সৌদিতে কওমি শিক্ষার্থীদের উচ্চশিক্ষা গ্রহণে আহবান

প্রকাশিত: ৯:৪৭ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ২৬, ২০১৯ | আপডেট: ৯:৪৭:অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ২৬, ২০১৯

বাংলাদেশের হজ যাত্রীদের কল্যাণে ধর্ম প্রতিমন্ত্রী আলহাজ অ্যাডভোকেট শেখ মোহাম্মদ আব্দুল্লাহর পাঁচটি প্রস্তাবে সম্মতি প্রদান করেছেন সৌদি হজ ও ওমরাহ বিষয়ক মন্ত্রী ড. মোহাম্মদ সালেহ বিন তাহের বেনতেন। রবিবার স্থানীয় সময় ৩.০০ টায় ধর্ম প্রতিমন্ত্রীর নেত্রত্বে বাংলাদেশ প্রতিনিধি দল সৌদি হজ ও ওমরাহ মন্ত্রীর মক্কা অফিসে সাক্ষাৎকালে বাংলাদেশের হজযাত্রীদের সুবিধার্থে এসব বিষয় তুলে ধরেন।

বৈঠকে বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক কওমি সনদের স্বীকৃতি, কওমি মাদরাসার দাওরায়ে হাদিসের সনদকে আরবি ও ইসলামিক স্টাডিজ বিষয়ে মাস্টার্সের সমমান প্রদান, দেশের আর্থ-সামাজিক কর্মকাণ্ডে কওমি পড়ুয়া ছাত্র ও আলেম সমাজের ভূমিকা এবং প্রচলিত অন্যান্য শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছাত্রদের তুলনায় কওমি ছাত্র-ছাত্রীদের ইসলাম ও আরবি ভাষায় বহুমাত্রিক যোগ্যতা ইত্যাদি বিষয় অত্যন্ত গুরুত্বের সঙ্গে তুলে ধরা।

সৌদি আরবের এ মন্ত্রীও গুরুত্বসহকারে প্রয়োজনীয় দিকনির্দেশনা দেন। উল্লেখ্য, স্মরণকালের ইতিহাসে বাংলাদেশের বর্তমান সরকার কর্তৃক কওমি সনদ ও কওমি ডিগ্রির স্বীকৃতি প্রদান এক ঐতিহাসিক ঘটনা।

এতে সাধারণ শিক্ষিত সমাজে পিছিয়ে পড়া ও অবহেলিত লাখ লাখ কওমি ছাত্র ও আলেম-উলামাদের দীর্ঘদিনের দাবি পূরণ হয়। সমাজসেবা, চাকরি, উচ্চশিক্ষা গ্রহণের সুযোগ সৃষ্টি হচ্ছে। এতদিন বিষয়টি দেশের অভ্যন্তরে থাকলেও এবং বহির্বিশ্বে ব্যক্তিগত উদ্যোগে দু’একজন কওমিছাত্র আন্তর্জাতিক বিশ্ববিদ্যালয়ে উচ্চশিক্ষার সুযোগ পাচ্ছে।

বৈঠকে সৌদি ইসলাম বিষয়ক উপমন্ত্রী ড. ইউসুফ বিন মুহাম্মদ, ধর্মসচিব ড. আবদুল্লাহ আস-সামিল, বিদেশে সৌদি মিশনসমূহে নিযুক্ত ধর্মীয় অ্যাটাশে বিষয়ক মহাপরিচালক শায়খ মুহাম্মদ বিন আবদুল ওয়াহিদ আল-আরিফি প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

বাংলাদেশের পক্ষ থেকে ধর্মপ্রতিমন্ত্রী ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন সৌদি আরবে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত গোলাম মসীহ, ধর্মসচিব আনিসুর রহমান, বাংলাদেশ দূতাবাসের উপমিশন প্রধান ড. নজরুল ইসলাম।