ভাড়া নিয়ে বাগ্বিতণ্ডার জেরে বুকের ওপর বাস তুলে দিল চালক

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ৫:৩৪ অপরাহ্ণ, আগস্ট ২৭, ২০১৮ | আপডেট: ৫:৩৪:অপরাহ্ণ, আগস্ট ২৭, ২০১৮

টিবিটি দেশজুড়েঃ চট্টগ্রামে ভাড়া নিয়ে বাগ্বিতণ্ডার জেরে এক যাত্রীকে বাস থেকে ধাক্কা মেরে ফেলে চাকায় পিষ্ট করে হত্যা করা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় ক্ষুব্ধ লোকজন ব্যারিকেড দিয়ে আধঘণ্টা সড়ক অবরোধ করে। এতে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের সিটিগেট এলাকায় যানজটের সৃষ্টি হলে হাজার হাজার যাত্রী ভোগান্তিতে পড়েন।

সোমবার বিকাল ৩টার দিকে নগরীর আকবর শাহ থানাধীন সিটি গেট এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

নিহত রেজাউল করিম রনি (৩২) নগরীর আকবরশাহ থানাধীন কালীর হাট এলাকার ফারসী মিয়ার বাড়ির আমেরিকা প্রবাসী অলি উল্লার ছেলে। রনির দেড় বছর বয়সী একটি কন্যাসন্তান রয়েছে। চমেক হাসপাতাল মর্গে নিহত রনির লাশ দেখে স্বজনরা কান্নায় ভেঙে পড়েন। ঘাতক বাসটি আটক করা হলেও চালক-হেলপার পলাতক রয়েছেন।

জানা গেছে, রেজাউল করিম রনি সীতাকুণ্ডের কুমিরা থেকে ব্যবসায়িক কাজ সেরে চট্টগ্রাম ফিরছিলেন। ফেরার পথে আকবরশাহ থানার সিটিগেট এলাকায় যে বাস থেকে নামেন সেই বাসের পেছনের চাকায় পিষ্ট হয়ে গুরুতর আহত হন। তাকে মুমূর্ষু অবস্থায় চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসকরা মৃত ঘোষণা করেন।

নিহত রনির ফুফাতো ভাই নজরুল হুদা শাহিন বলেন, ‘দুপুরের পর সীতাকুণ্ডের ভাটিয়ারি থেকে শহরের নিউমার্কেটগামী ৪ নম্বর সিটি সার্ভিস বাসে করে বাড়ির উদ্দেশে (কালীর হাট) রওনা দেন রনি। বাসের কন্ডাক্টর ভাড়া নিয়ে বাগ্বিতণ্ডায় লিপ্ত হয় রনির সঙ্গে।

এ সময় তাকে গালমন্দ করে। চলন্ত বাস থেকেই জিল্লু নামে আমার এক ভাইকে ফোনে বিষয়গুলো জানান রনি। এরপর কালীরহাটে এলে বাস কন্ডাক্টর ধাক্কা দিয়ে বাস থেকে ফেলে দেয় রনিকে। আর চালক তার (রনির) বুকের ওপর বাসটি চালিয়ে দেয়। ’

পুরো পরিবার আমেরিকা প্রবাসী হলেও রনি একাই দেশে থাকতেন। ঈদের এক মাস আগে তার মা ও গত এক সপ্তাহ আগে বাবা দেশে আসেন। রনির দুই বোনও আমেরিকা প্রবাসী। রনির পরিবারে স্ত্রী ও একমাত্র সন্তান সাবা ওয়ালিয়া করিম (দেড় বছর) রয়েছেন। ৪ বছর দুবাই থাকলেও দেশে ফিরে বিগত ৫-৬ বছর ধরে নিজের দেশেই তিনি ছোটখাট ব্যবসা-বাণিজ্য করছেন।

প্রত্যক্ষদর্শীর বরাত দিয়ে রাতে আকবরশাহ থানার ওসি জসিম উদ্দিন বলেন, ‘রনিকে বাস থেকে ধাক্কা দিলে বাইরে পড়ে চাকার নিচে পৃষ্ট হন। এ ঘটনায় বাসটি আটক করা হয়েছে। চালক ও সহকারীকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।’

আকবরশাহ থানার পরিদর্শক (তদন্ত) উৎপল বড়ুয়া বলেন, ঘটনার প্রতিবাদে সিটিগেট এলাকায় সড়কে ব্যারিকেড দেয় স্থানীয় লোকজন। আধঘণ্টার মতো সড়ক অবরোধ করে রাখেন তারা।