রাষ্ট্রীয়ভাবে ঘৃণা প্রকাশ করতে ঢাকায় নির্মিত হবে ‘ঘৃণা স্তম্ভ’

প্রকাশিত: ৮:০৩ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ৭, ২০১৯ | আপডেট: ৮:০৪:অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ৭, ২০১৯
বাংলাদেশের স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে ঢাকায় একটি চিত্র প্রদর্শনী এবং মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক (ইনসেটে)।

বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় যারা প্রত্যক্ষভাবে বাংলাদেশ সৃষ্টির বিরোধিতা করেছে এবং যারা হত্যা, ধর্ষণ, লুঠপাটসহ নানা ধরনের অপরাধে সাথে জড়িত ছিল তাদের প্রতি ঘৃণা প্রকাশের জন্য একটি ‘ঘৃণা-স্তম্ভ’ নির্মাণের পরিকল্পনা সরকারের রয়েছে।

আজ সংসদে সরকারি দলের সংসদ সদস্য সেলিম আলতাফ জর্জের এক প্রশ্নের জবাবে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক সংসদকে এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, ঘৃণা স্তম্ভ স্থাপন প্রকল্পের জায়গা নির্বাচনের কাজ চলছে।

এক সম্পূরক প্রশ্নের জবাবে তিনি আরও বলেন, দেশের প্রত্যেক এলাকায় সেখানকার বীর মুক্তিযোদ্ধাদের নামের তালিকা টানিয়ে রাখার ব্যবস্থা করা হবে। পাশাপাশি অসচ্ছল মুক্তিযোদ্ধাদের আবাসন নির্মাণে চলতি অর্থবছরে ২ হাজার ২শ’ কোটি টাকা বরাদ্দ রয়েছে। অচিরেই এ প্রকল্প একনেকে উত্থাপন করা হবে। মুক্তিযোদ্ধাদের এ সব বাড়ির নাম বীর নিবাস রাখা হয়েছে।

জাতীয় পার্টির মুজিবুল হক চুন্নুর অপর এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, আগামী অর্থবছরে মুক্তিযোদ্ধা ভাতা বৃদ্ধির পরিকল্পনা সরকারের রয়েছে। বর্তমানে ১ লাখ ৮২ হাজার মুক্তিযোদ্ধা ভাতা পাচ্ছেন।

তিনি আরও বলেন, সরকার তৃণমূল পর্যায়ে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা প্রতিষ্ঠায় কাজ করে যাচ্ছে। তিনি মুক্তিযোদ্ধাদের পৃথক পরিচয় পত্র প্রদান করা হবে বলেও উল্লেখ করেন।

মন্ত্রী জানান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনানুযায়ী আগামী মাসের মধ্যে মুক্তিযোদ্ধাদের তালিকা প্রকাশ করা হবে।