সাব্বিরের শাস্তি নিয়ে ইউ-টার্ন নিয়েছে বিসিবি বলছে নিউজিল্যান্ডের মিডিয়া!

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ৫:৫২ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ১, ২০১৯ | আপডেট: ৫:৫২:অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ১, ২০১৯
সংগৃহীত

চলমান বিপিএলের ৬ষ্ঠ আসরের উত্তেজনা ছাপিয়ে দেশের ক্রিকেটাঙ্গনে আলোচনার বিষয়বস্তু হয়ে উঠেছিলেন জাতীয় দলে নিষিদ্ধ থাকা ক্রিকেটার সাব্বির রহমান। হুট করেই একমাস নিষেধাজ্ঞা কমিয়ে তাকে নিউজিল্যান্ড সিরিজে খেলানোর সিদ্ধান্ত নেয় বিসিবি।

নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ শেষ হওয়ার আগেই তাকে দলে ফেরানোর প্রক্রিয়া নিয়ে দেশের বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে প্রশ্ন উঠেছিল। এবার নিউজিল্যান্ডের মিডিয়াও এই সিদ্ধান্ত নিয়ে কড়া প্রতিক্রিয়া জানাতে ছাড়েনি।

নিউজিল্যান্ডের শীর্ষ পত্রিকা ‘স্টাফ’ শিরোনাম করেছে- ‘নিষেধাজ্ঞা শেষ হওয়ার ৩ সপ্তাহ আগেই নিষিদ্ধ ক্রিকেটারকে নিউজিল্যান্ড সফরে ফেরাল বাংলাদেশ।’ ক্রিকইনফোর উদ্ধৃতি দিয়ে সংবাদমাধ্যমটি লিখেছে, সাব্বিরের শাস্তি নিয়ে ইউ-টার্ন নিয়েছে বিসিবি। পেশাদার প্রতিষ্ঠান হিসেবে তারা আজ হাস্যরসের বিষয়বস্তু। একইসঙ্গে বাংলাদেশ দলের সংস্কৃতির জন্য এটি একটি বিপজ্জনক বার্তা।’

দেশের অন্যতম প্রতিভাবান ক্রিকেটার সাব্বির রহমান বেপরোয়া কাণ্ড ঘটিয়ে বারবার আলোচনায় এসেছেন। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে এক ক্রিকেটপ্রেমীকে গালাগাল করায় তাকে ৬ মাসের জন্য আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে বহিস্কার করা হয়েছিল।

সাব্বিরের এই শাস্তির মেয়াদ শেষ হওয়ার কথা ২৮ ফেব্রুয়ারি। এর আগে স্থানীয় একটি ম্যাচে দর্শক পিটিয়ে ঘরোয়া ক্রিকেটে ৬ মাস নিষিদ্ধ ছিলেন সাব্বির- এই তথ্যও উল্লেখ করতে ভুল করেনি ‘স্টাফ’।

মজার ব্যাপার হলো, সাব্বির নিষেধাজ্ঞা শেষ হওয়ার আগেই কীভাবে দলে আসল সে ব্যাপারে পরিস্কারভাবে বিসিবি কেউ কিছু বলতে পারেননি। প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন নান্নু দল ঘোষণার সময় বলেন, অধিনায়ক মাশরাফির জোর সুপারিশেই সাব্বির এসেছে দলে।

এরপর মাশরাফি এটা অস্বীকার করে বলেন, সাব্বিরকে দলে নেওয়া কিংবা তার নিষেধাজ্ঞা কমানোর এখতিয়ার তার নেই। এটা বিসিবির ব্যাপার। এরপর বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন আরও মজার তথ্য দেন।

বিসিবি সভাপতির বক্তব্য উদ্ধৃত করে ‘স্টাফ’ লিখেছে, ‘যখন আমার কাছে খেলোয়াড় তালিকা সই করার জন্য আসে, আমি জিজ্ঞাসা করেছিলাম ওর সাব্বির শাস্তির ব্যাপারটা। আমাকে বলেছে শাস্তি শেষ।

হয়তো ভুল করে বলেছে কিংবা হতে পারে মেয়াদটা কমিয়ে দেওয়াতে শাস্তি কমে গেছে। আমার ঠিক মনে নেই কে বলেছিল…। ওখানে যারা নিয়ে এসেছিল…। আমাকে বলা হয়েছিল শাস্তির মেয়াদ শেষ জানুয়ারিতে।’