সুস্থ হওয়ার তিনদিনের মাথায় আবারও বান্ধবীসহ করোনা আক্রান্ত দিবালা!

টিবিটি টিবিটি

স্পোর্টস ডেস্ক

প্রকাশিত: ৫:১৬ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ৫, ২০২০ | আপডেট: ৫:১৬:অপরাহ্ণ, এপ্রিল ৫, ২০২০

ইতালিয়ান ক্লাব জুভেন্টাস প্রথমে তার করোনায় আক্রান্ত হওয়ার খবর গোপন করেছিল। কিন্তু শেষমেশ জানাজানি হয়ে যায়, আর্জেন্টাইন তারকা পাওলো দিবালা করানাভাইরাসে আক্রান্ত। এর পর ক্লাবের পক্ষ থেকে এক বিবৃতিতে খবরের সত্যতা স্বীকার করে হয়। দিবালার বান্ধবীও করোনায় আক্রান্ত হয়েছিলেন। তবে মরণ ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াই করে সুস্থ হয়ে উঠেছিলেন দিবালা। এবার জানা যাচ্ছে, সুস্থ হওয়ার তিনদিনের মাথায় তিনি আবার করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। তার বান্ধবী সাবাতিনিও ফের কোভিড-১৯ টেস্টে পজিটিভ হয়েছেন।

ইংলিশ গণমাধ্যম দ্য সানকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তা নিশ্চিত করেছেন এই আর্জেন্টাইন মডেল।

সাবাতিনি জানিয়েছেন, দ্বিতীয়বারের কোভিড-১৯ পরীক্ষার ফলে ঘাপলা ছিল। অর্থাৎ তিনি এখনও করোনাভাইরাসে আক্রান্ত। দ্য সানকে তিনি বলেছেন, ‘অনেকেই আমাকে জিজ্ঞাসা করেছেন, তাই বলছি। গত ২১ মার্চ আমি এবং আমার বন্ধুর করোনাভাইরাস টেস্টে পজিটিভ ফল আসে। তিন দিন আগে টেস্ট করালে তা নেগেটিভ আসে। কিন্তু গতকাল আমি আবার টেস্ট করানোর পর দেখি এখনও পজিটিভ। তাই এখনও আমার শরীরে করোনাভাইরাস রয়েছে।’

দিবালার বান্ধবীর কথায় বোঝা যায় করোনাভাইরাস কতটা ভয়ঙ্কর, ‘আমি নিশ্চিত জানি না এটা কীভাবে কাজ করে। আমি জানি না এর আগে নেগেটিভ কেন এলো এবং এখন কেনই বা পজিটিভ! আমার মনে হয়, আমি শুনেছি, করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হলে টেস্ট করালে ভুল ফল আসতে পারে। তাই শতভাগ নিশ্চিত হতে আরও একটি পরীক্ষা করা উচিত। আর এতে এটা প্রমাণ হয় যে, ভাইরাসটি সম্পর্কে আমরা কতটা কম জানি।’

প্রথমবার যখন করোনাভাইরাসে পজিটিভ হয়েছিলেন জুভেন্টাস ফরোয়ার্ড দিবালা, তার ১৫ দিন আগে থেকে কোয়ারেন্টিনে ছিলেন তিনি ও তার বান্ধবী। তারপরও অসুস্থতা অনুভব করায় পরীক্ষা করলে দেখা যায় ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন তারা।

সাবাতিনির আরও বলেছেন, ‘আমরা ভেবেছিলাম, আমার বন্ধুর সতীর্থের (দানিয়েল রুগানি) সংস্পর্শে এসে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছি আমরা। কিন্তু এটা আমাকে খুবই অবাক করে দিয়েছে। কারণ, ১৫ দিন অতিবাহিত হওয়ার পর আমরা অসুস্থতা অনুভব করেছি। তাই এসব কোনো কিছুই আসলে যায়-আসে না। কিছুই বুঝতে পারছি না।’

তবে আশার কথা হলো, বর্তমানে সুস্থ আছেন দিবালা এবং তার বান্ধবী, ‘আমরা এখন সুস্থ আছি। সবাইকে বলব, ঘরে থাকুন। অন্তত ১৫ দিনের জন্য হলেও। আমরা আমাদের যত্ন নেওয়ার চেষ্টা করছি।’