‘মায়ের গর্ভে থাকা শিশু’র লিঙ্গ অগ্রীম জানানোর নিষেধাজ্ঞা সময়ের দাবী’

প্রকাশিত: ৫:৫৫ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ২৮, ২০১৯ | আপডেট: ৫:৫৫:অপরাহ্ণ, নভেম্বর ২৮, ২০১৯
প্রতীকী ছবি

বাংলাদেশে আলট্রাসনোগ্রাফি একটি অভিশাপ নামে রুপ নিচ্ছে। গত কয়েক বছর এই ব্যাপারে আমার অনুসন্ধান তথ্য বলছে, অনাগত শিশু’র লিঙ্গ অগ্রীম জানায় অনাগত সন্তান বিভিন্ন পন্থায় হত্যা যেমন বাড়ছে তেমনি নারী অত্যাচার, ডিভোর্স বাড়ছে সমানতালে।

নওগা’র সুফিয়া (২৯) পরপর দুটি কন্যা সন্তান জন্ম দেন তারপর পরবর্তী সময়ে আলট্রাসনোগ্রাফি তে যখন স্বামী জানতে পারেন কন্যা সন্তান সুফিয়ার জীবনে নেমে আসে অন্ধকার। ছেলে সন্তান না হওয়ায় অলক্ষী ব্যাখ্যা দিয়ে প্রহার চলতে থাকে তার উপর, একসময় অত্যাচার সহ্য করতে না পেরে আত্নহত্যা করেন সুফিয়া। এমন হাজার হাজার সুফিয়া মার খাচ্ছে শশুর বাড়ি ‘তে আলট্রাসনোগ্রাফিতে অনাগত শিশু’র লিঙ্গ অগ্রীম জানতে পেরে।

নারায়ণগঞ্জ সেলিনা (১৯) অনার্স অধ্যায়নরত এই শিক্ষার্থী আলট্রাসনোগ্রাফি তে ছেলে হওয়ার কথা জানতে পেরে চিকিৎসক দিয়ে অনাগত সন্তান হত্যা’র সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন৷এমন ভয়াবহ চিত্র দেশের সবখানে ই।

অস্ট্রেলিয়ার গাইনী চিকিৎসক লরেদা এস্ত্রেফান্তেও বাংলাদেশে নারী স্বাস্থ্য নিয়ে কাজ করতে আসার পর তাকে আলট্রাসনোগ্রাফি নিয়ে আমি প্রশ্ন করেছিলাম। এই বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক বলেছিলেন , এই আলট্রাসনোগ্রাফি শিশু ‘র উপর ভয়াবহ প্রভাব ফেলে ক্ষতি করে নারী স্বাস্থ্য ‘র।

আমার অনুসন্ধান তথ্য সুত্র বলছে,এই আলট্রাসনোগ্রাফি তে অগ্রীম শিশু ‘র লিঙ্গ অগ্রীম জানতে পেরে ঝুঁকি তে থাকে সবচেয়ে বেশী মা ও শিশু দুজন ই।

ঢাকা মেডিক্যাল সহ দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে অনুসন্ধান চালিয়ে বেশকিছু চিকিৎসক, নার্স থেকে যেটা জানতে পারি তা হচ্ছে, ঘনঘন আলট্রাসনোগ্রাফি মায়ের গর্ভে থাকা শিশু ক্ষতি’র সম্মুখীন হোন।

এতে শিশু প্রসব পরবর্তী সময়েও নানা রোগে আক্রান্ত হয়। তাই! নারী ও শিশু ‘র জীবনকে হুমকি থেকে সুরক্ষা দিতে সরকার ও উচ্চ আদালতের উচিৎ অবিলম্বে এই আলট্রাসনোগ্রাফি বন্ধ অথবা নিয়ন্ত্রণ আনা।


লেখক: আরিফ রহমান শিবলী

নির্বাহী প্রধান, কিডস মিডিয়া ও
সদস্য আমেনেস্ট্রি ইন্টারন্যাশনাল।