সীমান্তে হত্যা কমেছে: বিজিবি মহাপরিচালক

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ৫:৫২ অপরাহ্ণ, আগস্ট ২৭, ২০১৮ | আপডেট: ৫:৫২:অপরাহ্ণ, আগস্ট ২৭, ২০১৮

বিজিবি-বিএসএফ’র সুসম্পর্কের কারণে সীমান্তে হত্যা কমেছে বলে মন্তব্য করেছেন বিজিবি মহাপরিচালক মেজর জেনারেল সাফিনুল ইসলাম। সোমবার দুপুরে রাজশাহীর ১নং বিজিবি ব্যাটালিয়নের সাহেবনগর বিওপি ক্যাম্প পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ মন্তব্য করেন। চলতি বছরের ২৮ মার্চ বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) এর মহাপরিচালক হিসেবে যোগদানের পর এটি তার প্রথমবারের মতো রাজশাহীর কোনো সীমান্ত এলাকা পরিদর্শন।

সীমান্ত পরিদর্শন শেষে বিজিবি মহাপরিচালক বলেন, যেহেতু আমাদের জনবল কম, সেহেতু আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে আমাদের এই শূন্যতা পূরণ করতে হবে। এজন্য সীমান্ত এলাকায় সিসি টিভি ক্যামেরাসহ বিভিন্ন যন্ত্রপাতি স্থাপন করা হবে। বিজিবি এরই মধ্যে স্মার্ট বর্ডার ম্যানেজমেন্ট এর সূচনা করেছে। বর্তমানে যা যশোরের পুটখালিতে কাজ করছে। এর মাধ্যমে চোরাকারবারি এবং অপরাধীদের ওপর নজরদারি বাড়ানোর পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। পর্যায়ক্রমে রাজশাহীর আদাতলা সীমান্ত এলাকাসহ দেশের বেশকয়েকটি সীমান্তে এই প্রযুক্তির ব্যবহার শুরু করার কাজ প্রক্রিয়াধীন।

তিনি বলেন, সীমান্ত সড়ক নির্মাণের প্রকল্প প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দিয়েছেন। সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় বিষয়টি নিয়ে কাজ করছে। সারাদেশের ৪ হাজার ২০০ কিলোমিটার সীমান্ত সড়ক পর্যায়ক্রমে নির্মাণ করা করা হবে।

মেজর জেনারেল সাফিনুল ইসলাম বলেন, সীমান্তে মাদক পাচার ও চোরাচালান জিরো টলারেন্সে আছে। আগামীতেও বিজিবির এই সুরক্ষা ব্যবস্থা অটুট থাকবে। সীমান্তে মাদক পাচার ও চোরাচালান প্রশ্নে কোনো ছাড় দেওয়া হবে না বলে মন্তব্য করেন তিনি।

ভিন্ন প্রসঙ্গে কথা বলতে গিয়ে বিজিবি মহাপরিচালক বলেন, আগামী সংসদ নির্বাচনকে ঘিরে বেসরকারি প্রশাসনকে সহায়তার জন্য বিজিবি প্রস্তুত আছে। যখনই বিজিবির সহায়তা চাওয়া হবে তখনই মাঠ পর্যায়ে কাজের জন্য নামা হবে।

এর আগে বিজিবির নিজস্ব নৌযানে নদীপার হয়ে নিজে মোটরসাইকেল চালিয়ে তিনি বিজিবি-১ ব্যাটালিয়নের সাহেবনগর বিওপি ও বিজিবি-৫৩ ব্যাটালিয়নের মানিকচক বিওপি পরিদর্শন করেন। এসময় তিনি সাহেবনগর বিওপিতে একটি ফলদ বৃক্ষের চারা রোপন করেন। পরে ওই এলাকার ১০ কিলোমিটার দুর্গম এলাকা ঘুরে দেখেন। সীমান্ত এলাকায় দায়িত্বরত বিজিবি সদস্যদের সঙ্গে কথা বলেন এবং বিভিন্ন দিক নির্দেশনা দেন তিনি।

বিওপি পরিদর্শনের সময় তার সঙ্গে বিজিবির উত্তর-পশ্চিম রিজিয়নের কমান্ডার কর্নেল আনোয়ার সাদাত আবু মোহাম্মদ ফুয়াদ, রাজশাহী বিজিবি-১ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল শামীম মাসুদ আল ইফতেখার, চাঁপাইনবাবগঞ্জ বিজিবি-৫৩ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল সাজ্জাদ সারওয়ার ছাড়াও বিজিবির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।