মধুর নামে চিনির সিরাপ খাচ্ছেন না তো?

প্রকাশিত: ৩:২২ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ১৮, ২০২০ | আপডেট: ৩:২২:অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ১৮, ২০২০
ফাইল ছবি

সারা বছর মধুর চাহিদা থাকলেও শীত এলে তা বহুগুণে বেড়ে যায়। খাঁটি মধুর নামে প্রতারিত হয়ে অনেকেই ভেজাল জিনিস খাচ্ছেন। বিশেষ করে মধুর নামে চিনির রস পান করে অজান্তেই নিজের বিপদ ডেকে নিয়ে আসছেন।

বাজারে খাঁটি মুধ যে নেই, তা কিন্তু নয়। তবে খাঁটি মধুর কথা বলে চিনি মিশিয়ে হরহামেশা বিক্রি হচ্ছে। চিনির রস মেশানো মধু খাওয়ার ফলে কতটা ক্ষতি হলো জানেন?‌

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, হার্টের অসুখ থেকে ডায়াবেটিস, সবই হতে পারে চিনি মেশানো মধু খাওয়ার ফলে। কারণ, রক্তে গ্লুকোজের মাত্রা দ্রুত বৃদ্ধি করে, সাময়িক অ্যানার্জি বাড়িয়ে দেয় চিনি।

এছাড়া ওজন বাড়িয়ে দেওয়ার ফলে স্থূলতা দেখা দেয়। টাইপ টু ডায়াবেটিস দেখা দিতে পারে। হার্টের অসুখের শঙ্কা তৈরি হয়।

এমনকি লিভারের কার্যকারিতা কমে যেতে পারে। নন অ্যালকোহলিক ফ্যাটি লিভার ডিসিস হওয়ার শঙ্কা থাকে। মধুর এনজাইম চিনিতে থাকে না, ফলে হজম কঠিন হয়ে পড়ে। এছাড়া সংক্রমণ জাঁকিয়ে বসতে সাহায্য করে।

এসব থেকে বাঁচতে জেনে নিন খাঁটি মধু চেনার উপায়-

• মধুর স্বাদ হবে মিষ্টি, এতে ঝাঁঝালো ভাব থাকবে না
• শীতের দিনে বা ঠাণ্ডায় খাঁটি মধু দানা বেঁধে যায়
• সামান্য মধু আঙ্গুলে নিন, এর পুরুত্ব দেখুন। আসল মধু অনেক বেশি আঠালো হবে
একগ্লাস পানিতে মধু ড্রপ আকারে ছেড়ে দিন, খাঁটি মধু ড্রপ অবস্থায়ই গ্লাসের নিচে চলে যাবে
• মধুতে পিঁপড়া ধরবে না
• এক টুকরো ব্লটিং পেপার নিন, তাতে কয়েক ফোঁটা মধু দিন। যদি কাগজ তা সম্পূর্ণ শুষে নেয়, বুঝবেন মধুটি খাঁটি নয়।

মধুতে প্রায় ৪৫টিও বেশি খাদ্য উপাদান থাকে। তবে এতে সাধারণত কোনো চর্বি ও প্রোটিন নেই। প্রতি ১০০ গ্রাম মধু থেকে আমরা পাই ৩০৪ ক্যালরি।