সুশান্তের নামে ফাউন্ডেশন, শৈশবের বাড়ি জাদুঘর

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ১২:৪১ অপরাহ্ণ, জুন ২৮, ২০২০ | আপডেট: ১২:৪১:অপরাহ্ণ, জুন ২৮, ২০২০

পরিবারের ‘একমাত্র’ ছেলে ছিলেন, চার বোনের একমাত্র ভাই। তাই একটু বেশিই আদর পেতেন সবার। কিন্তু সব আদর আর মমতা ফেলে দূর আকাশে ধরাছোঁয়ার বাইরে চলে গেছেন সুদর্শন তারকা সুশান্ত সিং রাজপুত।

বলিউডের এই অভিনেতার প্রতি সম্মান জানিয়ে তার পরিবার একটি ফাউন্ডেশন গড়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। তারা এর নাম রেখেছে ‘সুশান্ত সিং রাজপুত ফাউন্ডেশন’ (এসএসআরএফ)।

চলচ্চিত্র, খেলাধুলা ও বিজ্ঞানে উচ্চাকাঙ্ক্ষী তরুণ প্রতিভাবানদের সহায়তা করাই হবে ফাউন্ডেশনের লক্ষ্য। অভিনয়ের বাইরে এই দুটি বিষয়ে সুশান্তের ব্যাপক আগ্রহ ছিল।

বিশেষ করে বিজ্ঞান নিয়ে তার কৌতূহলের কথা সবারই জানা। চাঁদ-তারা দেখার জন্য বিশাল অঙ্ক ব্যয় করে একটি টেলিস্কোপ কিনেছিলেন তিনি।

এক বিবৃতিতে পরিকল্পনার কথা জানিয়েছে সুশান্তের পরিবার। এতে আরও উল্লেখ রয়েছে, বিহারের পাটনায় রাজিবনগরে তার শৈশবের বাড়ি রূপান্তর করা হবে স্মৃতি সংগ্রহশালায়।

এখানে থাকবে প্রয়াত এই অভিনেতার টেলিস্কোপ ও প্রিয় গ্রন্থ। কবিতাপ্রেমী ছিলেন তিনি। জ্যোতির্বিদ্যা চর্চা করতেন। ভালো লাগতো গিটার বাজাতে।

ঘরে ফ্লাইট-সিমুলেটরও আছে। ভক্ত ও শুভাকাঙ্ক্ষীদের জন্য এসব ব্যক্তিগত জিনিসপত্রও রাখা হবে সংগ্রহশালায়।

বিবৃতিতে পরিবার শুরুতেই বলেছে, ‘সুশান্তের জগত ছিল আমাদের কাছে সুন্দর বাগানের মতো।’ এরপর ৩৪ বছরে চলে যাওয়া ছেলেটির গুণের কথা তুলে ধরেছেন তারা— ‘সে ছিল মুক্তমনা, গল্পপ্রেমী ও অসাধারণ বুদ্ধিমান। সবকিছু নিয়ে তার কৌতূহল ছিল।

বাঁধভাঙা স্বপ্ন দেখতো সে এবং সিংহ হৃদয় নিয়ে সেগুলো অর্জন করতে চেয়েছে। সবার সঙ্গে হাসিমুখে থাকতো। ও ছিল পরিবারের গর্ব ও অনুপ্রেরণা। টেলিস্কোপ ছিল তাঁর সবচেয়ে দামি জিনিস, এর মাধ্যমে তারা দেখতো।

পরিবারের সদস্যরা এখনও বিশ্বাস করতে পারেন না, সুশান্তের শিশুসুলভ হাসির শব্দ আর শোনা যাবে না এবং তাঁর জ্বলজ্বলে চোখ আর তাকাবে না। বিজ্ঞান নিয়ে তাঁর গালভরা কথা শোনা হবে না আর। তার শূন্যতা কখনই পূরণ হওয়ার নয়।

