মহামারি করোনা: ৪১তম বিসিএস প্রিলি কবে?

প্রকাশিত: ৮:২৪ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ২১, ২০২০ | আপডেট: ৮:২৫:অপরাহ্ণ, এপ্রিল ২১, ২০২০

মহামারি করোনা ভাইরাসের কারণে এলোমেলো শিক্ষাপঞ্জি। সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণার পর এসএসসি পরীক্ষার ফল প্রকাশ নিয়ে শঙ্কা তৈরি হয়েছে। করোনার প্রদুর্ভাবের ফলে যে কেবলমাত্র শিক্ষার্থীরাই বিপাকে পড়েছেন তা নয়, সঙ্গে অনিশ্চয়তায় পড়েছেন লাখ লাখ চাকরি প্রার্থীও।

বিসিএস পরীক্ষার প্রতি চাকরি প্রার্থীদের আকর্ষণ সবসময়ই বেশি ছিল। সাম্প্রতিক বছরগুলোয় এই আগ্রহের পরিমাণ যেন দ্বিগুণ মাত্রায় বেড়ে গেছে। গত কয়েকটি বিসিএসের প্রাথমিক আবেদন পরিসংখ্যান সেটিই প্রমাণ করে।

সূত্র বলছে, সর্বশেষ ৪১তম বিসিএসে রেকর্ডসংখ্যক প্রার্থী আবেদন করেছেন। ২ হাজার ১৩৫ পদের বিপরীতে আবেদন জমা পড়েছে ৪ লাখ ৭৫ হাজার। চলতি বছরের শুরুর দিকে এই আবেদন প্রক্রিয়া শেষ করে পিএসসি।

নিয়মানুযায়ী, আবেদনের ৫ থেকে ৬ মাসের মধ্যে প্রিলিমিনারি পরীক্ষা সম্পন্ন করে থাকে পিএসসি। সব ঠিকঠাক থাকলে আগামী জুনে হওয়ার কথা ছিল ৪১তম বিসিএসের প্রিলি। তবে এই শিডিউল পাল্টে দিচ্ছে মরণঘাতী ভাইরা নভেল করোনা। গত একমাস ধরে সরকার সাধারণ ছুটি ঘোষণা করেছে। ফলে অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ রয়েছে সবকিছু।

একটি সূত্রের তথ্য, আগামী জুনের আগে ৪১তম বিসিএসের প্রিলি পরীক্ষা হওয়ার সম্ভাবনা কম। করোনা সংক্রমণ কমলে রমজানের পরপরই শুরু হবে স্থগিত হওয়া উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষা। তাই আপাতদৃষ্টিতে জুনের আগে প্রিলি হবার সম্ভাবনা নেই। কারণ এমন পাবলিক পরীক্ষার মাঝে বিসিএস প্রিলির মত বড় পরীক্ষা হওয়ার নজির খুব একটা দেখা যায় যায়নি।

সূত্রটি বলছে, রমজানের পর উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষা শুরু হলে শেষ হতে আগামী ঈদুল আযহার কাছাকাছি চলে আসবে। সে হিসেবে ঈদুল আযহার পরই ৪১তম বিসিএসের প্রিলি পরীক্ষা হওয়ার সম্ভাবনা দেখা যাচ্ছে। যদিও সবকিছুই নির্ভর করছে অনিশ্চিত গন্তব্যের যাত্রা করা করোনা প্রাদুর্ভাবের উপর।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে পিএসসির চেয়ারম্যান ড. মোহাম্মদ সাদিক সোমবার দ্যা ডেইলি ক্যাম্পাসকে জানান, করোনার প্রাদুর্ভাবের কারণে দেশ নয়, পুরো বিশ্ব স্থবির হয়ে আছে। সবকিছু লকডাউন অবস্থায় রয়েছে। এ অবস্থায় কিছু বলা যাবে না। সবকিছু স্বাভাবিক হলে বৈঠক করে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

প্রসঙ্গত, গত বছরের ২৭ নভেম্বর ৪১তম বিসিএসের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে সরকারি কর্ম কমিশন (পিএসসি)। এতে বিভিন্ন পদে ২ হাজার ১৩৫ কর্মকর্তা নিয়োগ দেওয়া হবে বলে জানানো হয়। বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের পর চলতি বছরের ৪ জানুয়ারি আবেদন প্রক্রিয়া শেষ হয়। ৪১তম বিসিএসে শিক্ষা ক্যাডারে সর্বোচ্চ ৯১৫ জনকে নিয়োগ দেওয়া হবে। এরমধ্যে প্রভাষক ৯০৫ জন, কারিগরি শিক্ষায় প্রভাষক ১০ জন নেওয়া হবে।এছাড়া প্রশাসনে ৩২৩ জনকে নিয়োগ দেয়া হবে। পাশাপাশি পুলিশে ১০০ জন, স্বাস্থ্যতে সহকারী সার্জন ১১০ জন ও সহকারী ডেন্টাল সার্জন ৩০ জন নিয়োগ পাবেন।

পররাষ্ট্রে ২৫ জন, সহকারী কর কমিশনার (কর) ৬০ জন, সহকারী কমিশনার (শুল্ক ও আবগারি) ২৩ জন, আনসারে ২৩ জন, অর্থ মন্ত্রণালয়ে সহকারী মহা হিসাবরক্ষক (নিরীক্ষা ও হিসাব) ২৫ জন ও সহকারী নিবন্ধক ৮ জন নেয়া হবে।পরিসংখ্যান কর্মকর্তা ১২ জন, রেলপথ মন্ত্রণালয়ে সহকারী যন্ত্র প্রকৌশলী ৪ জন, সহকারী প্রকৌশলী (সিভিল) ২০ জন, সহকারী ট্রাফিক সুপারিন্টেনডেন্ট ১ জন, সহকারী সরঞ্জাম নিয়ন্ত্রক ১ জন, সহকারী প্রকৌশলী (যান্ত্রিক) ৩ জন থাকছে ৪১তম বিসিএসে।

সহকারী পোস্টমাস্টার জেনারেল পদে ২ জন, কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা ১৮৩ জন, পশুসম্পদে ৭৬ জন, বিসিএস মৎস্যতে ১৫ জন ও বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ৬ জন, বিসিএস বাণিজ্যে সহকারী নিয়ন্ত্রক ৪ জন। তথ্য মন্ত্রণালয়ে সহকারী পরিচালক ২২ জন, সহকারী পরিচালক (অনুষ্ঠান) ১১ জন, সহকারী বেতার প্রকৌশলী ৯ জন, সহকারী বার্তা নিয়ন্ত্রক ৫ জন, স্থানীয় সরকার বিভাগে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশলে সহকারী প্রকৌশলী ৩৬ জন, সহকারী বন সংরক্ষক ২০ জন।

পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ৪ জন, খাদ্যে সহকারী খাদ্য নিয়ন্ত্রক ৬ জন ও সহকারী রক্ষণ প্রকৌশলী ২ জন, বিসিএস গণপূর্তে সহকারী প্রকৌশলী (সিভিল) ৩৬ জন ও সহকারী প্রকৌশলী (ই/এম) ১৫ জন থাকছে। সবমিলিয়ে ৪১তম বিসিএসে মোট দুই হাজার ১৩৫ জন কর্মকর্তা এই বিসিএসে পাবে।