ভোটের অধিকার কেবল আওয়ামী লীগই প্রতিষ্ঠা করতে পেরেছে: শেখ হাসিনা

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ৭:১৫ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ১, ২০১৮ | আপডেট: ৭:১৫:অপরাহ্ণ, অক্টোবর ১, ২০১৮

জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের ৭৩তম অধিবেশনে যোগদান শেষে দুটি আন্তর্জাতিক পুরস্কার সঙ্গে নিয়ে দেশে ফিরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

যুক্তরাষ্ট্রে সপ্তাহব্যাপী সরকারি সফর শেষে আজ (সোমবার) সকাল নয়টা ২০ মিনিটে রাজধানীর শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছান প্রধানমন্ত্রী। এ সময় মন্ত্রীপরিষদের সদস্যরা তাকে স্বাগত জানান। সেখানে থেকে পৌনে ১০টার দিকে গণভবন পৌঁছান প্রধানমন্ত্রী।

এ সময় প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, ‘এবারের সফরে অনেক সম্মান পেয়েছি। বিশ্বনেতাদের দেয়া এ সম্মান বাংলাদেশের সম্মান, পুরস্কার বাংলাদেশের মানুষদের উৎসর্গ করলাম।’

জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে যোগদানকালে প্রধানমন্ত্রী দুটি আন্তর্জাতিক পুরস্কার গ্রহণ করেন। এগুলো হচ্ছে, বৈশ্বিক সংবাদ সংস্থা ইন্টার প্রেস সার্ভিসের (আইপিএস) ‘ইন্টার ন্যাশনাল এচিভমেন্ট অ্যাওয়ার্ড’ এবং নিউইয়র্ক, জুরিখ ও হংকংভিত্তিক তিনটি অলাভজনক ফাউন্ডেশনের নেটওয়ার্ক গ্লোবাল হোপ কোয়ালিশনের ‘স্পেশাল ডিস্টিংকশন অ্যাওয়ার্ড ফর আউটস্ট্যান্ডিং লিডারশিপ’।

তিনি যুক্তরাষ্ট্রে বসবাসরত প্রবাসী বাংলাদেশিদের দেয়া একটি নাগরিক সংবর্ধনায় যোগদেন এবং ৭৩তম ইউএনজিএতে তার অংশগ্রহণের ফলাফল নিয়ে একটি সাংবাদিক সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন।

নির্বাচনকে সামনে রেখে দলীয় নেতাকর্মীদের উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা বলেন, ‘প্রতিপক্ষকে সব সময় শক্তিশালী মনে করেই চলতে হবে। দলের সাফল্য সব জায়গায় তুলে ধরতে হবে।’ ‘ভোটের অধিকার কেবল আওয়ামী লীগই প্রতিষ্ঠা করতে পেরেছে।’ যোগ করেন তিনি।

এ সময়, প্রধানমন্ত্রী আরো জানান, বঙ্গবন্ধুর খুনি রাশেদ চৌধুরীকে ফিরিয়ে আনার ব্যাপারে যুক্তরাষ্ট্র সরকার আন্তরিক, সফর ফলপ্রসূ হয়েছে।

সফরে প্রধানমন্ত্রী ২৭ সেপ্টেম্বর নিউইয়র্কে জাতিসংঘ সদরদপ্তরে জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের ৭৩তম অধিবেশনে ভাষণ দেন এবং ওই দিন জাতিসংঘ মহাসচিব অ্যান্তোনিও গুতেরেসের সঙ্গে বৈঠক করেন। প্রধানমন্ত্রী মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের দেয়া অভ্যর্থনায় যোগদান ছাড়াও ডাচ রাণী ম্যাক্সিমা এবং এস্তোনিয়ার প্রেসিডেন্ট কার্সটি কালজুলাইদের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় বৈঠক করেন। তার সঙ্গে দেখা করেন মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রী মাইক পোম্পেও।

জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে যোগদানের ফাঁকে রোহিঙ্গা সংকট, সাইবার নিরাপত্তা, শান্তিরক্ষা, নারীর ক্ষমতায়ন, নারী শিক্ষা এবং বিশ্বের মাদক সমস্যাসহ বেশ কটি উচ্চ পর্যায়ের অনুষ্ঠানে যোগদেন প্রধানমন্ত্রী। এছাড়া, তিনি মার্কিন চেম্বার অব কমার্স আয়োজিত মধ্যাহ্নভোজ ও গোলটেবিল বৈঠকে অংশ নেন।