সুপার লিগ: ক্ষতিগ্রস্ত ও গুরুত্ব হারাবে হবে চ্যাম্পিয়নস লিগ

টিবিটি টিবিটি

স্পোর্টস ডেস্ক

প্রকাশিত: ৮:৪৩ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ১৯, ২০২১ | আপডেট: ৮:৪৩:অপরাহ্ণ, এপ্রিল ১৯, ২০২১

ইউরোপের ১২টি শীর্ষ ক্লাব এমনই এক লিগ আয়োজনের চেষ্টা করছে, আদতে যা ‘বিদ্রোহী লিগ’নামে পরিচিত পাচ্ছে। ইউরোপিয়ান সুপার লিগ নামের সেই আয়োজনের প্রচেষ্টাকে এরই মধ্যে অবৈধ ঘোষণা করেছে ফিফা ও উয়েফা।

রবিবারই ইউরোপের শীর্ষ ১২টি ক্লাব ঘোষণা দিয়েছে যে, তারা নতুন এই লিগ মাঠে নামাতে যাচ্ছে। যার প্রথম চেয়ারম্যান হয়েছেন রিয়াল মাদ্রিদের সভাপতি ফ্লোরেন্তিনো পেরেজ।

বিবৃতিতে তারা জানিয়েছে, ইউরোপের শীর্ষ ১২টি ক্লাব সপ্তাহের মাঝ দিকে নিজেদের ঘরোয়া লিগের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে একটি প্রতিযোগিতা শুরুর বিষয়ে একমত হয়েছে। যার নাম সুপার লিগ, আর পুরো টুর্নামেন্টই দেখভাল করবে এর প্রতিষ্ঠাকালীন ক্লাবগুলো।

সত্যি সত্যি যদি ইউরোপিয়ান সুপার লিগ চালু হয়, তাহলে এত দিন ধরে চলে আসা চ্যাম্পিয়নস লিগ গুরুত্ব হারাবে। ছোট ক্লাবগুলোর সঙ্গে বড়দের ব্যবধানটা পরিস্কার হয়ে যাবে। তাই এই লিগের সমালোচনায় মেতেছে বিরোধী ক্লাবগুলো।

এই সুপার লিগে ইতোমধ্যেই স্পেন থেকে নাম লিখিয়েছে রিয়াল মাদ্রিদ, বার্সেলোনা, অ্যাতলেটিকো মাদ্রিদ। ইতালি থেকে আছে জুভেন্টাস, এসি মিলান ও ইন্টার মিলান। ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগ থেকে ম্যানচেস্টার সিটি, ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড, লিভারপুল, চেলসি, আর্সেনাল ও টটেনহাম। তার মানে বর্তমান ফুটবলবিশ্বের বড় দুই সুপারস্টার মেসি-রোনালদোসহ বাকি সব নামীদামি তারকাও খেলবেন সুপার লিগে। তাহলে চ্যাম্পিয়নস লিগের কী হবে?

যে কারণে এই লিগের তীব্র সমালোচনা করেছেন গ্যারি নেভিল। বিস্ফারিত নেত্রে স্কাই স্পোর্টসে তিনি বলেছেন, ‘ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ও লিভারপুলের ওপরই বেশি রাগ হচ্ছে। তারা এমন এক প্রতিযোগিতায় যাচ্ছে, যেখানে কখনো অবনমনের মুখ দেখবে না। এটা মর্যাদাহানিকর। দেশের বড় ক্লাবগুলোর কাছ থেকে ক্ষমতা ছিনিয়ে নিতে হবে আমাদের। এর মধ্যে আমার দলও আছে! নির্ভেজাল লোভ থেকে এটা করা হয়েছে। তারা প্রতারক। এই দেশের ফুটবলের সঙ্গে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড, লিভারপুল, চেলসি, ম্যানচেস্টার সিটি মালিকদের কোনো সম্পর্ক নেই। ‘

ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের হয়ে লিগ জয়ের পাশাপাশি দুবার চ্যাম্পিয়নস লিগ জিতেছেন রাইটব্যাক পজিশনে খেলা নেভিল। তিনি আরও বলেন, ‘তারা যেন ঈশ্বরপ্রদত্ত ক্ষমতাবলে সেখানে থাকতে চাইছে? এটা কৌতুক ছাড়া আর কী। এখন সময় এসেছে নিরপেক্ষ ও স্বাধীন নিয়ন্ত্রক গঠন করে ক্লাবগুলোর ক্ষমতার কেন্দ্রবিন্দু দখল করা ঠেকাতে হবে। যথেষ্ট হয়েছে, আর না! কালই এদের সব পয়েন্ট কেটে নিন। লিগ টেবিলের নিচে পাঠিয়ে সব টাকা নিয়ে নিন। আমি সিরিয়াসলিই বলছি। কারণ এটা অপরাধ, দেশের ফুটবলপ্রেমীদের বিরুদ্ধে অপরাধ। ফুটবল পৃথিবীর সেরা খেলা, আর তাই এটা অপরাধ। ‘