স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর ভারত সফর শেষেই নিরাপদ ইন্টারনেট নিয়ে আরিফের বৈঠক

প্রকাশিত: ৫:২২ অপরাহ্ণ, আগস্ট ৮, ২০১৯ | আপডেট: ৫:২২:অপরাহ্ণ, আগস্ট ৮, ২০১৯
ছবি: টিবিটি

‘দি বাংলাদেশ টুডে’কে দক্ষিন এশীয় অঞ্চলের শিশু গণমাধ্যম প্রধান আরিফ জানিয়েছেন, বাংলাদেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর ভারত সফরের পর শিশুদের নিরাপদ ইন্টারনেট নিয়ে বৈঠকটি হবে। তিনি বলেন, আমার লিখিত চিঠির পাশাপাশি গুরুত্বপূর্ণ সেই বৈঠকে জানাবো ইন্টারনেটে আমাদের শিশুরা এখনো কতটা হুমকির মুখে আছে।

এই নিরাপদ ইন্টারনেট দেশের কোটি কোটি অভিভাবকদের প্রানের দাবী যেটা বাস্তবায়নের জন্য আমি এখনো লড়াই চালিয়ে যাচ্ছি।এই প্রতিবেদককে আরিফ বলেন,আপনারা সাংবাদিকরা তো সাক্ষী ২২ হাজার পর্ণ সাইট সরকারের সহায়তায় বন্ধ করতে পারলেও অনিরাপদ (ইউটিউব) এখনো অনেক হুমকি হয়ে দাঁড়িয়েছে।

আরও পড়ুন: এবার ইউটিউবে অশ্লীলতা ছড়ানোয় মামলা করবেন অ্যাডভোকেট মনিরুজ্জামান

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সাথে গুরুত্বপূর্ণ সেই বৈঠক শিশু কিশোরদের নিরাপদ ইন্টারনেট গড়ে তুলতে খুব ই গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করবে। এর পাশাপাশি শিশু ধর্ষণ ও নির্যাতন বন্ধে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সহায়তা চাই৷

৯৯৯ জরুরী সেবা যেন বাংলাদেশের সকল শিশু কিশোর গ্রহন করতে পারে এই ব্যাপারে বিশেষ ক্যাম্পিং চালাতেও অনুরোধ করবো মাননীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে।২০১৫ সাল থেকে আরিফ শিশু গণমাধ্যম পাশাপাশি নিরাপদ ইন্টারনেট গড়ে তুলতে কাজ করে যাচ্ছেন।

আরও পড়ুন: এবার ইউটিউবে অশ্লীলতা ছড়ানোয় মামলা করবেন অ্যাডভোকেট মনিরুজ্জামান

ইতিমধ্যে তার এই কাজ দেশের পাশাপাশি আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে প্রশংসনীয় হয়েছে পাশাপাশি বাংলাদেশে অবস্থানরত বিভিন্ন কুটনৈতিক, শিশুদের নিয়ে কাজ করা দেশী-বিদেশী এনজিওগুলো এখন ব্যাপক প্রশংসা কুড়িয়েছেন আরিফ তার কাজগুলো দিয়ে।শিশুদের জন্য অনিরাপদ ইউটিউব নিয়ে দ্যা বাংলাদেশ টুডে’র ধারাবাহিক প্রতিবেদন প্রকাশের পর পর টনক নড়ে উঠে সকল মহলে।

আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ‘র পক্ষ থেকে পুলিশের আইসিটি বিভাগের এডিশনাল ডিআইজি মহিবুর রহমান, ইউটিউবের অনিরাপদ চ্যানেল, ভিডিওগুলো সড়িয়ে নিতে ও ব্লক করতে সহায়তার আশ্বাস দিয়েছেন। পাশাপাশি উচ্চ আদালত ইতিমধ্যে “শিশুদের জন্য নিরাপদ ইন্টারনেট কেন নয় ” তা জানতে চেয়ে সরকারের প্রতি রুল জারি করেছে।