেন, তাই দয়া করে পদত্যাগ করুন।’