মিথ্যা বিজ্ঞাপন প্রচার, আবুল খায়ের গ্রুপের বিরুদ্ধে মামলা

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ৫:১৯ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ৫, ২০১৮ | আপডেট: ৫:১৯:অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ৫, ২০১৮

মিথ্যা বিজ্ঞাপন প্রচার, বিভ্রান্তিকর তথ্য প্রদানের দায়ে আবুল খায়ের মিল্ক প্রডাক্টস লিমিটেডের বিরুদ্ধে মামলা করেছে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের স্বাস্থ্য বিভাগ।

মামলার অভিযোগে বলা হয়েছে, আবুল খায়ের মিল্ক প্রডাক্টস লিমিটেডের মার্কস ডায়েবেটিস মিল্কের মোড়কের নামের পূর্বে ‘এক্সপার্ট ইন মিল্ক নিউট্রেশন’ এবং প্যাকেটের নিচের অংশে ‘স্পেশাল মিল্ক নিউট্রেশন র্ফমুলা ফর ডায়েবেটিস’ লেখা আছে। প্যাকেটের পিছনের অংশে ইনস্টিটিউটের লোগো ব্যবহার করে ‘প্রোভেন ফর্মুলা’ লেখা।

এছাড়া, ডায়েবেটিক মিল্কের বিতরণকৃত লিফলেটে ডাক্তার বা বিশেষজ্ঞদের ছবি ব্যবহার করে ‌‌’সার্টিফাইড’ বলে উল্লেখ করেছে তারা। বলেছে তাদের গুড়ো দুধ ‘লো-জি আই মার্কস ডায়েবেটিক মিল্ক’ পরীক্ষিত ফর্মূলা। ফার্মেসি দোকানসহ বিভিন্ন বিপণী বিতানে প্যকেটের দুধের ছবির সাথে ডাক্তারদের ছবিসহ সাইনবোর্ড ব্যবহার করে ডায়েবেটিক নিয়ন্ত্রণে ব্যবহৃত ‘লো-জি আই মার্কস ডায়েবেটিক মিল্ক’ বলে তাদের পণ্যকে উল্লেখ্য করেছেন।

প্রতিষ্ঠানের ইউটিউব চ্যানেলে ডাক্তার ও বিশেষজ্ঞদের ভাষ্য প্রকাশ করেছেন। পণ্যের নাম ‘মার্কস ডায়েবেটিক মিল্ক’ দেয়া হয়েছে যা সাধারণ ভোক্তার মনে বিভ্রান্তি তৈরি করেছে। গুড়ো দুধটিকে অভিনব খাদ্য এবং বিশেষ পণ্য হিসাবে ব্যবহারিত খাদ্য রূপে প্রচার করলেও এ বিষয়ে অনুমোদন পরিলক্ষিত হয়নি।

এ বিষয়ে মামলার বাদি ডিএসসিসির নিরাপদ খাদ্য পরিদর্শক ও মামলার (প্রসিকিউটিং অফিসার) কামরুল হাসান জানান, দুধ দিয়ে ডায়েবেটিক রোগ সারা যায় না। এটি একটি বিভ্রান্তিকর তথ্য ও মিথ্যা প্রচার। যা বাংলাদেশের সাধারণ ভোক্তাদের দৃষ্টি আকর্ষণ করার একটি অপকৌশল মাত্র।এটি আইন এবং প্রবিধানমালার সুস্পষ্ট লঙ্ঘন।

নিরাপদ খাদ্য আইনের ২০১৩’র ৩১,৩২(খ),৪১,৪২ ধারা লঙ্ঘনের দায়ে আবুল খায়ের মিল্ক প্রডাক্টস লিমিটেডের বিরুদ্ধে বিশুদ্ধ খাদ্য আদালতে ১৬ আগস্ট মামলাটি দায়ের করে ডিএনসিসি। ৩ সেপ্টেম্বর মামলাটি আমলে নেয় বিচারিক আদালত। আগামী ২৪ সেপ্টেম্বর পরবর্তী শুনানির দিন ধার্য করা হয়েছে।