মসজিদ হয়ে গেল কভিড হাসপাতাল! প্রশংসার ঢল

টিবিটি টিবিটি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

প্রকাশিত: ৭:৫৯ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ২০, ২০২১ | আপডেট: ৭:৫৯:অপরাহ্ণ, এপ্রিল ২০, ২০২১

গোটা ভারতজুড়ে চলছে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ। ক্রমশই বাড়ছে সংক্রমণ। দেশটিতে দৈনিক করোনা আক্রান্ত আড়াই লক্ষ ছাড়িয়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় ভারতে নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ২,৫৯,১৭০ জন। ১,৭৬১ জন গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় মারা গিয়েছেন। হাসপাতালে মিলছেনা বেড। আকাল পড়েছে অক্সিজেনের। তার মধ্যেই অভিনব পদক্ষেপ নিল বরোদার এক মসজিদ।

চলছে রমজান মাস এর মধ্যে করোনা পরিস্থিতি মোকাবিলা করতে গুজরাতের বরোদার এক মসজিদকে রূপান্তর করা হল কোভিড হাসপাতালে। মোট ৩০ টি বেড রয়েছে এখানে। মসজিদ কর্তপক্ষ জানিয়েছে, ‘হাসপাতালে অক্সিজেন নেই, বেড নেই, এই সঙ্কটজনক পরিস্থিতি দেখে আমরা মসজিদটিকে কোভিড হাসপাতাল বানানোর সিধান্ত নিয়েছি। রমজান মাসে এর থেকে ভালো উদ্যোগ আর কী হতে পারে?’

গুজরাটের কভিড পরিস্থিতি ক্রমশই খারাপ হচ্ছে। হাসপাতালের বাইরে অ্যাম্বুল্যান্সের লাইন যেন এক চেনা ছবিতে পরিণত হয়েছে। সম্প্রতি এক মামলার রায়দানের সময় গুজরাটের হাই কোর্ট জানায়, একটি হাসপাতালের বাইরে রীতিমতো ৪০টি অ্যাম্বুল্যান্সও দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা গিয়েছে। যদিও রাজ্যের বিজেপি সরকারের দাবি, একে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে হাসপাতালের ব্যর্থতা হিসেবে চিহ্নিত করা ঠিক নয়। কেননা বর্তমান পরিস্থিতিতে রোগীদের ভর্তি নেওয়ার জন্য নির্দিষ্ট প্রোটোকল মানতে হচ্ছে। তাতেই সময় লাগছে। তাছাড়া যেহারে সংক্রমণ বাড়ছে, তাতে এর মোকাবিলা করাও চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

এই মুহূর্তে ভারতের করোনা পরিস্থিতিতে উদ্বেগ ক্রমেই বাড়ছে। নিজেদের মতো করে মারণ ভাইরাসকে রুখতে পদক্ষেপ করেছে অনেকেই। একদিকে যেমন গুজরাটের মসজিদের এই পদক্ষেপ চোখে পড়ছে, অন্যদিকে ছত্তিশগড়ের এক মহিলা ডেপুটি পুলিশ সুপারিটেন্ডেন্টকে দেখা গিয়েছে অন্তঃসত্ত্বা অবস্থাতেই ব্যস্ত সড়কে সকলকে কভিড বিধি মেনে চলার অনুরোধ জানাতে।

ইন্টারনেটে ভাইরাল হয়ে গিয়েছে সেই ভিডিও। তাতে দেখা গিয়েছে, ডিএসপি শিল্পা সাহু রাস্তায় দাঁড়িয়ে সকলকে আরজি জানাচ্ছেন‌ কভিড বিধি মেনে চলার জন্য। তাঁর হাতে লাঠি। মুখে ফেস শিল্ড। গ্রীষ্মের গনগনে রোদে দাঁড়িয়ে মানুষকে সচেতন করার তাঁর এই প্রয়াস দেখে মুগ্ধ নেটিজেনরা। অতিমারীর সময়ে করোনা যোদ্ধারা কতটা সংগ্রাম করছেন, তার এক চমৎকার নিদর্শন শিল্পা সাহুর এই ভিডিও। যা দেখে অনেকেই মন্তব্য করেছেন, এইভাবে ভারতের সকলে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে লড়াই করলে করোনাকে হারানো নিশ্চয়ই সম্ভব হবে।

সূত্র: সংবাদ প্রতিদিন।