শুধু ঢাকাতেই করোনা আক্রান্ত সাড়ে ৭ লাখ: দ্য ইকোনমিস্ট

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ৮:৫০ অপরাহ্ণ, জুন ৬, ২০২০ | আপডেট: ৮:৫০:অপরাহ্ণ, জুন ৬, ২০২০

বাংলাদেশে চেপে বসা করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ছাড়িয়েছে ৬৩ হাজার। শুধু রাজধানী ঢাকাতেই আক্রান্ত প্রায় ২০ হাজার। তবে সরকারি এই পরিসংখ্যানের সঙ্গে একমত নন আন্তর্জাতিক উদারাময় গবেষণা কেন্দ্র, বাংলাদেশে (আইসিডিডিআর,বি) কর্মকর্তা জন ক্লেমেনস।

ব্রিটেনের প্রভাবশালী সাময়িকী দ্য ইকোনমিস্টকে তিনি জানিয়েছেন, করোনা ভাইরাসে শুধু ঢাকাতেই এখন পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছেন সাড়ে ৭ লাখের বেশি জন।

বাংলাদেশ ছাড়াও ভারত ও পাকিস্তানে আক্রান্তের চেয়ে করোনা রোগীর সংখ্যা কম দেখানো হচ্ছে। কম সংখ্যক পরীক্ষার কারণে বাংলাদেশ, ভারত ও পাকিস্তানে সরকারি পরিসংখ্যানের চেয়ে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের প্রকৃত সংখ্যা অনেক ভয়াবহ হতে পারে বলে প্রতিবেদনে দাবি করা হয়েছে।

‘বাংলাদেশ, ভারত এবং পাকিস্তানে দ্রুত সংক্রমণ বাড়ছে’ শিরোনামে ইকোনমিস্টের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, এসব অঞ্চলে গত সপ্তাহে জারি করা লকডাউন তুলে নেওয়া শুরু হয়। এতে বিপর্যস্ত অর্থনীতিতে স্বস্তি ফিরবে এমন আশায়। কিন্তু এতে করে করোনায় সংক্রমণ আবারো দ্রুত বাড়বে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বাংলাদেশ, ভারত ও পাকিস্তানে এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত সাড়ে ৩ লাখের বেশি এবং প্রায় ৯ হাজার মানুষের মৃত্যুর পরিসংখ্যান অপেক্ষাকৃত পরিমিত দেখাচ্ছে। তবে অনেকে আক্রান্ত হলেও গণনার বাইরে।

বর্তমানে প্রতি দুই সপ্তাহে আক্রান্তের সংখ্যা দ্বিগুণ হারে বাড়ছে। কিছু মডেলের পক্ষ থেকে সম্ভাব্য বলা হয়েছে, এই অঞ্চলে আগামী জুলাইয়ের শেষের দিকে করোনা সর্বোচ্চ চূড়ায় পৌঁছাবে। সেসময় সরকারি হিসেবে আক্রান্তের সংখ্যা ৫০ লাখ এবং মৃত্যু দেড় লাখ হতে পারে।

কম হারে করোনা টেস্ট করার অর্থ প্রকৃত পরিসংখ্যান আরও ভয়াবহ হতে পারে। পাকিস্তানে এক বিদেশি স্বাস্থ্য কর্মকর্তা বলেন, সরকারের দেওয়া করোনায় মৃত্যুর পরিসংখ্যান বাস্তবে দুই থেকে তিন গুণ বেশি।

এছাড়া পাকিস্তানের চিকিৎসকদের ভাষ্য, দেশটির সরকার হাসপাতালগুলো পর্যাপ্তসংখ্যক বেড আছে বলে যে দাবি করছেন তা ভিত্তিহীন।

এদিকে মুম্বাইয়ের এক নার্স বলেন, এপ্রিলের শুরু থেকে কোন ধরনের ছুটি ছাড়া ১২ ঘণ্টার ডিউটি পালন করে যাচ্ছেন। মে মাসে তিনিও করোনায় আক্রান্ত হন।

ইতোমধ্যে দেশটির রাজধানীর কমপক্ষে ৬০০ জন স্বাস্থ্যকর্মী করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। এদের ৩২৯ জনই দেশটির শীর্ষ মেডিক্যাল গবেষণা প্রতিষ্ঠান অল ইন্ডিয়া ইনস্টিটিউট অব মেডিক্যাল সায়েন্সেসের।

এতে আরও বলা হয়েছে, ‘দক্ষিণ এশিয়ায় রোগের বিস্তার মোটামুটি শ্লথ করতে পেরেছে সংশ্লিষ্ট দেশগুলো কিন্তু থামাতে পারেনি। লকডাউন প্রত্যাহারের ফলে আবারও সংক্রমণ দ্রুত ছড়াতে পারে।’

ঢাকার বেসরকারি হাসপাতালের এক চিকিৎসক ইকোনমিস্টকে বলেন, একটু বেশি হাঁচি হলেই তারা (ধনীরা) চিকিৎসা নিতে থাইল্যান্ড, সিঙ্গাপুর অথবা ভারতে যেতেন। কিন্তু বর্তমানে করোনার চিকিৎসা বা অন্যান্য অসুস্থতা নিয়েও দেশের অভিজাত হাসপাতালগুলোতেও ভর্তি হওয়া প্রায় অসম্ভব।

ইকোনোমিস্টের প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, মর্গ, কবর স্থান এবং শ্মশানঘাটে জায়গা খুঁজে পাওয়াও কঠিন হয়ে দাঁড়িয়েছে। নারায়ণগঞ্জের এক পৌরসভার কবরস্থানে অন্য স্বাভাবিক সময়ে ২৫০ জনের মতো মানুষকে দাফন করা হয়। কিন্তু গত মাসে ওই কবরস্থানে ৫৭৫ জনকে দাফন করা হয়। তবে সরকারি হিসেবে এদের মধ্যে কেবল ৭০ জন করোনা আক্রান্ত ছিলেন বলে হিসেবে ধরা হয়।

বাংলাদেশের চট্টগ্রামে কবরস্থানে খননের কাজ করা ফরিদ উদ্দিন বলেন, তিনি ও তার দলের সদস্যরা গত চার দিন ধরে তেমন ঘুমের একটা সময় পাচ্ছেন না। তিনি বলেন, অনেক মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে। আমাদের জন্য দোয়া করবেন যেন আল্লাহ আমাদের মাফ করে দেন এবং এই রোগ তুলে নেন।