হাতিরঝিলের দূষিত পানি শোধনে অর্ধশত কোটি টাকার প্রকল্প

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ১১:৫২ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১১, ২০১৮ | আপডেট: ১১:৫২:অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১১, ২০১৮

রাজধানীর অন্যতম প্রধান বিনোদন কেন্দ্র হাতিরঝিলের পানি অগ্রহণযোগ্য পর্যায়ে দূষিত ও পরিবেশের ভারসাম্যের জন্য হুমকি হয়ে উঠছে। এ দূষিত পানি শোধন ও দুর্গন্ধমুক্ত করতে অর্ধশত কোটি টাকার একটি প্রকল্প অনুমোদিত হয়েছে একনেক সভায়।

আজ মঙ্গলবার রাজধানীর শেরেবাংলা নগরের এনইসি মিলনায়তনে একনেক চেয়ারপার্সন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় ‘হাতিরঝিলের দূষিত পানি পরিশোধন’ প্রকল্পটি অনুমোদন দেওয়া হয়।

সভা শেষে পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান। তিনি বলেন, হাতিরঝিল লেকের পানির দুর্গন্ধ দূর করতে ৪৮ কোটি ৯০ লাখ টাকার একটি প্রকল্প সভায় উপস্থাপন করা হয়। প্রকল্পটি অনুমোদন দেয়া হয়েছে। এটি বাস্তবায়িত হলে লেকের পানি দুর্গন্ধ ও দূষণমুক্ত হবে।

জানা গেছে, রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (রাজউক) হাতিরঝিল লেকের বিভিন্ন স্থানের পানির নমুনা সংগ্রহ করে জাপান ও অস্ট্রেলিয়ার পরীক্ষাগারে পাঠায়। সেখান থেকে পাওয়া রিপোর্ট পর‌্যালোচনা করে দেখা যায়, হাতিরঝিলের পানি বর্তমানে অগ্রহণযোগ্য পর্যায়ে দূষিত এবং জলজ প্রাণের জন্য অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। এই পানি পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষার জন্য মারাত্মক হুমকি বলে প্রতিবেদনে উঠে আসে।এরপর এ প্রকল্প নেয়া হয়।

‘হাতিরঝিলের দূষিত পানি পরিশোধন’ প্রকল্পটির উদ্যোগ নেয় গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়। আর বাস্তবায়ন করবে রাজউক।

গত জুলাই থেকে প্রকল্পটির মেয়াদ ধরা হয়েছে ২০২০ সালের জুন মাস পর‌্যন্ত।

হাতিরঝিল দূষণের অন্যতম কারণ হিসেবে প্রকল্প সূ্ত্রে জানা যায়, হাতিরঝিল সমন্বিত উন্নয়ন প্রকল্পের লেক একটি স্টর্ম ওয়াটার রিটেনশন বেসিন হিসেবে তৈরি করা হয়েছিল। কিন্তু লেকের নালা এরিয়ায় স্টর্ম ও স্যুয়ারেজ লাইন আলাদা ছিল না। ফলে পয়োবর্জ্য মিশ্রিত পানি হাতিরঝিল লেকে পড়ছে। এ ছাড়া নালা এলাকাগুলো থেকে কারখানার বর্জ্যও পড়ছে।

বর্ষাকালে অতি বৃষ্টির সময় লেকের নালা খুলে দেওয়া হয়। ফলে পয়োবর্জ্য সরাসরি ঝিলের লেকে পড়ে। এর ফলে পনি দিন দিন দূষিত হচ্ছে।