সবার জন্য উন্মুক্ত বিশ্বের প্রথম ‘কুরআনিক পার্ক’

টিবিটি টিবিটি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

প্রকাশিত: ৮:১৯ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ২৯, ২০২০ | আপডেট: ৮:১৯:অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ২৯, ২০২০

মধ্যপ্রাচ্যের দেশ সংযুক্ত আরব আমিরাত। উন্নত জীবনমান ও সৌন্দর্যের জন্য দেশটি বিখ্যাত। দেশটির প্রধান ও বিশ্বব্যাপী পরিচিত নাম দুবাই। দুবাই প্রদেশের আল-খাওয়ানিজ অঞ্চলে ৬৪ হেক্টর জমির ওপর গড়ে তোলা হয়েছে কুরআনিক গার্ডেন ‘হলি কুরআন পার্ক’। দীর্ঘ প্রতীক্ষার পর গত ২৯ মার্চ এ কুরআনিক পার্কের উদ্বোধন করা হয়।

তবে আকর্ষণীয় এই পার্কে প্রবেশে কোনও ধরণের ফী দিতে হবে না কাউকেই। এমনটাই জানিয়েছে পার্ক কর্তৃপক্ষ। দেশটির সংবাদ মাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে- আল-খাওয়ানিজ অঞ্চলে ৬৪ হেক্টর জমির ওপর কুরআনে বর্ণিত বিভিন্ন ঘটনা ও বিষয়ের আদলে গড়ে তোলা হয়েছে পার্কটি।

ইসলাম ধর্ম ও কুরআন সম্পর্কে মানুষকে প্রকৃত ধারণা দিতে এই অভিনব পন্থা অবলম্বন করা হয়েছে বলে প্রতিবেদনে বলা হয়। ইসলাম ছাড়াও অন্যান্য ধর্মের অনুসারী ও সংস্কৃতির মানুষের কাছে এই পবিত্র কিতাবের সৌন্দর্য্য ও অলৌকিকতা উপস্থাপনের জন্যই এই ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে তারা।

দুবাইভিত্তিক গণমাধ্যম খালিজ টাইমস জানিয়েছে- বিনামূল্যে পার্কটিতে প্রবেশের সুযোগ করে দেয়া হয়েছে। এছাড়া পার্কটি শুধু মুসলিম দের জন্য নয়, সব ধর্মের মানুষদের জন্য এটি উন্মুক্ত। পার্কটির মাধ্যমে ইসলামের অর্জনগুলো মানুষ ভালোভাবে জানতে পারবে বলে কর্তৃপক্ষের দাবি।

জানা যায়- পবিত্র কুরআনে উল্লেখিত ৫৪টি গাছের সমন্বয়ে ১২টি উদ্যান রয়েছে পার্কটিতে। এছাড়া এতে কৃত্রিম হ্রদও তৈরি করা হয়েছে। পার্কটিতে রয়েছে মূল প্রবেশদ্বার, প্রশাসনিক ভবন, ইসলামিক বাগান, শিশুদের খেলার স্থান, দর্শনীয় স্থান, উন্মুক্ত আঙ্গিনা এবং কুরআনের অলৌকিক ঘটনার বর্ণনাসমৃদ্ধ এলাকা।

এছাড়া পার্কে দর্শনার্থীদের সুবিধার্থে কোরআনের প্রাসঙ্গিক আয়াত ও ঘটনা লিখে দেয়া হয়েছ প্রতিটি নির্মাণের পাশে। আধুনিক প্রযুক্তি কাজে লাগিয়ে এখানে তৈরি করা হয়েছে ডিজিটাল থিয়েটার। যেখানে প্রদর্শন করা হবে ইসলামী ইতিহাসের বিভিন্ন ঘটনা অবলম্বনে নির্মিত ভিডিও চিত্র।

কুরআন পার্কে আরও রয়েছে- আকর্ষণীয় ফটক, ঝর্ণা, কাঁচের বিল্ডিং, মরুদ্যান, রানিং ট্র্যাক, সাইকেলিং ট্র্যাকসহ নানা ধরণের স্থাপনা ও আয়োজন। পার্কটি নির্মাণে দুবাই মুদ্রায় ২৭ মিলিয়ন অর্থ ব্যয় করা হয়েছে বলে জানা গেছে।