যবিপ্রবিতে সরস্বতী পূজা উদযাপন

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ৩:৫৯ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ১০, ২০১৯ | আপডেট: ৪:০০:অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ১০, ২০১৯
ছবি : টিবিটি

নাজমুল হোসাইন,যবপ্রিবি প্রতিনিধি:  বাণী বন্দনা, পূজা অর্চনা, প্রসাদ বিতরণ এবং অসুস্থ একজন মেয়েকে আর্থিক সহায়তার মধ্য দিয়ে যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (যবিপ্রবি) বিদ্যার দেবী সরস্বতী পূজা উদযাপন করা হয়েছে।

আজ রোববার সকাল থেকে যবিপ্রবির সনাতন পরিবারের আয়োজনে বিশ্ব বিদ্যালয় ক্যাম্পাসে সরস্বতী পূজা বন্দনায় অংশ নেন বিশ্ববিদ্যালয়ের সনাতন ধর্মাবলম্বী শিক্ষক-শিক্ষার্থীবৃন্দ। সরস্বতী পূজা উদযাপন অনুষ্ঠানের প্রধান পৃষ্ঠপোষক হিসেবে ছিলেন বিশ^বিদ্যালয়ের মাননীয় উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোঃ আনোয়ার হোসেন।

সরস্বতীর পূজা উপলক্ষে বিশ্ববিদ্যালয়ের ডা. এম আর খান মেডিকেল সেন্টারের সামনে প্যান্ডেল করে পূজা অর্চনার ব্যবস্থা করা হয়। সরস্বতী পূজা উপলক্ষে ক্যাম্পাসের প্রধান ফটক থেকে শুরু করে পূজা প্রাঙ্গণ পর্যন্ত বর্ণিল আলোকসজ্জায় সজ্জিত করা হয়। আজ রোববার সকাল সাতটার দিকে প্যান্ডেল স্থলে সরস্বতীর প্রতিমা স্থাপন করা হয়। সকাল আটটায় শুরু হয় পূজা অর্চনা। সকাল সাড়ে নয়টা থেকে শুরু হয় পুষ্পাঞ্জলি। পুষ্পাঞ্জলি শেষে ভক্তদের মাঝে বিতরণ করা হয় প্রসাদ। ধীরে ধীরে সকল মত-পথের লোকজনের সমাগমে পূজা প্রাঙ্গণ পরিণত হয় সম্প্রীতির মিলন মেলায়। সরস্বতী পূজা উপলক্ষে আর্ত মানবতার সেবায় সাড়া দিয়ে ক্যানসারে আক্রান্ত চৌগাছার ইছাপুরের একটি মেয়েকে যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের পক্ষ থেকে আর্থিক সহায়তাও প্রদান করা হয়।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন যবিপ্রবির সনতান পরিবারের সভাপতি ও এগ্রো প্রডাক্ট প্রসেসিং টেকনোলজি বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. মৃত্যুঞ্জয় বিশ্বাস, যবিপ্রবি শিক্ষক সমিতির সভাপতি ড. মো: ইকবাল কবীর জাহিদ ও সাধারণ সম্পাদক ড. মো: নাজমুল হাসান, পরিচালক (পরিকল্পনা, উন্নয়ন ও পূর্ত) পরিতোষ কুমার বিশ্বাস, সনতান পরিবারের সাধারণ সম্পাদক ও রসায়ন বিভাগের চেয়ারম্যান ড. সুমন চন্দ্র মহন্ত, যবিপ্রবির সিস্টেম এনালিস্ট সাগর চক্রবর্তী, কেমিকৌশল বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ড. সুজন চৌধুরী, গণিত বিভাগের সহকারী অধ্যাপক সমীরণ মন্ডল, ছাত্র পরামর্শ ও নির্দেশনা দপ্তরের সহকারী পরিচালক এস এম সামিউল আলম প্রমুখ। বিকেলে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণে ধর্মীয় ভক্তিমূলক সংগীত পরিবেশনের ব্যবস্থা করা হয়।