শিকল দিয়ে বেঁধে বৃদ্ধকে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতন!

এস. এম. আকাশ এস. এম. আকাশ

ব্যুরো চিফ,চট্টগ্রাম

প্রকাশিত: ৮:৫৫ অপরাহ্ণ, জুন ৩, ২০২০ | আপডেট: ৮:৫৬:অপরাহ্ণ, জুন ৩, ২০২০
ছবি: টিবিটি

চট্টগ্রামের লোহাগাড়ায় শিকল দিয়ে হাত পা বেঁধে নুরুন্নবী (৬৫) নামের এক বৃদ্ধকে নির্যাতনের অভিযোগ পাওয়া গেছে। উপজেলার পুটিবিলা ইউনিয়নের পূর্ব তাঁতী পাড়ায় (উত্তর পাড়া) এ ঘটনা ঘটে।

সরেজমিনে গিয়ে জানা গেছে, নুরুনবী এক সময় সৌদিয়া প্রবাসী ছিলেন। পারিবারিকভাবে বনিবনা না হওয়ায় স্ত্রী ছেহের বেগমের সাথে ছাড়াছাড়ি হয়ে যায়। তালাকপ্রাপ্ত স্ত্রী গোল ছেহের বেগম, মেয়ে নাছিমা ও তার বর ফেরদৌস ওরফে খোকন এক সপ্তাহ ধরে নুরুনবীকে শিকল দিয়ে হাত, পা বেঁধে ঘরে আটকে রাখে। এমনকি প্রকৃতির ডাকে সাড়া দেওয়ার প্রয়োজন হলেও ঘর থেকে বের হতে দেয়নি।

মা-মেয়ে, মেয়ের জামাই মিলে বাড়ি ভিটে তাদের নামে লিখে দিতে চাপ দেয়। রাজি না হলে বেধড়ক মারধর করে। কিছুদিন পরপর এভাবে তাকে শিকল দিয়ে হাত পা বেঁধে মারধর করে এবং স্থানীয়ভাবে বেশ কয়েকবার শালিস বিচার করলেও কিছুদিন পর নুরুনবীর উপর আবার নির্যাতন চলতে থাকে।

তার প্রতিবেশী শিক্ষানবিশ আইনজীবি আবদুল গফুর তালুকদার জানান, নুরুনবী অসহায় মানুষ। তার বাড়ি ভিটে মেয়ের জামাই খোকন নিজেদের নামে লিখে দিতে চাপ দেয় অসহায় নুরুনবীকে। রাজি না হওয়ায় কিছুদিন পরপর এভাবে নির্যাতন চালায় বলে জানান তিনি।

নির্যাতিত বৃদ্ধ নুরুনবী জানান, তারা বাড়ি ভিটে তাদের নামে লিখে দেওয়ার জন্য তাকে ৩/৪ মাস ধরে নির্যাতন করছে। আমি বাঁচতে চাই। প্রশাসনের সহযোগিতা চাই।
স্থানীয় ইউপি সদস্য জনাব গিয়াস উদ্দীন বৃদ্ধকে নির্যাতনের সত্যতা স্বীকার করে “দি বাংলাদেশ টুডে” কে জানান, মঙ্গলবার (২ জুন) রাতে স্থানীয়ভাবে শালিস হয়েছে। নুরুনবীকে নির্যাতনের কারণে মেয়ের জামাই খোকনসহ তাদেরকে ৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

এব্যাপারে বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশন লোহাগাড়া শাখার সভাপতি অধ্যাপক হামিদুর রহমান প্রতিবেদককে জানান, মধ্যযুগীয় কায়দায় একজন বয়োবৃদ্ধ প্রবীণ মানুষকে এ ধরণের নির্যাতন দুঃখজনক ও অমানবিক। এ ঘটনার সাথে জড়িতদের অবিলম্বে আইনের আওতায় আনার জন্য প্রশাসনের নিকট জোর দাবী জানান তিনি।

এব্যাপারে লোহাগাড়া থানার ওসি (তদন্ত) রাশেদুল ইসলাম “দি বাংলাদেশ টুডে” কে জানান, এব্যাপারে ভুক্তভোগীর কোন অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে তদন্ত পূর্বক আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে তিনি জানান।