যশোর সদরে হাসপাতালে ভুল চিকিৎসায় নারীর মৃত্যুর অভিযোগ

শহিদ জয় শহিদ জয়

যশোর প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ৯:১৬ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ১৫, ২০২০ | আপডেট: ৯:১৬:অপরাহ্ণ, অক্টোবর ১৫, ২০২০

যশোর ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালের ডায়রিয়া ওয়ার্ডে আমিরোন নেছা (৬৫) নামে এক নারী রোগীর ভুল চিকিৎসায় মৃত্যুর অভিযোগ পাওয়া গেছে।

আজ বৃৃৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১১ টার দিকে হাসপাতালে রোগীর স্বজনরা এই অভিযোগ করেন৷

ওই নারী বেনাপোল থানা এলাকার গাজীপূর গ্রামের আশরাফ আলীর স্ত্রী৷

রোগীর স্বজন ও ছেলে মতিয়ার রহমান অভিযোগ করে বলেন, গত ১৩ অক্টোবর রাতে আমার মাকে অসুস্থ্য অবস্থায় হাসপাতালে নিয়ে আসি৷ হাসপাতালের জরুরী বিভাগ থেকে তাকে হাসপাতালের ডায়রিয়া ওয়ার্ডে ভর্তি করেন৷ সেখানে চিকিৎসাধিন অবস্থায় ছিলো৷ সেখানে বুধবার দিবাগত রাতে শারমিন নামে এক নার্স ডিউটিতে ছিলো৷ আমার মার অবস্থা খারাপ হওয়ায় আমি ওই নার্সকে ডাকলে তিন আমার সাথে রাতে খারাপ ব্যাবহার করেন৷ বলেন তুই যদি আমার আর একবার ডাকিস তাহলে তোকে ওয়ার্ড থেকে বাহির করে দিবো৷ নিহতের ছেলে আরো অভিযোগ করেন আমার মাকে রাতে পেসারের ওষধ দিয়েছে ওই ওষধ সকালেও দিয়েছে যার কারনে আমার মৃৃৃত্যু হয়েছে৷

নিহতের ছেলে মতিয়ার রহমানে নিকট এই প্রতিবেদক জানতে চাইলো আপনি কিভাবে বুঝলেন আপনার মা ভূল চিকিৎসায় মারা গেছে৷ তিনি বলেন সকালে ডিউটিরত এক সেবিকা আমাকে বলেছে আমার মাকে পেসারের ওষধ দুইবার রাতে ও সকালে খাওয়ানোর কারনে তার মৃৃৃৃত্যু হয়েছে৷

এ ব্যাপারে হাসপাতালের মেডিসিন বিভাগের চিকিৎসক ওবাইদুল কাদির উজ্জাল বলেন, ওই রোগী গত দুই দিন আগে ডায়রিয়া ও শ্বাস কষ্ট নিয়ে ভর্তি হয়েছিলো৷ পরে পরীক্ষা করে জানা গেলো তার কিডনির সমস্যা আছে৷ তার করোনা পরীক্ষা করা সময় পাওয়া যায়নি৷ পেসারের কোন সমস্যা ছিলো না৷ যার কারনে পেসারের কোন ওষধ প্রেসক্রিপশন করা হয়নি৷ সেহেতু পেসারের কোন ওষধ খাওয়ানোর কথা নয়৷ হয়তো ইলোকট্রোরাইড ইনবেলেন্স হওয়ার কারনে তার মৃৃৃত্যু হতে পারে৷

কোতয়ালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি) মোহম্মাদ মনিরুজ্জামান বলেন, ভূল চিকিৎসায় মারাগেছে এই রকম কেউ কোন লিখিত বা মৌখিক অভিযোগ করেনি৷ অভিযোগ পেলে তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যাবস্থা নেওয়া হবে৷