লোকেশন হিস্টোরি বন্ধ রাখলেও মানুষদের অনুসরণ করে গুগল

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ৪:২৩ অপরাহ্ণ, আগস্ট ১৬, ২০১৮ | আপডেট: ৪:২৩:অপরাহ্ণ, আগস্ট ১৬, ২০১৮

টিবিটি বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিঃস্মার্টফোনের জিপিএস বা লোকেশন হিস্টোরি বন্ধ রাখলেও ডিভাইসটির মাধ্যমে মানুষদের অনুসরণ করে গুগল। সাধারণ মানুষের চোখে ধূলা দিয়েই তাদের গতিবিধি অনুসরণ করাসহ বিভিন্ন তথ্য সংগ্রহ ও সংরক্ষণ করে যুক্তরাষ্ট্রের সিলিকন ভ্যালির এই টেক জায়ান্ট প্রতিষ্ঠান। বার্তা সংস্থা এপি’র এক গবেষণামূলক প্রতিবেদনে উঠে আসে এমন তথ্য।

এপি বলছে, স্মার্টফোনের যেসব ব্যবহারকারী অ্যান্ড্রয়েড বা অ্যাপলে গুগলের অ্যাপগুলো ব্যবহার করেন অথবা গুগল ম্যাপ বা কোন কিছু খোঁজার জন্য গুগল ব্যবহার করেন তাদেরকে অনুসরণ করে গুগল।

ব্যবহারকারী যদি তার জিপিএস (গ্লোবাল পজিশনিং সিস্টেম) অথবা লোকেশন হিস্টোরি বন্ধ করেও রাখেন তবুও গুগলের অনুসরণ এড়ানো যায় না। আর এর ফলে বিশ্বের অন্তত দুই বিলিয়ন মানুষকে অনুসরণ করছে গুগল। সংগ্রহ করছে তাদের বাসাবাড়ির ঠিকানাসহ নানান তথ্য। সংরক্ষণেও থাকছে সেগুলো।

এপি’র সাথে গবেষণায় অংশ নেয় যুক্তরাষ্ট্রের প্রিন্সটন বিশ্ববিদ্যালয়ের একদল গবেষক। গবেষণার জন্য দলের এক সদস্য গুনেস একারকে তার মোবাইলের জিপিএস এবং লোকেশন হিস্টোরি বন্ধ করে বেশ কিছু জায়গায় ঘুরে বেড়াতে বলা হয়। এ

সময় গুনেস নিউ ইয়র্কের দ্য হাই লাইন পার্ক, চেলসি মার্কেট, হেলস কিচেন, সেন্ট্রাল পার্ক এবং হারলেম জায়গাগুলোতে ঘুরে বেড়ান। এসবের মধ্যে গিয়েছিলেন নিজের বাসাতেও। পরবর্তীতে দেখা যায়, গুনেস একার যে স্থানগুলোতে গিয়েছিলেন তার সকল তথ্যই সংরক্ষিত হয়েছে গুগলে। এমনকি সেগুলোর মধ্যে গুনেসের বাসার ঠিকানাও আছে।

গবেষণার ফলাফলে বলা হয়, জিপিএস এবং লোকেশন হিস্টোরি বন্ধ রাখার পাশাপাশি গুগলের নজর এড়াতে বন্ধ রাখতে হবে আরও একটি অপশন। সেটিংস থেকে ‘ওয়েব অ্যান্ড অ্যাপ অ্যাকটিভিটি’ নামের আরেকটি অপশন বন্ধ রাখতে হবে।

তবে মজার বিষয় হলো যে, এই অপশনটির মাধ্যমে যে, ব্যবহারকারীর অবস্থান গুগল জেনে নেয় সে বিষয়ে পরিষ্কার করে কোন নির্দেশনা খুব একটা পাওয়া যায় না স্মার্টফোনে। এমনকি এই অপশনটি যে, ব্যবহারকারী অবস্থান সনাক্ত করতে সক্ষম সেই বিষয়েও ব্যবহারকারীকে সতর্ক করে না গুগল।

নিরাপত্তা গবেষক গ্রাহাম ক্লুলে বলেন, “আপনি যদি জিপিএস আর লোকেশন হিস্টোরি বন্ধ রেখে মনে করেন যে, গুগল আপনার অবস্থান সনাক্ত করছে না এবং আপনার বিষয়ে কোন তথ্য সংগ্রহ করছে না তাহলে ভুল ভাবছেন। মজার বিষয় হচ্ছে, ওয়েব অ্যান্ড অ্যাপ অ্যাকটিভিটি অপশনটি বন্ধ না করলে গুগল ঐ তথগুলো পেতেই থাকবে”।

তবে এ বিষয়ে নিজেদের দায় নেই বলে দাবি করে গুগল। এপি’কে প্রতিষ্ঠানটির পক্ষ থেকে বলা হয় যে, “ব্যবহারকারীর অভিজ্ঞতাকে বাড়ানোর জন্য গুগল কয়েকটি উপায়ে ব্যবহারকারীর অবস্থান সম্পর্কিত তথ্য সংগ্রহ করে। তবে সেগুলো কীভাবে নিয়ন্ত্রণ করতে হবে বা বন্ধ করতে হবে তা ব্যবহারকারীকে আমরা ভালোভাবেই অবহিত করি”।

এদিকে এপি’র এই গবেষণা প্রতিবেদনের পর বিশ্বব্যাপী নিন্দার মুখে পরতে হয়েছে গুগলকে। এপি’র প্রমাণাদি মার্কিন সিনেটের ডেমোক্রেটিক সিনেটর মার্ক ওয়ার্নারের সামনে উপস্থাপন করা হলে তিনি বলেন, “প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানগুলো এভাবেই তার গ্রাহকদের সাথে প্রতারণা করে যা তারা মোটেও আশা করে না”। আর ডেমোক্রেটিক কংগ্রেসম্যান ফ্র্যাঙ্ক প্যালোন বলেন যে, “এমন কর্মকান্ড গ্রাহকের গোপনীয়তা এবং তথ্য নিরাপত্তা সংক্রান্ত আইনের পরিপন্থী”।

সূত্রঃ বিবিসি