রাশিয়ায় স্কলারশীপে উচ্চশিক্ষার সুযোগ

প্রকাশিত: ১০:৪১ পূর্বাহ্ণ, জানুয়ারি ৩১, ২০১৯ | আপডেট: ১০:৪১:পূর্বাহ্ণ, জানুয়ারি ৩১, ২০১৯

বাংলাদেশের যেসব শিক্ষার্থী স্বল্প খরচে বিশ্ব স্বীকৃত শিক্ষালাভ করতে চান, তারা নিশ্চিন্তে রাশিয়াকে বেছে নিতে পারেন। বাংলাদেশিদের জন্য ৬৫টি বৃত্তি দিচ্ছে রাশিয়া সরকার।

স্বাধীনতার পর থেকে বাংলাদেশ ও রাশিয়ার মধ্যকার মৈত্রী ও সহযোগিতা চুক্তি অনুযায়ী বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের উচ্চশিক্ষার্থে রাশিয়ায় যাওয়ার সুযোগ তৈরি হয়।

বাংলাদেশি শিক্ষার্থীরা অনার্স, মাস্টার্স ও পিএইচডি কোর্সে অংশ নিতে রাশিয়ায় যেতে পারেন। রাশিয়ার পড়াশোনার মান বিশ্বস্বীকৃত। দু’টি কারণে আপনি রাশিয়ায় উচ্চশিক্ষা গ্রহণ করতে পারেন।

ওখানে শিক্ষার ব্যয় কম এবং পড়তে যাওয়ার জন্য টোফেল বা আইইএলটিএস লাগে না। রাশিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়সহ বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে বিজ্ঞান, কলা ও বাণিজ্য শাখার সব বিষয়ে পড়া সম্ভব।

রাশিয়ায় ব্যাচেলর ডিগ্রির মেয়াদ চার বছর, মাস্টার্স ডিগ্রির মেয়াদ দুই বছর, স্পেশালাইজড ডিপ্লোমার মেয়াদ পাঁচ-ছয় বছর। তবে শুরুতে প্রত্যেক শিক্ষার্থীকে একবছর রুশ ভাষা শিখতে হবে।

কিছু বিষয়ে ইংরেজি ভাষায় পড়ারও সুযোগ রয়েছে। ভর্তির সময় ও শিক্ষাবর্ষ রাশিয়ার শিক্ষাবর্ষ শুরু হয় সেপ্টেম্বরে। শিক্ষাবর্ষ ২টি সেমিস্টারে বিভক্ত। প্রথমটি সেপ্টেম্বরে এবং দ্বিতীয়টি ফেব্রুয়ারিতে। সেমিস্টার বিরতিতে রয়েছে ছুটি। জানুয়ারিতে দুই সপ্তাহ ও জুলাই-আগস্টে ছয় সপ্তাহ।

এ সময় শিক্ষার্থীদের খন্ডকালীন চাকরির সুযোগও রয়েছে। শিক্ষা ব্যয় রাশিয়ায় পড়াশোনার খরচ অন্যান্য দেশের তুলনায় অনেক কম। বিজ্ঞান বিভাগের (স্নাতক) জন্য টিউশন ফি দুই হাজার থেকে সাত হাজার ডলার, কলা বিভাগের (স্নাতক) জন্য তিন হাজার দুইশত থেকে পাঁচ হাজার ডলার এবং বাণিজ্য বিভাগের (স্নাতক) জন্য চার হাজার থেকে ছয় হাজার ডলার।

রাজধানী মস্কোর বাইরে টিউশন ফি আরো কম। নিজ খরচে রাশিয়ার খ্যাতনামা

বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হওয়ার জন্য গড় নম্বর থাকতে হবে ৬০ থেকে ৭০ শতাংশ। বিদেশি ছাত্রছাত্রীদের জন্য রয়েছে হোস্টেল সুবিধা, যার জন্য ব্যয় হবে বছরে চারশত থেকে আড়াই হাজার ডলার। ভিসা ও ভর্তির তথ্য ভর্তির বিষয়ে প্রতি বছর ফ্রি সেমিনার অনুষ্ঠিত হয় ফেব্রুয়ারি থেকে জুলাই প্রতি মাসের শেষ কর্মদিবসে বিকেল চারটায় ঢাকার রুশ বিজ্ঞান ও সংস্কৃতি কেন্দ্রে। বৃত্তির ব্যবস্থা রুশ সরকার প্রতিবছর বাংলাদেশি ছাত্রছাত্রীদের জন্য কিছু শিক্ষাবৃত্তি দিয়ে থাকে, যা সংবাদপত্রের মাধ্যমে জানানো হয়।

৮০ শতাংশ নম্বর পেলে বৃত্তির জন্য আবেদন করা যায়। ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষে রাশিয়া সরকার বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের জন্য ব্যাচেলর ও মাস্টার্সসহ ৬৫টি বৃত্তি ঘোষণা করেছে। যা রুশ বিজ্ঞান ও সংস্কৃতি কেন্দ্রের মাধ্যমে আবেদন করা যাবে। আবেদন করার সময়সীমা ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৯।

এছাড়া চলতি বছরের বৃত্তির বিষয়ে জানতে রুশ বিজ্ঞান ও সংস্কৃতি কেন্দ্রের রাশিয়ায় উচ্চশিক্ষা বিষয়ক সেমিনারে অংশ নিতে পারেন। যোগাযোগ করতে পারেন শিক্ষা বিভাগ, রুশ বিজ্ঞান ও সংস্কৃতি কেন্দ্র, ৪২ ভাষা সৈনিক এম এ মতিন সড়ক (সড়ক-৭) ধানমন্ডি আ/এ, ঢাকা।