মানিকগঞ্জে স্কুলছাত্রী ধর্ষনের পর হত্যার দায়ে আসামী সাদ্দাম মিয়ার যাবজ্জীবন কারাদন্ড

প্রকাশিত: ৮:০৬ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২১, ২০২০ | আপডেট: ৮:০৬:অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২১, ২০২০

মানিকগঞ্জের সাটুরিয়া উপজেলার গোলড়া গ্রামে স্কুল ছাত্রী মিমি ধর্ষনের পর হত্যার দায়ে আসামী সাদ্দাম মিয়াকে যাবজ্জীবন কারাদন্ডাদেশ দিয়েছে মানিকগঞ্জের নারী ও শিশুদমন ট্রাইবুন্যালের বিচারক মো: আলী হোসাইন।

আজ বুধবার দুপুরে আসামীর উপস্থিতিতে এই দন্ডাদেশ দেয়া হয়।দন্ডপ্রাপ্ত আসামী সাদ্দাম মিয়া মানিকগঞ্জের ঘিওর উপজেলার বেগুন নারসি গ্রামের আহমেদ মিয়ার ছেলে।সে সাটুরিয়ার গোলড়া এলাকায় একটি পৌল্ট্রি ফার্মের ম্যানেজার হিসেবে কর্মরত ছিলেন।

মামলার বিবরণের জানা যায়, আসামী সাদ্দাম মিয়ার সঙ্গে স্কুল ছাত্রী তুহিন সুলতানা মিমির প্রেমের সম্পর্ক ছিল। সম্পর্কের সুবাদে ২০১২ সালের ৮নভেম্বর রাতে সাদ্দাম মিয়া সাটুরিয়া উপজেলার গোলড়া গ্রামে মিমি বাড়িতে গিয়ে তার কক্ষে গিয়ে মিমিকে ধর্ষনের পর শ্বাসরোধে হত্যা করে। পরে মিমির ঘরে থাকা স্বর্নালংকার ও নগদ টাকা নিয়ে পালিয়ে যায়। পরের দিন মিমির বাবা সানোয়ার হোসেন বাদি হয়ে সাটুরিয়া থানায় মামলা করে। পরে পুলিশ আসামী সাদ্দামকে গ্রেফতার করে। ২০১৩ সালের ২ ‍জুলাই পুলিশ চার্জশীট প্রদান করে। আসামী সাদ্দাম আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দিতে ধর্ষনের পর হত্যার কথা স্বীকার করে।

দীর শুনানীর পর ১৮ জন সাক্ষীর সাক্ষ্য গ্রহন শেষে বুধবার বিজ্ঞ বিচারক আসামী সাদ্দাম মিয়াকে যাবজ্জীবন কারাদন্ডে দন্ডিত করেন।

রাষ্ট্রপক্ষে এডভোকেট একেএম নুরুল হুদা রুবেল ও আসামী পক্ষে এডভোকেট নজরুল ইসলাম বাদশা মামলা পরিচালনা করেন।