ভোজ্যতেলের দাম আকাশছোঁয়া, ঘুম উড়েছে ভারত সরকারের

টিবিটি টিবিটি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

প্রকাশিত: ১২:০০ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ২০, ২০২০ | আপডেট: ১২:০১:অপরাহ্ণ, নভেম্বর ২০, ২০২০

ভোজ্যতেলের আকাশছোঁয়া দাম নিয়ে বেশ বিপাকে পড়েছে ভারত সরকার। দেশটিতে গত এক বছরে সরিষা, সয়াবিন, পাম, সূর্যমুখীসহ প্রায় সবধরনের তেলের দাম বেড়েছে গড়ে ২০ থেকে ৩০ শতাংশ পর্যন্ত।

শুক্রবার ভারতীয় সংবাদমাধ্যম টাইমস অব ইন্ডিয়া জানিয়েছে, গত সপ্তাহে দেশটির একদল মন্ত্রীর বৈঠকে ভোজ্যতেলের মূল্যবৃদ্ধি নিয়ে উদ্বেগ জানানো হয়েছে। ওই বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন ভারতের কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ।

মন্ত্রীদের বৈঠকে জানানো হয়, ভারতে প্রায় ৩০ হাজার টন পেঁয়াজ আমদানির পর এর দাম কমেছে। আলুর দামও স্থিতিশীল। তবে ভোজ্যতেলের দাম বাড়ছে ক্রমাগত।

ভারতের ভোক্তা বিষয়ক মন্ত্রণালয় গঠিত মূল্য মনিটরিং সেলের তথ্যমতে, গত বৃহস্পতিবার দেশটিতে সরিষার তেল বিক্রি হয়েছে প্রতি লিটার ১২০ রুপিতে। অথচ এক বছর আগেও এর দাম ছিল ১০০ রুপির মতো।

এক বছর আগে ভারতের বাজারে ডালডা বিক্রি হতো প্রতি কেজি ৭৫ দশমিক ২৫ রুপিতে। এখন তার দাম দাঁড়িয়েছে ১০২ দশমিক ৫ রুপি।

২০১৯ সালের অক্টোবরে ভারতে সয়াবিন তেলের দাম ছিল প্রতি লিটার ৯০ রুপি করে। অথচ এখন তা বিক্রি হচ্ছে গড়ে ১১০ রুপিতে।

সূত্র জানিয়েছে, গত ছয় মাসে মালয়েশিয়ায় পাম তেলের উৎপাদন ব্যাপক হারে কমে যাওয়া ভারতে ভোজ্যতেলের মূল্যবৃদ্ধির অন্যতম কারণ।

ভারতের বাজারে পাম তেলের সবচেযে বড় ভোক্তা দেশটির প্রক্রিয়াজাত খাদ্য শিল্প। আমদানি করা পাম তেলের প্রায় ৭০ শতাংশই তারা ব্যবহার করে। ফলে মালয়েশিয়া থেকে আমদানি কমে যাওয়ায় এর সরাসরি প্রভাব পড়েছে ভারতের ভোজ্যতেলের বাজারে।

এই সংকট মোকাবিলায় পাম তেল আমদানিতে শুল্ক কমানোর দাবি জানিয়েছেন ভারতের ভোক্তা ও শিল্প সংশ্লিষ্টরা।

সূত্র: জাগো নিউজ।