বিবৃতিতে আরও জানানো হয়, প্রত্যেক ভক্তকে ভালোবাসতেন ও মনের মাঝে রাখতেন সুশান্ত। তাকে ভালোবাসায় সিক্ত করা ও প্রার্থনার জন্য সবাইকে ধন্যবাদ দেন পরিবারের সদস্যরা।

সুশান্তের স্মৃতি অমর করে রাখতে তার ইনস্টাগ্রাম, টুইটার ও ফেসবুক পেজ চালু রাখবে পরিবার। ছবি ও ভিডিও শেয়ারিংয়ের প্ল্যাটফর্ম ইনস্টাগ্রামে তার ফলোয়ার ৫০ লাখ ছাড়িয়েছে।

তার অ্যাকাউন্টে যুক্ত হয়েছে ‘রিমেম্বার’ শব্দটি। তার চিন্তাভাবনা, দীক্ষা ও স্বপ্ন নিয়ে একটি ওয়েবসাইট চালু করেছে ব্যবস্থাপনা টিম।

এদিকে সুশান্ত বাবা কেকে সিংকে এক টিভি সাক্ষাৎকারে জানান, তার ছেলে ২০২১ সালের ফেব্রুয়ারি-মার্চে বিয়ে করতে চেয়েছিলেন। তবে বাবাকে মেয়ের পরিচয় জানাননি তিনি।

তার হবু কনে ‘পবিত্র রিশতা’র অঙ্কিতা লোখান্ডে, ‘রাবতা’র নায়িকা কৃতি স্যানন নাকি সবশেষ প্রেমিকা রিয়া চক্রবর্তী হতেন তা কেবল সুশান্তই জানতেন।

সুশান্তের শেষ ছবি ‘দিল বেচারা’ ডিজনি প্লাস হটস্টারে মুক্তি পাবে আগামী ২৪ জুলাই। তার প্রতি সম্মান জানিয়ে দর্শকদের বিনামূল্যে দেখতে দেওয়া হবে এটি।

বলিউডের কয়েকজন তারকা সুশান্তের শেষ ছবির পোস্টার দিয়েছেন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে। তাদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য কার্তিক আরিয়ান, আরশাদ ওয়ারসি, ভূমি পেডনেকর, রাজকুমার রাও।

‘দিল বেচারা’ হলো ২০১৪ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত হলিউডের প্রেমের ছবি ‘দ্য ফল্ট ইন আওয়ার স্টারস’-এর অফিসিয়াল হিন্দি রিমেক। জন গ্রিনের জনপ্রিয় উপন্যাস অবলম্বনে তৈরি হয়েছে এটি।

এতে সুশান্তের বিপরীতে আছেন নবাগতা সানজানা সঙ্গী। অতিথি চরিত্রে আছেন সাইফ আলি খান। গান লিখেছেন অমিতাভ ভট্টাচার্য, সংগীত পরিচালনায় এআর রাহমান।

সুশান্তের চূড়ান্ত ময়নাতদন্ত প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গত ১৪ জুন মুম্বাইয়ে বান্দ্রার কার্টার রোডে নিজের ফ্ল্যাটে আত্মহত্যা করেছেন তিনি।

অ্যাসপিক্সিয়ার (অক্সিজেনের ঘাটতিতে দম বন্ধ হওয়া) কারণে মৃত্যু হয়েছে তার। হত্যা কিংবা আঘাতের কোনও চিহ্ন পাওয়া যায়নি।

মুম্বাই পুলিশ এখন সুশান্তের অপমৃত্যুর তদন্ত করছে। তার সঙ্গে চুক্তি নিয়ে যশরাজ ফিল্মসের সাবেক দুই শীর্ষ নির্বাহীকে জেরা করা হয়েছে।

সব মিলিয়ে ২৫ জনকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে মুম্বাই পুলিশ। প্রবীণ অভিনেত্রী ও বিজেপির সাংসদ রূপা গাঙ্গুলি সিবিআই তদন্তের দাবি জানিয়েছেন। ভক্তদেরও একই দাবি।

তথ্যসূত্র: এনডিটিভি