মিয়ানমারে ২৩ হাজার বন্দিকে মুক্তির আদেশ

টিবিটি টিবিটি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

প্রকাশিত: ৫:০০ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ১৭, ২০২১ | আপডেট: ৫:০০:অপরাহ্ণ, এপ্রিল ১৭, ২০২১

নববর্ষ উপলক্ষে সাধারণ ক্ষমার আওতায় ২৩ হাজার ১৮৪ বন্দিকে মুক্তি দিয়েছে মিয়ানমারের সামরিক সরকার। শনিবার (১৭ এপ্রিল) এ খবর দিয়েছে বার্তাসংস্থা রয়টার্স।

আজ মিয়ানমারে বৌদ্ধ নববর্ষের প্রথম দিন এবং পাঁচদিন ব্যাপি সরকারি ছুটির সর্বশেষ দিন। প্রতি বছর এ দিন লোকজন বৌদ্ধ মন্দির পরিদর্শনে যায় এবং জল ছোড়াছুড়ির উৎসবে সামিল হয়। দেশজুড়ে আনন্দঘন পরিবেশে নববর্ষকে স্বাগত জানানো হয়। নববর্ষ উপলক্ষে বন্দিদের মুক্তি দেয়ার রীতি প্রচলিত রয়েছে মিয়ানমারে।

তবে এ বছর গণতন্ত্রপন্থী বিক্ষোভকারীরা নববর্ষ উৎসব বর্জনের ডাক দিয়েছেন এবং এর পরিবর্তে জান্তা সরকারের বিরুদ্ধে প্রতিবাদে সামিল হতে জনগণের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে্ন।

শনিবার মিয়ানমারের বৃহত্তম শহর মান্দালয়ে হাজার হাজার বিক্ষোভকারী রাস্তায় জড়ো হয়েছেন। তারা বিক্ষোভে গণতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠার দাবি তোলেন। শান প্রদেশে প্রবল বৃষ্টির মধ্যে হাজার হাজার লোক বিক্ষোভ করেছেন।

একদিকে বন্দিদের মুক্তি দিচ্ছে সরকার, অন্য দিকে বিক্ষোভের সঙ্গে জড়িতে ৮৩২ জন ওয়ারেন্টভুক্ত ব্যক্তিকে গ্রেফতারের জন্য অভিযান চালানো হচ্ছে।

কারা বিভাগের মুখপাত্র কিয়াও তুন উ বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে বলেন, ‘এরা অধিকাংশই ১ ফেব্রুয়ারির আগে থেকে বন্দি ছিলেন তবে অল্প কিছু রয়েছেন যাদের পরে গ্রেফতার করা হয়েছিল।’

বিক্ষোভের সঙ্গে জড়িত রয়েছেন এমন কাউকে মুক্তি দেয়া হবে কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে ওই মুখপাত্র বলেন, তিনি ক্ষমার বিষয়ে বিস্তারিত জানেন না।

কারাগারের এক কর্মকর্তা নাম না প্রকাশ করার শর্তে বার্তা সংস্থা এএফপিকে জানান, কারাগারগুলো শনিবার থেকে ২৩ হাজার বন্দিকে মুক্তি দেয়া শুরু করবে।

তিনি বলেন, ইয়াঙ্গুনের ‘ইনসেইন কারাগার থেকে আমরা আটশ বন্দিকে মুক্তি দেব।’

গত ফেব্রুয়ারিতেও বেশ কিছু বন্দিকে মুক্তি দিয়েছিল জান্তা সরকার। মানবাধিকার সংস্থাগুলো তখন আশঙ্কা করেছিল যে, জান্তাবিরোধী বিক্ষোভকারীদের জন্য কারাগারের জায়গা খালি করতে এই পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে।

তবে সশস্ত্র বাহিনী দিবসের আগে প্রায় নয়শ বিক্ষোভকারীকে মুক্তি দিয়েছিল সেনা সরকার।

ফেব্রুয়ারির অভ্যুত্থানের পর থেকে সেনা সরকার ৩ হাজার ১শ’রও বেশি বিক্ষোভকারীকে আটক করে রেখেছে। এছাড়া নিরাপত্তা বাহিনীর হাতে নিহত হয়েছেন সাতশ’র বেশি মানুষ।