‘ভ্যাকসিন হিরো’ পুরস্কারে ভূষিত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

প্রকাশিত: 10:38 AM, September 27, 2019 | আপডেট: 10:38:AM, September 27, 2019

পোলিও, কলেরা এবং বিভিন্ন রোগ নির্মূল করতে অসামান্য ভূমিকা ও টিকা দেওয়ার ক্ষেত্রে অসামান্য সাফল্যের স্বীকৃতিস্বরূপ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ‘ভ্যাকসিন হিরো’ পুরষ্কারে ভূষিত করা হয়েছে।

জেনেভা ভিত্তিক গ্লোবাল ভ্যাকসিন জোট জিএভিআই এক বিবৃতিতে জানায়, সোমবার (২৩ সেপ্টেম্বর) জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের ৭৪ তম অধিবেশনের সময় নিউইয়র্কের জাতিসংঘ সদর দফতরে এক অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীকে এই পুরস্কার প্রদান করা হয়।

গ্লোবাল অ্যালায়েন্স ফর ভ্যাকসিনেশন অ্যান্ড ইমিউনাইজেশনস (জিএভিআই) বোর্ডের চেয়ারম্যান ড. এনগোজি ওকনজো-আইওয়ালার হাত থেকে এই পুরস্কার নেওয়ার পর সেটিকে বাংলাদেশের জনগণের উদ্দেশ্যে উৎসর্গ করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

তিনি বলেন,”আজ (সোমবার) আমি যে পুরস্কার পেয়েছি তা আমার নয়, পুরস্কারটি বাংলাদেশের মানুষের এবং আমি এই পুরস্কার তাঁদের উদ্দেশেই উৎসর্গ করছি।” প্রধানমন্ত্রী একযোগে দেশবাসীকে টিকাদান কর্মসূচি চালিয়ে যাওয়ার আহ্বান জানান যা তাঁদের বাচ্চাদের সুস্থ রাখবে।

“সুস্থ শিশুরা দেশ চালাবে এবং দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাবে … অর্থনৈতিক উন্নয়নের জন্য একটি সুস্থ প্রজন্মের খুব প্রয়োজন” তিনি আরও যোগ করেন। হাসিনা জানান যে, দেশ পোলিও, কলেরা এবং বিভিন্ন সংক্রামক রোগ থেকে মুক্তি পেয়েছে। “আমরা জিএভিআইয়ের কাছ থেকে সবরকম সহযোগিতা পেয়েছি”, বলেন তিনি।

ওই পুরস্কার হস্তান্তরের আগে ওকনজো-আইওয়ালা শেখ হাসিনাকে উদ্দেশ্য করে একটি প্রশংসা পত্রও পাঠ করেন। সেখানে লেখা রয়েছে, হাসিনা শিশুদের অধিকার এবং নারীর ক্ষমতায়নের পাশাপাশি টিকাদানের বিষয়েও সত্যিকারের চ্যাম্পিয়নের মতো কাজ করেছেন। এর আগে নিজের ভাষণে শেখ হাসিনা ২০৩০ সালের মধ্যে বাংলাদেশে ‘সকলের জন্য ভ্যাকসিন’-এই লক্ষ্যে পৌঁছানোর বিষয়ে আশা প্রকাশ করেন।

শেখ হাসিনা বলেন, “আমরা আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সমর্থন নিয়ে সার্বজনীন স্বাস্থ্য কভারেজের আওতায় রোগ প্রতিরোধে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ”। তিনি স্মরণ করিয়ে দেন যে শিশুদের টিকাদান অবস্থার উন্নতিতে অসামান্য কৃতিত্বের জন্য ২০০৯ ও ২০১২ সালে বাংলাদেশকে জিএভিআই জোট পুরস্কারেও ভূষিত করা হয়েছিল।