‘সরকারকে ৭ দিনের আল্টিমেটাম মাহমুদুর রহমান মান্নার’

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ৩:০৮ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২০, ২০২০ | আপডেট: ৩:০৮:অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২০, ২০২০

নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্নার ওপর হামলার ঘটনায় জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে সরকারকে ৭ দিনের আল্টিমেটাম দেয়া হয়েছে। এ সময়ের মধ্য কোনও ব্যবস্থা না নিলে ঢাকা মহানগরের সব জায়গায় অবরোধ করা হবে বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন মান্না।

মঙ্গলবার (২০ অক্টোবর) জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে নাগরিক ঐক্যের উদ্যোগে মাহমুদুর রহমান মান্নার ওপর হামলার প্রতিবাদে আয়োজিত বিক্ষোভ সমাবেশে তিনি এ আল্টিমেটাম দেন।

মান্না বলেন, ‘আমার ওপর যারা হামলা করেছে, তাদের ভিডিও আমার কাছে আছে। তৈমুর আলম খন্দকার হামলাকারীদের নামে জিডি করেছে। সাত দিনের মধ্যে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে হবে।
যদি ব্যবস্থা না নেয়া হয়, তাহলে আমার বন্ধুবান্ধব এবং আপনাদের সাথে কথা বলবো। সাত দিন বা ১৫ দিন পরে ঢাকা মহানগরের সব জায়গায় অবরোধ করব। এইরকম মনে করবেন না যে এক মাঘে শীত যাবে।’

তিনি বলেন, ‘আমাদেরকে রামদার ভয় দেখাবেন না। জেলের ভয় দেখাবেন না। মামলার ভয় দেখাবেন না। পান্তা ভাতের মধ্যে কাঁচা মরিচ দিয়ে যেভাবে খায়। ওইভাবে হামলা-মামলা এত বছর ধরে খেয়ে এসেছি। আমরা যখন ধরবো তখন কিন্তু পালাবার পথ পাবেন না।’

মান্না আরও বলেন, ‘জাফরুল্লাহ চৌধুরী, জোনায়েদ সাকি, নুরুল হক নুর সবাই কথা বলছে, কারোর কণ্ঠরোধ করতে পারেননি। আর কণ্ঠরোধ করতেও পারবেন না। আজ আমরা তিনজন, চারজন কথা বলছি। সাতদিন পরে সারা বাংলাদেশের মানুষ একসাথে কথা বলব। ওই কন্ঠ এত জোরে শোনা যাবে যে, গণভবনের দেওয়াল ভেঙে পড়ে যাবে।’

ডাকসুর সাবেক ভিপি বলেন, ‘এরা কত বড় ডাকাত উপনির্বাচনে ভোট ডাকাতি করেননি? এমনকি পৌরসভা নির্বাচনেও তারা ভোট ডাকাতি করেছে। এরা আসলেই জাত ভোট ডাকাত।’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, ‘১৯৭৩ সালের নির্বাচনে খন্দকার মোশতাক ও ইঞ্জিনিয়ার রশিদের ব্যালট বক্স ঢাকায় নিয়ে এসেছিল। ওখানে ভোট গণনা করে ইঞ্জিনিয়ার রশিদ জয় পায়। আর ঢাকায় এনে যখন গণনা করে তখন খন্দকার মোশতাককে জয় পায়।

এত পিয়ারের খন্দকার মোশতাক-ই বঙ্গবন্ধুর হত্যার সাথে জড়িত ছিল। ভেতরে ভেতরে আপনার গদি ধরে টানবার অসংখ্য লোক আছে। আপনি দেশ শাসনের যোগ্যতা রাখেন না। আপনি দেশ শাসনের আইনি অধিকার রাখেন না।’

বিক্ষোভ সমাবেশে আরও উপস্থিত ছিলেন গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডাক্তার জাফরুল্লাহ চৌধুরী, গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়ক জোনায়েদ সাকি ও ডাকসুর সাবেক ভিপি নুরুল হক নুর প্রমুখ।