সুখ-দুঃখে বাংলাদেশের পাশে থাকবে ভারত : শ্রিংলা

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ২:৪৫ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ৮, ২০১৮ | আপডেট: ২:৪৫:অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ৮, ২০১৮

ঢাকায় নিযুক্ত ভারতীয় হাইকমিশনার হর্ষবর্ধন শ্রিংলা বলেছেন, সুখ-দুঃখে ভারত বাংলাদেশের পাশে থাকবে। বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে বর্তমানে চমৎকার সম্পর্ক বিরাজ করছে।

সাম্প্রতিককালে বাংলাদেশ আর্থ-সামাজিক ক্ষেত্রে প্রচুর উন্নতি করেছে। জঙ্গিবাদ দমন করে সমাজে শান্তি প্রতিষ্ঠা করেছে। উন্নয়শীল দেশগুলোর মধ্যেও বাংলাদেশ স্থান করে নিয়েছে।

শনিবার বিকেলে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ অডিটোরিয়ামে ভারতীয় হাইকমিশন ও মুক্তিযুদ্ধ একাডেমি ট্রাস্টের উদ্যোগে বাংলাদেশের মুক্তিযোদ্ধার সন্তানদের শিক্ষাবৃত্তি প্রদান অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

হর্ষবর্ধন শ্রিংলা বলেন, ১৯৭১ সালে মুক্তিযোদ্ধা এবং ভারতীয় সেনাবাহিনী একসঙ্গে যুদ্ধ করে একই শত্রুকে পরাজিত করেছে। এজন্য দুই দেশ ঐতিহাসিক গৌরবের অধিকারী। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং শ্রীমতি ইন্দিরা গান্ধী ভারত-বাংলাদেশের মধ্যে যে সম্প্রীতির বীজ বপন করেছিলেন এখন শেখ হাসিনা এবং নরেন্দ্র মোদি সেই সম্প্রীতিকে অনেক উচ্চতায় নিয়ে গেছেন।

তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশের স্বাস্থ্য এবং অবকাঠামো খাতে ভারতের ৬ হাজার কোটি টাকার উন্নয়ন কাজ চলছে। বরিশাল নগরীর উন্নয়নেও ভারত সরকার অংশীদার হতে চায়।

মুক্তিযোদ্ধা একাডেমি ট্রাস্ট্রের চেয়ারম্যান ড. আবুল আজাদের সভাপতিত্বে আনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন বরিশাল জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক তালুকদার মো. ইউনুস এমপি, পংকজ দেবনাথ এমপি, বরিশালের নবনির্বাচিত মেয়র সেরনিয়াবাত সাদিক আবদুল্লাহ, মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট গোলাম আব্বাস চৌধুরী দুলাল প্রমুখ।

এতে অন্যান্যের মধ্যে খুলনাস্থ ভারতীয় উপ দূতবাসের সহকারী হাইকমিশনার রাজীব রায়না, মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার মো. মোশারফ হোসেন, বরিশালের জেলা প্রশাসক মো. হাবিবুর রহমান এবং ভারতীয় দূতবাসের মিডিয়া অ্যাটাসে রঞ্জন মন্ডল উপস্থিত ছিলেন।

পরে বিশ্ববিদ্যালয়, কলেজ এবং মাধ্যমিক পর্যায়ে ১২০ জন মুক্তিযোদ্ধার সন্তান ও নাতি-নাতনিদের বৃত্তি প্রদান করা হয়। এ পর্যন্ত ভারতীয় দূতাবাস ১২ হাজার ৬২১ জন মুক্তিযোদ্ধার সন্তানকে ২১ কোটি টাকা বৃত্তি প্রদান করেছে। ২০০৬ সালে এই বৃত্তি প্রদান শুরু করে ভারত সরকার।