“মেজদাকে নাড়লে কড়া, শুরু হয় টাকা পড়া”

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ১২:০০ পূর্বাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১৮, ২০১৯ | আপডেট: ১২:০০:পূর্বাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১৮, ২০১৯

একটা সময় ছিল যখন প্রচুর মুভি দেখতাম; বুঝি আর না বুঝি চলচ্চিত্র দেখতাম। যদি বলা হয় ছোটবেলায় কোন চলচ্চিত্র দেখে আমার চোখেখড়ি তবে বলা যায় আলমগীর, শাবানা ও নতুন অভিনীত বাংলা চলচ্চিত্র “রাঙা ভাবী” এবং নাসিরুদ্দিন শাহ ও শাবানা আজমী অভিনীত “পার” (বিশেষ ঘরানার চলচ্চিত্র যাদের আমরা আর্ট ফিল্ম বলি) দেখেই আমার চলচ্চিত্রের চোখেখড়ি হয়!

যাই হোক সে অন্য প্রসঙ্গ, এরপর অনেক বসন্ত পেরিয়ে গেছে! অনেক অনেক চলচ্চিত্র দেখেছি ভাল মন্দের মিশেলে। এক কলকাতারই এক বিষয়কে কেন্দ্র করে মুভি দেখেছি কয়েকটি যেমনঃ বড় বউ, মেজো বউ, সেজো বউ, ছোট বউ ইত্যাদি! ভাগ্যিস আর কোনো বউ নিয়ে চলচ্চিত্র দেখা হয়নি! যদিও তারা চাইলে দ্বিতীয়, তৃতীয় ও আরো অনেক বউ নামের মুভিও হয়তো বানাতেন!

এত ভূমিকা টানছি অযথাই…। আজ ‘চৌধুরী পরিবার’ নামে একটি চলচ্চিত্র দেখার সুযোগ পেয়ে মনে হলো একটু দেখি! চলচ্চিত্রের কাস্টিং নজরে পড়ার মত। সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়, শ্যুভেন্দু, রঞ্জিত মল্লিক, প্রসেনজিৎ, অভিজিৎ, লাবণী সরকার, ইন্দ্রাণী হালদার, রমা গুহঠাকুরতাসহ আরও অনেকে!

প্রায়ই দেখা যায় বিশাল স্টার কাস্টিং যখন থাকে, পরিচালক সেই চলচ্চিত্রকে একটি দারুণ জায়গায় দাঁড় করাতে প্রায়ই ব্যর্থ হোন। ব্যতিক্রম নেই তা নয়! এত এত দামী তারকা থাকার পরও পরিচালক অগ্রাধিকার দিয়েছেন রঞ্জিত মল্লিককে (তার এক ঘরানার এবং এক টোনের অভিনয় আমার ভীষণ পছন্দের যদিওবা)!

পুরো চলচ্চিত্র দেখতে দেখতে মনে হলো এই চলচ্চিত্রের নাম চৌধুরী পরিবার না হয়ে “মেজো ছেলে” হতে পারতো! চলচ্চিত্র জুড়ে সকলেরই শুধু টাকা লাগে আর সবাই নাছোড়বান্দা হয়ে মেজদা’র কাছেই টাকা চেয়ে বেড়ায়!

অভিজিৎ ও ইন্দ্রাণীর ১০০ টাকাও যখন চাইতে হয় মেজদার কাছে, তখন মনে হচ্ছিল চলচ্চিত্রের নাম হতে পারতো “মেজদা যখন টাকার গাছ” অথবা “মেজদাকে নাড়লে কড়া, শুরু হয় টাকা পড়া”

লেখকঃ ইফতেখায়রুল ইসলাম