সর্বোচ্চ সংক্রমণের মধ্যে অফিস, শপিংমল, রেস্তোরাঁ খুলছে ভারতে

টিবিটি টিবিটি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

প্রকাশিত: ৫:০৫ অপরাহ্ণ, জুন ৫, ২০২০ | আপডেট: ৫:০৫:অপরাহ্ণ, জুন ৫, ২০২০

ভারতে করোনাভাইরাসের প্রকোপ বাড়ছে আশঙ্কাজনক হারে। আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত ও মৃত্যু প্রতিদিনই আগের রেকর্ড ভাঙছে। কিন্তু এরমধ্যেই দেশটি ফের সচল হওয়ার ঘোষণা দিয়েছে। আগামী ৮ জুন সোমবার থেকে ভারতে খুলছে সব ধরনের অফিস, শপিংমল, উপাসনালয় এবং রেস্তোরাঁ।

বিবিসির প্রতিবেদন অনুযায়ী ভারত সরকার জারিকৃত নতুন নির্দেশনায় বলা হচ্ছে, অফিস চালু হলেও থাকবে নির্দিষ্ট কর্মঘণ্টা, মন্দিরে প্রসাদ বিলি করা যাবে না এবং শীততাপ নিয়ন্ত্রিত যন্ত্রের সীমা থাকবে ২৪ ডিগ্রি সেন্ট্রিগ্রেড। তবে ‘কন্টেইনমেন্ট জোনে’ প্রয়োজনীয় সেবা ছাড়া এসবের কোনো কিছুই খুলছে না।

এছাড়া রোগাক্রান্ত ব্যক্তি, গর্ভবতী নারী এবং বয়স্ক মানুষদের ঘরে থাকার আহ্বান জানানো হয়েছে। প্রত্যেক স্থানে প্রবেশের আগে দরজায় হ্যান্ড স্যানিটাইজার কিংবা হাত ধোয়ার ব্যবস্থা করা ছাড়াও সামাজিক দূরত্ববিধি নিশ্চিত করার জন্য সংশ্লিষ্ট সকল কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দিয়েছে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়।

উপাসনালয়গুলো খোলার অনুমতি দেওয়া হলেও জারি করা হয়েছে কঠোর বিধিনিষেধ। ধর্মস্থানের মধ্যে প্রসাদ বা ‘পবিত্র জল’ বিতরণ করা যাবে না। এছাড়া মূর্তি, প্রতিমা, বা পবিত্র বইগুলোকে স্পর্শ করতে পারবে না কেউ। জনসমাগম করা যাবে না, থাকতে হবে মাস্ক এবয় পরস্পরকে ছোঁয়া যাবে না।

পাশপাশি আরও বলা হয়েছে, ধর্মীয় স্থান বিশেষ করে মন্দিরে কোনো রকম ভক্তদের দ্বারা কোনো সঙ্গীত অনুষ্ঠান করা চলবে না। শুধু রেকর্ড করা মিউজিক বা সঙ্গীত চলতে পারে। মন্দিরে ভিড় তো করা যাবেই না প্রণাম করতে হবে দূর থেকে। সামাজিক দূরত্ব মেনে নিজস্ব আসনে বসতে হবে।

রেস্তোরাঁ ও হোটেলগুলো খাবারের প্যাকেট সরাসরি গ্রাহকদের হাতে দিতে পারবে না। ধারণ ক্ষমতার ৫০ শতাংশ মানুষ বসতে পারবে এবং দুটি চেয়ারের দূরত্ব হবে ছয় ফুট। খাবার কিনে বাড়িতে নেওয়ায় জোরারোপ। হোম ডেলিভারি কর্মী এবং শেফদের থার্মাল স্ক্রিনিং করতে হবে নিয়মিত।

অফিসগুলির জন্য নতুন নির্দেশিকায় কর্তৃপক্ষকে নির্দিষ্ট কাজের সময় মধ্যাহ্নভোজনের বিরতি দিয়েছিল। সমস্ত ক্যাফেটেরিয়া ও দোকানগুলোকে অফিসের বাইরে এবং বাইরে উভয়ই কঠোর সামাজিক দূরত্বের ব্যবস্থা অনুসরণ করতে হবে। এছাড়া লিফটে লোকের সংখ্যা এখন সীমাবদ্ধ থাকবে।

মন্ত্রণালয় তাদের নির্দেশনায় শীতাতপ নিয়ন্ত্রণের সকল যন্ত্রের তাপমাত্রা ২৪ থেকে ৩০ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেডের মধ্যে রাখতে এবং আর্দ্রতার স্তর ৪০ শতাংশ থেকে ৭০ শতাংশ নির্ধারণ করে দেওয়া হয়েছে। এছাড়া শপিংমলগুলো খুললেও গেমিং এলাকা, সিনেমা হল এবং খেলার নির্ধারিত স্থান বন্ধ করতে বলা হয়েছে।

শুক্রবার ভারতের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, গত ২৪ ঘণ্টায় দেশটিতে নতুন করে আরও ৯ হাজার ৮৫১ জন কোভিড-১৯ আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত হয়েছেন, যা ভারতে একদিনে সর্বোচ্চ শনাক্তের রেকর্ড। সেখানে মোট আক্রান্ত ২ লাখ ২৬ হাজার ৭৭০ জন; নতুন ২৭৩ জন নিয়ে মোট মৃত্যু ৬ হাজার ৩৪৮।