শোক দিবসে সম্মানী ভাতার টাকায় গণভোজ এক ইউপি সদস্যের

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ৪:২০ পূর্বাহ্ণ, আগস্ট ১৬, ২০১৮ | আপডেট: ৪:২০:পূর্বাহ্ণ, আগস্ট ১৬, ২০১৮

মো. এরশাদ মিয়া। কিশোরগঞ্জ জেলার পাকুন্দিয়া উপজেলার সুখিয়া ইউনিয়ন পরিষদের তিন নম্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য। তিনি কুষাকান্দা গ্রামের মো.গিয়াস উদ্দিনের ছেলে। এরশাদ মেম্বার বাহ্রামখানপাড়া জে.কে. উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সদস্যও।

নিতান্তই গরিব। কিন্তু মনের দিক থেকে বিশাল। এলাকার সকলের সুখে-দুখে তিনি সবসময় পাশে থাকেন। জনগণও তাকে খুব আপন ভাবে। বিপদে-আপদে জনগণ ও এরশাদ মেম্বার যেন একে অপরের। ছোটবেলা থেকেই বঙ্গবন্ধুর আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে আওয়ামী লীগের রাজনীতির সাথে যুক্ত।

বুধবার ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৩তম শাহাদাতবার্ষিকী উপলক্ষে তিনি মিলাদ মাহফিল ও গণভোজের আয়োজন করেন। তবে তার আয়োজনটি একটু ব্যতিক্রম। কেননা তার দেড় বছরে ইউপি সদস্য হিসেবে প্রাপ্ত সম্মানী ভাতার সব টাকা দিয়ে শোক দিবসে এ আয়োজন করেছেন।

কুষাকান্দা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে এরশাদ মেম্বারের এ গণভোজে স্থানীয় নারী-পুরুষ, শিশু, বৃদ্ধাসহ আশপাশের প্রায় দুই হাজার লোকজন অংশ নেন। সকাল ১০টা থেকে শুরু হয়ে বিকাল পাঁচটা পর্যন্ত চলে এ ভোজ।

এছাড়াও এরশাদ মেম্বারের এ অনুষ্ঠানে আসেন জেলা আওয়ামী লীগ ও উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরাও।

এরশাদ মেম্বার জানান, অর্থবিত্ত নাই তার। বঙ্গবন্ধু ও এলাকার মানুষের প্রতি ভালোবাসা থেকেই এ গণভোজের আয়োজন করেন। অধিকাংশ অনুষ্ঠানে শুধু পুরুষ লোকরাই অংশ নেয়। তাই তার এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গসহ সকল নারী পুরুষ বৃদ্ধা ও শিশুদের দাওয়াত করেন। সুষ্ঠুভাবে সবাইকে খাওয়াতে পেরে অনেক খুশি বলে জানান তিনি।

সুখিয়া ইউপি চেয়ারম্যান মো.আবদুল হামিদ টিটু বলেন, এরশাদ বিশাল মনের অধিকারী। গরিব মানুষ। কিন্তু ভাতার সব টাকা খরচ করে বঙ্গবন্ধুর শোক দিবস পালনে এলাকার নারী-পুরুষকে ভোজন করানো সত্যিই প্রশংসার দাবিদার।