‘মোস্তাফিজ ইজ ম্যাজিশিয়ান’

টিবিটি টিবিটি

স্পোর্টস ডেস্ক

প্রকাশিত: ১২:২৬ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ২৪, ২০১৮ | আপডেট: ১২:২৬:অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ২৪, ২০১৮

এমনিতেই একটা বাড়াতি চাপ ছিল মাশরাফিদের উপর। উপর্যুপরি দুটি ম্যাচে কোন রকম প্রতিদ্বন্ধিতা গড়েই তুলতে পারেনি টাইগার বাহিনী। আর আফগানিস্তানের বিরুদ্ধে এ ম্যাচে হারলে হয়তো চলতি এশিয়া কাপই শেষ। তাই এমন একটা জয়ের পর তার মধ্যে খুব বেশি উত্তেজনা নেই। ম্যাচ শেষে কথা বলতে গিয়েও আত্মবিশ্বাস দেখালেন।

শেষ ওভারে জয়ের জন্য আফগানদের দরকার ছিল মাত্র ৮ রান। কাগজে-কলমে ৮ রান হলেও ৬ রান করলেই ম্যাচ টাই। তখন পয়েন্ট ভাগাভাগি হত। শেষ ওভারের আগের তিন ওভারে ১১, ১২, ১১ করে রান তোলা আফগানদের জন্য কাজটা খুব কঠিন কিছু ছিল না। মোস্তাফিজ আসলেন শেষ ওভার করতে। যদিও সে পুরোপুরি ফিট ছিল না। তবুও মাশরাফি তার হাতেই তুলে দিলেন শেষ ওভারটা। আর আস্থার প্রতিদানও দিলেন কাটার মাস্টার মোস্তাফিজ।

৩ রানের নাটকীয় এক জয় যে বাংলাদেশকে ভালোমতোই টিকিয়ে রাখল দৌড়ে। আগের তিন আসরের দুবারের ফাইনালিস্ট বাংলাদেশ শেষ ম্যাচে পাকিস্তানকে হারালেই চলে যাবে ফাইনালে। যে ফাইনালে এরই মধ্যে উঠে বসে আছে গতবার বাংলাদেশকেই হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হওয়া ভারত।

পুরস্কার বিতরণী মঞ্চের উপস্থাপক রাসেল আরনল্ডের সামনে বেশ প্রত্যয়ী ভঙ্গিতে হাজির হলেন মাশরাফি। মাশরাফি বললেন, ‌‘শেষ ওভারটায় মোস্তাফিজ যেন ম্যাজিশিয়ান ছিল। এ রকম অনেক কাছাকাছি ব্যবধানের ম্যাচ হেরেছি আমরা। শেষ ওভারে ৮-৯ রান দরকার ছিল, সেটিও করতে পারিনি। তবে আজ আমরা এই রানটাই রক্ষা করতে পারলাম।’

মাশরাফি সাকিবের ৪৯ ওভারের কথা বিশেষভাবে বলেছেন। তিনি বলেন ‌‘আমি আশা ছাড়িনি। শেষ তিনটা বল সাকিব আসলে দুর্দান্ত করেছে। এরপর আমরা মোস্তাফিজকে বলেছি ও যেন উইকেট তুলে নেওয়ার দিকেই মনোযোগ দেয়। কারণ, তাতে ওদের মিস করার সম্ভাবনা বাড়বে।’

ম্যাচে লড়াই করার মতো পুজিঁ তুলে দিয়েছেন মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ ও ইমরুল কায়েস। তাদের কথাও বললেন। ৮৭ রানে ৫ উইকেট হারিয়ে ফেলা বাংলাদেশ যে ম্যাচে ফিরেছে ১২৮ রানের সেই জুটিতেই। মাশরাফি বলেছেন, ‌‘সবার আগে মাহমুদউল্লাহ আর ইমরুল কায়েসকে কৃতিত্ব দিতে হবে।’

বোলাররা শেষ পর্যন্ত ম্যাচ জিতিয়েছে। ম্যাচের গুরুত্বপূর্ণ সময়ে দুটি উইকেট তুলে নেওয়া মাশরাফির ভূমিকাও আছে।

মোস্তাফিজ সম্পর্কে মাশরাফি বলেন, মোস্তাফিজের পেশিতে হালকা টান পড়ছিল। আমরা চাইছিলাম ওকে দিয়ে ১০ ওভার করাতে, কিন্তু পারিনি। ওর ঊরুতে হালকা টান ছিল বলে ইয়র্কারও দিতে পারছিল না।’

পাকিস্তানের সাথে শেষ ম্যাচটা হয়ে উঠল অঘোষিত সেমিফাইনাল। সে ম্যাচ সম্পর্কে বাংলাদেশ অধিনায়কের উত্তর, ‌‘আশা করি, সেমিফাইনাল হয়ে ওঠা ম্যাচটিতেও আমরা ফাটিয়ে দেব।’