সমুদ্রের পাড়েই উদ্দাম যৌনতায় মেতে উঠলেন যুগল, আটকের পর পুলিশ ভ্যানেও…

টিবিটি টিবিটি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

প্রকাশিত: ৫:১২ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ১০, ২০২০ | আপডেট: ৫:১২:অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ১০, ২০২০

মনের মানুষের সঙ্গে একান্তে কিছুটা সময় কাটাবেন বলেই ভেবেছিলেন এক যুগল। তাই বেছে নিয়েছিলেন ফিলিপিন্সের আকলান প্রদেশের বোরসাই সমুদ্র সৈকতকে।

এ পর্যন্ত ঠিকই ছিল। কিন্তু গণ্ডগোল হল অন্য ক্ষেত্রে। সমুদ্র সৈকতে নিজেদের আর ধরে রাখতে পারেননি তাঁরা। স্থান-কালের কথা ভুলে ভিড়ে ঠাসা সমুদ্র সৈকতেই উদ্দাম যৌনতায় মেতে উঠলেন দু’জনে। এই অভিযোগে গ্রেপ্তারের পর আদালতেও তোলা হয় তাঁদের।

ব্রিটিশ নারী জেসমিন নেলি এবং অস্ট্রেলিয়ার যুবক অ্যান্টনি কারিও’র মধ্যে সম্পর্ক তৈরি হয় বেশ কয়েক বছর আগে। সময় পেলেই এদিক-ওদিক বেড়াতে বের হন তারা।

ওই যুগল ছিলেন ফিলিপাইনের আকলান প্রদেশের বোরসাই নামে এক পারিবারিক সৈকতে। দু’জন মিলে একান্তে কিছুটা সময় কাটানোই ছিল তাদের উদ্দেশ্য। সমুদ্রসৈকতে কেউ নোনা জলে পা ভিজিয়ে হেঁটে বেড়াচ্ছেন, তো কেউ উপভোগ করছেন সৌন্দর্য। কেউ গল্পগুজবে ব্যস্ত।

ওই সময় সমুদ্রের পাড়েই উদ্দাম যৌনতায় মেতে ওঠেন ওই যুগল। পারিবারিক সমুদ্র সৈকতে জেসমিন এবং অ্যান্টনির কার্যকলাপে বেশ খানিকটা অস্বস্তিতে পড়ে যান প্রায় সবাই। যৌনতায় নিষেধাজ্ঞা জারি করেন কেউ কেউ। তবে সে কথায় কান দেওয়ার মতো সময় ছিল না যুগলের। তার পরিবর্তে নিজেদের মতো করে ব্যস্ত তারা।

সৈকতে উপস্থিত একজন খবর দেন পুলিশে। খবর শুনেই তড়িঘড়ি ফিলিপাইনের আকলান প্রদেশের বোরসাই নামক পারিবারিক সৈকতে পৌঁছে যায় পুলিশ। তবে পুলিশকে দেখেও হেলদোল নেই তাদের। পুলিশের সামনেও তারা বিশেষ মুহূর্তেই ছিলেন।

প্রকাশ্যে যৌনতায় বাধা পেয়েও হুঁশ না ফেরায় বাধ্য হয়ে ওই যুগলকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। হাতকড়া পরিয়ে পুলিশের গাড়িতে তোলা হয় তাদের। জোয়েল বাঙ্গা নামে এক পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, তাতেও স্বাভাবিক হয়নি ওই যুগল। পুলিশের গাড়িতে ওঠার পরেও বারবার যৌনতায় মেতে ওঠেন তারা।

প্রকাশ্যে যৌনতার অভিযোগে আদালতে তোলা হয় দু’জনকে। জামিন পেয়ে যান জেসমিন নেলি এবং অ্যান্টনি কারিও। ফিলিপাইনের আদালতে চলতি মাসেই আবারও হাজিরা দিতে হবে তাদের। যদি কোনো কারণে হাজিরা না দেন, সে ক্ষেত্রে ওই যুগলের ফিলিপাইনে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা জারি হতে পারে।

কিন্তু কেন এমন করল ওই যুগল? পুলিশের দাবি, অত্যধিক মদ্যপানের জেরে এমন তালজ্ঞানশূন্য হয়ে গিয়েছিলেন ওই যুগল। স্বাভাবিক হওয়ার পর যদিও পুরো ঘটনার জন্য দুঃখ প্রকাশ করেছেন তারা।