মধ্যপ্রাচ্যে লক্ষাধিক সেনা পাঠানোর খবর ‘ভুয়া’ বলে উড়িয়ে দিলেন ট্রাম্প

টিবিটি টিবিটি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

প্রকাশিত: ৬:২৩ অপরাহ্ণ, মে ১৫, ২০১৯ | আপডেট: ৬:২৩:অপরাহ্ণ, মে ১৫, ২০১৯

ইরানের সঙ্গে সম্ভাব্য যুদ্ধে অংশ নিতে ১ লাখ ২০ হাজার মার্কিন সেনা মধ্যপ্রাচ্যে পাঠানো হচ্ছে বলে নিউইয়র্ক টাইমস যে প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে তা মিথ্যা বলে দাবি করলেন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।

হোয়াইট হাউসে মঙ্গলবার একটি অনুষ্ঠানে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে মার্কিন প্রেসিডেন্ট এ কথা বলেন।

নিউইয়র্ক টাইমসের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, তেহরানের হুমকি মোকাবিলায় মধ্যপ্রাচ্যে ১ লাখ ২০ হাজার মার্কিন সেনা মোতায়েনের পরিকল্পনা প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের কাছে তুলে ধরেছেন ভারপ্রাপ্ত মার্কিন প্রতিরক্ষামন্ত্রী প্যাট্রিক শানাহান। জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা জন বোল্টনের সঙ্গে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের বৈঠকের সময় শানাহান এ পরিকল্পনা তুলে ধরেন।

তবে নিউইয়র্ক টাইমসের ওই প্রতিবেদনকে ‘ভুয়া’ আখ্যা দিয়ে সেনা মোতায়েনে পরিকল্পনা নাকচ করেছেন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।

ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেন, আমি মনে করি, এটা ‘ফেইক নিউজ’। অবশ্যই আমরা এ ধরনের পদক্ষেপ নিতে পারি। তবে এখনই এ নিয়ে কোনো পরিকল্পনা করছি না। আশা করি, এ ধরনের পরিকল্পনা আমাদের নিতে হবে না। যদি নিতেই হয়, তাহলে বহু সেনাসদস্য পাঠানো হবে। যার সংখ্যা এই মুহূর্তে বলা কঠিন।

ওদিকে, তেহরানের সঙ্গে যুদ্ধে জাড়ানোর কোনো ইচ্ছে ওয়াশিংটনের নেই বলে মন্তব্য করেছেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও।

রাশিয়ার সোচিতে রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই ল্যাভরভের সঙ্গে বৈঠকে পম্পেও বলেন, মার্কিন স্বার্থে আঘাত আসলে উপযুক্ত জবাব দেবে ওয়াশিংটন।

ব্রাসেলসে একদিনের অনির্ধারিত যাত্রাবিরতি শেষে মঙ্গলবার (১৪ মে) রাশিয়া যান মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও। এসময় দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই ল্যাভরভের সঙ্গে বৈঠক করেন তিনি। বৈঠকে ইরান-বিরোধী পদক্ষেপে মস্কোর সমর্থন চাইলেও ইরান নীতির প্রশ্নে রাশিয়ার কঠোর বিরোধিতার সম্মুখীন হন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী। বৈঠক শেষে যৌথ সংবাদ সম্মেলনে রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী স্পষ্ট জানিয়ে দেন, পাশ্চাত্যের সঙ্গে স্বাক্ষরিত পরমাণু সমঝোতা থেকে ওয়াশিংটন বেরিয়ে গেলেও এর প্রতি রাশিয়ার পূর্ণ সমর্থন রয়েছে।

রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই ল্যাভরভ বলেন, যুক্তরাষ্ট্র পরমাণু চুক্তি থেকে বের হয়ে মারাত্মক ভুল করেছে। এ চুক্তি পুরোপুরি বাস্তবায়ন করে উত্তেজনা প্রশমনের আহ্বান জানাচ্ছি আমরা। ইউরোপীয় ইউনিয়ন ও চীন চুক্তির প্রতি সমর্থন জানালেও যুক্তরাষ্ট্র ইরানের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করে পরিস্থিতি জটিল করে তুলছে।

এসময় মাইক পম্পেও বলেন, ইরানের সঙ্গে সামরিক সংঘাতে যেতে চায় না যুক্তরাষ্ট্র।

মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও বলেন, আমরা ইরানের সঙ্গে যুদ্ধে যেতে চাচ্ছি না। তবে তেহরানকে স্পষ্ট জানিয়ে দিতে চাই, মার্কিন স্বার্থে আঘাত আসলে ওয়াশিংটন এর উপযুক্ত জবাব দেবে। দেশটির নেতাদের কাছ থেকে আমরা স্বাভাবিক আচরণ আশা করছি। তারা হিজবুল্লাহসহ বিভিন্ন গোষ্ঠীকে সহযোগিতার মাধ্যমে মধ্যপ্রাচ্যে অস্থিরতা সৃষ্টি করছে।