মশার কামড়ে যুবকের সর্বনাশ!

টিবিটি টিবিটি

স্পোর্টস ডেস্ক

প্রকাশিত: ৬:১৬ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ১০, ২০২০ | আপডেট: ৬:১৭:অপরাহ্ণ, অক্টোবর ১০, ২০২০

এখন তাঁর বয়স ২৬। আজ থেকে ২০ বছর আগে তাঁকে একটি মশা কামড়েছিল। সেই মশা কামড়ানোর পর থেকেই তাঁর জীবন বদলাতে শুরু করে। সব কিছু এলোমেলো হয়ে যায়। এখন আর তিনি হাঁটতেও পারেন না।

কম্বোডিয়ার কাম্পং ছহননাং প্রদেশের বঙ চেটের জীবন এখন পুরো বদলে গিয়েছে। ২০ বছর আগের মশার কামড়ের পর তাঁর জীবনে একের পর এক খারাপ ঘটনা ঘটেছে। কখনও স্কুলে যাওয়া বন্ধ হয়েছে। কখনও মাঠে যাওয়া বন্ধ। ফুটবলার হওয়ার স্বপ্ন দেখতেন বং চেট। কিন্তু সেই স্বপ্ন এই জীবনের মতো অধরাই থেকে গেল।

নিউইয়র্ক পোস্টের এক প্রতিবেদনে জানা যায়, ২০ বছর আগে কম্বোডিয়ার কাম্পং ছহননাং প্রদেশের বাসিন্দা বঙ চেটকে একটি মশা কামড়েছিল। তারপর থেকে তাঁর পা ফুলতে শুরু করে। বর্তমানে তাঁর পায়ের আকার স্বাভাবিকের তুলনায় ৫ গুণ বড়! তিনি হাঁটার ক্ষমতাও হারিয়েছেন। মাত্র ৬ বছর বয়সে এই ভয়াবহ রোগের কারণে আজ পা-ই তুলতে পারেন না।

২০ বছর আগে মশায় কামড়ানোর পর পায়ে হালকা ক্ষতর দাগ ছিল তার। বঙয়ের মা-বাবা বিষয়টা নিয়ে মাথা ঘামাননি, ভেবেছিলেন মাঠে খেলতে গিয়ে চোট পেয়েছে। এরপর থেকেই বঙ চেটের পায়ে একাধিক ছোট ছোট মাংস পিণ্ড জন্মাতে শুরু করে, বেলুনের মতো ফুলতে থাকে পা। ১২ বছর বয়সে তাঁর পা আর পাঁচটা স্বাভাবিক মানুষর পায়ের থেকে পাঁচ গুণ বেশি ফুলে যায়।

বঙয়ের বাবা-মা স্থানীয় একটি কারখানায় শ্রমিকের কাজ করেন। অভাব-অনটনের সংসার। সঠিক চিকিৎসা করাতে পারেননি ছেলের। ধীরে ধীরে একেবারেই হাঁটা-চলা বন্ধ হয়ে যায় বঙয়ের। স্কুল ছাড়তে হয়। যদিও বা কখনও সাহস করে জনসমক্ষে হাজির হয়েছেন, হাসি-মসকরার পাত্র হয়েছেন। কাজেই একটা সময়ের পর, নিজেকে সম্পূর্ণভাবে ঘরবন্দি করে নিয়েছেন বঙ।

বঙের স্বপ্ন ছিল ফুটবল খেলোয়ার হবেন। কিন্তু এই ভয়াবহ রোগের কারণে তিনি আজ পাই তুলতে পারেন না। ফুটবল খেলে মাঠ কাঁপানোর ইচ্ছে, ইচ্ছেই রয়ে গেল!

বঙয়ের অসুখের কথা জানতে পেরে চলতি মাসের গোড়ার দিকে এক সহৃদয় দম্পতি চিকিৎসার জন্য আড়াই হাজার ডলারের আর্থিক সাহায্য করবেন বলে জানায়। বঙ চেট বলেন, এটি আমার জীবনকে আরো সহজ করে তুলবে। আমার যত্ন নেওয়ার জন্য এমন কিছু লোক আছেন যা আমাকে সত্যিই আনন্দিত করে তোলে।

আর্থিক সহায্য পাওয়ার পর বঙকে ভালো চিকিৎসাকের কাছে নিয়ে যাওয়া হয়। চিকিৎসকরা জানান, বঙ লিম্ফ্যাটিক ফিলারিয়াসিস রোগে আক্রান্ত। এই রোগ এক ধরনের সুতোর মতো আকারের পোকা থেকে ছড়ায়। সেই পোকা শরীরে ঢোকে মশার কামড়ের মাধ্যমে। বঙ ছোট বয়সে না বুঝেই মশার কামড়ে তৈরি হওয়া ক্ষত আঁচড়েছিল, তার থেকেই ক্ষত ছড়িয়ে পড়ে।

জানা যায়, এই রোগের কোনো ভ্যাকসিন এখনো আবিষ্কার হয়নি। এই রোগ ভালোও হওয়ার মতো নয়। তবে বঙয়ের অবস্থা ভালো হওয়ার জন্য তাকে কিছু ওষুধ দেওয়া হয়।