যশোরে করোনার মধ্যেও শিক্ষার্থীদের কোচিং করতে বাধ্য করার অভিযোগ

শহিদ জয় শহিদ জয়

যশোর প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ৯:০৪ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ১৮, ২০২১ | আপডেট: ৯:০৪:অপরাহ্ণ, এপ্রিল ১৮, ২০২১

যশোরের বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের গণিত, ইংরেজি, বিজ্ঞান ও বাণিজ্য বিভাগের শিক্ষকরা শিক্ষার্থীদের বাধ্য করছে কোচিং এ আসতে। করোনার ভয়াবহের মধ্যে অভিভাবকরা শংকিত হয়ে পড়লেও শিক্ষার্থীদের ঘরে রাখতে পারছে না। অভিভাবকরা প্রশাসনের উর্ধতন কর্তৃপক্ষের নিকট হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

অভিযোগে জানা গেছে, যশোর সদর উপজেলার জঙ্গলবাধাল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক (গণিত) তুহিন আখতার সিঙ্গিয়া রেলস্টেশনের বেলতলা এলাকায় সরকারি জমিতে ঘর করে কোচিং সেন্টারে চালান। সেখানে ওই স্কুলের ছাত্রছাত্রীদের পরীক্ষায় ফেল করানোর হুমকি দিয়ে শিক্ষার্থীদের বাধ্য করছেন কোচিং করছেন। সুমনা নামে এক শিক্ষার্থী জানান, তুহিন স্যার করোনার আগে ক্লাসে তার কাছে কোচিং করার চাপ দিতেন। আর করোনার সময় এলে তিনি বলেন, সারাজীবনতো করোনা থাকবে না। করোনা চলে গেলে তখন দেখা যাবে।

একই ধরণের হুমকি দেন একই স্কুলের অপর সহকারী শিক্ষক (গণিত) বিল্লাল হোসেন। তিনি বানিয়ারগাতি রেললাইনের পাশে তার বাড়িতে কোচিং করান। শিক্ষার্থীরা এই দুই শিক্ষককের বিরুদ্ধে কোচিং করার বাধ্য করছে বলে জানিয়েছেন।

রহমান এক অভিভাবক জানান, তুহিন ও বিল্লাল স্যারের বিরুদ্ধে স্কুলের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক রোজলিন আনোয়ারকে জানানো হয়েছে। তিনি উপজেলা শিক্ষা অফিসারকে বিষয়টি জানিয়েছেন। প্রশাসন আইনগত ব্যবস্থা নেবে বলে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক তাদেরকে জানিয়েছেন।

এ বিষয়ে সহকারী শিক্ষক তুহিন আখতার ও বিল্লাল হোসেন জানান, তাদের বিরুদ্ধে উত্থাপিত অভিযোগ মিথ্যা। করোনার সময় কোন কোচিং করানো হয় না।