রিয়ালকে হারিয়ে ফাইনালে বার্সার মুখোমুখি বিলবাও

টিবিটি টিবিটি

স্পোর্টস ডেস্ক

প্রকাশিত: ৪:৫৮ পূর্বাহ্ণ, জানুয়ারি ১৫, ২০২১ | আপডেট: ৪:৫৮:পূর্বাহ্ণ, জানুয়ারি ১৫, ২০২১

স্প্যানিশ সুপারকাপে সর্বশক্তি নিয়ে মাঠে নেমেও শেষরক্ষা হলো না জিদানের রিয়াল মাদ্রিদের। প্রথমার্ধে নিজেদের ভুলে পিছিয়ে পড়ে দ্বিতীয়ার্ধের আগে খেয়ে বসে দুই গোল। তবে দ্বিতীয়ার্ধে ঘুরে দাাঁড়ালেও শেষ হাসি হাসতে পারেনি রামোস এন্ড কোং।

ফলে ২-১ গোলের ব্যবধানে লা লিগা চ্যাম্পিয়নদের হারিয়ে স্প্যানিশ সুপার কাপের ফাইনালে উঠেছে আথলেটিক বিলবাও। সেভিয়ার মাঠে আগামী রোববার শিরোপা লড়াইয়ে তাদের প্রতিপক্ষ বার্সেলোনা।

ম্যাচের দুই-তৃতীয়াংশের বেশি সময় বল দখলে রাখা রিয়ালের প্রথমার্ধের আক্রমণে ছিল না তেমন ধার। শেষ ৩০ মিনিটে তাদেরকে কিছুটা চেনা রূপে দেখা গেলেও প্রতিপক্ষের জমাট রক্ষণ ভাঙতে অতটা কার্যকর হতে পারেননি ভিনিসিউস-বেনজেমারা।

রক্ষণ কিংবা আক্রমণ-দলের যখন যেখানে প্রয়োজন, মৌসুমের শুরু থেকে আলো ছড়ানো লুকাস ভাসকেস ছিলেন বিবর্ণ। তার ভুলেই প্রথম গোল হজম করে রিয়াল। দ্বিতীয় গোলেও দায় এড়াতে পারবেন না এই স্প্যানিয়ার্ড।

ভাসকেসের ওই ভুলেই অষ্টাদশ মিনিটে পিছিয়ে পড়ে গতবারের চ্যাম্পিয়নরা। ডি-বক্সের ডান দিকে নিরীহ বল প্রতিপক্ষের পায়ে তুলে দেন তিনি। উপহার পেয়ে দানি গার্সিয়া দারুণ রক্ষণচেরা পাস বাড়ান ডি-বক্সে। ঠাণ্ডা মাথায় বল ধরে কোনাকুনি শটে আগুয়ান গোলরক্ষককে ফাঁকি দেন রাউল গার্সিয়া।

৩৮তম মিনিটে সফল স্পট কিকে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন গার্সিয়া। ইনিগো মার্তিনেসকে রাইট-ব্যাক ভাসকেস পেছন থেকে টেনে ফেলে দিলে পেনাল্টির বাঁশি বাজান রেফারি।

দ্বিতীয়ার্ধের নবম মিনিটে অল্পের জন্য বেঁচে যায় রিয়াল; ইকের মুনিয়াইনের হেড পোস্টের বাইরে দিয়ে যায়। সাত মিনিটের ব্যবধানে দুবার ভাগ্যের ফেরে গোল না পাওয়ার হতাশা যোগ হয় মাদ্রিদ শিবিরে; ৬১তম মিনিটে মার্কো আসেনসিওর শট পোস্টে লাগার পর স্প্যানিশ এই ফরোয়ার্ডেরই দূরপাল্লার শট ক্রসবারে বাধা পায়।

অবশেষে ৭৩তম মিনিটে জালের দেখা পায় রিয়াল। ডান দিক থেকে সতীর্থের হেডে বাড়ানো বল প্রতিপক্ষের পা ছুঁয়ে গোলমুখে পেয়ে টোকায় জালে জড়ান বেনজেমা। অফসাইডের পতাকা তুলেছিলেন লাইন্সম্যান, তবে ভিএআরে দেখে গোলের বাঁশি বাজান রেফারি।

পাল্টা আক্রমণে ৮০তম মিনিটে ফের ব্যবধান বাড়িয়ে নিতে পারতো বিলবাও। তবে আসিয়েরের শট এগিয়ে এসে হাত বাড়িয়ে ঠেকিয়ে দেন গোলরক্ষক থিবো কোর্তোয়া।

বাকি সময়ে একের পর এক আক্রমণে প্রতিপক্ষকে কোণঠাসা করে ফেলে রিয়াল। ৮৮তম মিনিটে সের্হিও রামোসের হেড অল্পের জন্য হয় লক্ষ্যভ্রষ্ট। আর যোগ করা সময়ের শেষ দিকে ডি-বক্সে হেড করতে গিয়ে রিয়াল অধিনায়ক পড়ে গেলে পেনাল্টির আবেদন ওঠে। ভিএআর প্রযুক্তিতে নিশ্চিত হতে বেশ খানিকটা সময় লাগে, বাড়তে থাকে উত্তেজনা। রিয়ালের আশা অবশ্য পূরণ হয়নি, উল্লাসে ফেটে পড়ে বিলবাও।