সুস্থ হওয়ার ৬ মাসের মধ্যে পুনরায় করোনায় আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি!

টিবিটি টিবিটি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

প্রকাশিত: ৩:৫৮ অপরাহ্ণ, মে ২৬, ২০২০ | আপডেট: ৩:৫৮:অপরাহ্ণ, মে ২৬, ২০২০

নতুন একটি গবেষণায় বলা হয়েছে, করোনা থেকে সুস্থ হওয়া কোনো ব্যক্তি মাত্র ছয় মাসের মধ্যে আবারো করোনায় আক্রান্ত হতে পারেন। গবেষণার তথ্যমতে, করোনা থেকে সুস্থ হওয়া ব্যক্তি ছয় মাস পরে ভাইরাসটির প্রতিরোধমূলক ক্ষমতা হারাতে পারেন।

এ গবেষণার ফলাফলকে, অসুস্থতা থেকে সুস্থ হওয়ার প্রমাণ হিসেবে ‘ইমিউনিটি পাসপোর্ট’ কার্যক্রমের ক্ষেত্রে একটি বড় ধাক্কা হিসেবে মনে করা হচ্ছে।

নেদারল্যান্ডের আমস্টারডাম ইউনিভার্সিটির বিজ্ঞানীরা ৩৫ বছরেরও বেশি সময় ধরে নিয়মিতভাবে ১০ জন পুরুষকে চার ধরনের করোনাভাইরাসের জন্য পরীক্ষা করেছিলেন, যা সাধারণ ঠান্ডা সৃষ্টি করে।

গবেষণার বেশিরভাগ অংশগ্রহণকারী ২৭-৬৬ বছর বয়সি এবং তিন বছরের মধ্যে আবারো ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছিলেন। এ গবেষণার সমাপ্তি টানা হয়েছে ‘করোনাভাইরাস থেকে প্রতিরক্ষামূলক প্রতিরোধ ক্ষমতা স্বল্পস্থায়ী’ উল্লেখ করে।

গবেষকরা বলেন, ‘আমরা সংক্রমণের ১২ মাস পরে পুনরায় ঘন ঘন সংক্রমণ দেখেছি এবং সংক্রমণের ৬ মাস পরে প্রতিরোধমূলক অ্যান্টিবডি যথেষ্ট হ্রাস পায়।’

এ গবেষণায় ১৯৮৫ সাল থেকে ২০২০ সালের মধ্যে তিন মাস বা ছয় মাসের ব্যবধানে পরীক্ষা করা হয়েছিল। গবেষকরা দেখেছেন যে, অ্যান্টিবডির উচ্চ মাত্রা পরের পরীক্ষায় কখনোই এক থাকেনি। ফলে গবেষকরা প্রচলিত ‘ইমিউনিটি পাসপোর্ট’-এর নির্ভরতা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন।

করোনাভাইরাস থেকে সেরে ওঠা কিংবা অ্যান্টিবডি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হওয়া লোকজনের কাজে ফেরা কিংবা ভ্রমণের জন্য বিভিন্ন দেশ ইমিউনিটি পাসপোর্ট ব্যবস্থা চালু করার প্রস্তাব করেছে। এ ব্যবস্থা নিয়ে ইতোমধ্যে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাও উদ্বেগ প্রকাশ করেছে।

কেননা যাদের এই পাসপোর্ট অর্থাৎ ‘ঝুঁকিমুক্ত’ ছাড়পত্র দেওয়া হবে তারা ভাবতে পারেন যে, তাদের শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা তৈরি হয়েছে এবং সতর্কতামূলক কোনো ব্যবস্থা নেওয়ার প্রয়োজন তাদের আর নেই। অথচ এই ভাইরাসের অ্যান্টিবডি শরীরে তৈরি হলেই যে দ্বিতীয়বার আক্রান্ত হবেন না এখন পর্যন্ত তার প্রমাণ পাওয়া যায়নি।

নতুন গবেষণার তথ্যমতে, করোনা থেকে সুস্থ হওয়া ব্যক্তি ছয় মাস পরে ভাইরাসটির প্রতিরোধমূলক ক্ষমতা হারাতে পারেন।