‘১০০ বছর বয়স না হলে সিগারেট নিষিদ্ধ’ আসছে বিল

টিবিটি টিবিটি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

প্রকাশিত: ৮:২৯ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ৭, ২০১৯ | আপডেট: ৮:২৯:অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ৭, ২০১৯

পরণে কেতাদুরন্ত পোশাক। হাতে দামি সিগারেট। একরাশ ধোঁয়ার রিং হাওয়ায় মিলিয়ে যাওয়ার আগেই আর একটা লম্বা টান। এটাই যদি আপনার স্টাইল স্টেটমেন্ট হয়, বা পছন্দের নেশা তাহলে ভুলেও এই দেশে পা দেবেন না। কারণ এই দেশে ধূমপান করতে হলে আপনার ভিসা, পাসপোর্ট থুড়ি ঠিকুজি কুষ্ঠীর থেকেও আপনার বয়স আগে যাচাই করে নেওয়া হবে। যদি আপনার বয়স ১০০ পার হয়, তাহলেই মজা করে সিগারেটে সুখটান দিতে পারবেন, নচেৎ কড়া চোখের পুলিশ এসে আপনাকে পাকড়াও করে নিয়ে যাবে।

শুনতে অবাক লাগলেও এটাই সত্যি। বয়স ১০০ না হলে খেতে পারবে না সিগারেট। অতি সম্প্রতি এমন একটি বিল পাশ হতে যাচ্ছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের হাওয়াই প্রদেশে। সিগারেটকে মানুষের জন্য সবচেয়ে ক্ষতিকর বস্তু হিসেবে চিহ্নিত করে তা পুরোপুরি নিষিদ্ধ না করে ১০০ বছর বয়সের আগে কেউ সিগারেট কেনা-বেচা করতে পারবেন না- এমন প্রস্তাব করা হয়।

হাওয়াই প্রদেশের সংবাদ মাধ্যম ট্রিবিউন হেরাল্ডক এমন খবর প্রকাশ করেছে।

বর্তমান আইন অনুসারে, হাওয়াই প্রদেশে ২১ বছরের কম বয়সীদের সিগারেট কেনা নিষিদ্ধ। তবে বর্তমানে বিদ্যমান এই আইনটিতে পরিবর্তন আনবার কথা বলেছেন প্রদেশটির ডেমোক্র্যাটিক পার্টির প্রতিনিধি রিচার্ড ক্রিগান।

ক্রিগান সংসদে যে বিল উত্থাপন করেছেন সেখানে বলা হয়েছে, ২০২০ সালে সিগারেট কেনার ন্যূনতম বয়স নির্ধারণ করা হবে ৩০ বছর। ২০২১ সালে তা বাড়িয়ে করা হবে ৪০ বছর। এভাবে ২০২২ সালে সিগারেট কেনার ন্যূনতম বয়স হবে ৫০, ২০২৩ সালে ৬০ এবং ২০২৪ সালে ১০০ বছর ন্যূনতম বয়স নির্ধারণ করা হবে।

ডেমোক্র্যাটের প্রতিনিধি রিচার্ড ক্রিগান বলেন, ‘আসলে এখানে একটি গ্রুপ রয়েছে যারা মারাত্মকভাবে সিগারেটে আসক্ত। আমি মনে করি, কিছু খারাপ শিল্প-প্রতিষ্ঠান নতুন নতুন ব্যান্ডের সিগারেট তৈরি করে এসব লোকদের তাদের ক্রীতদাস বানিয়ে রেখেছে। এটা প্রাণঘাতী।’

রিচার্ড ক্রিগান জানিয়েছেন, তিনি মনে করেন না সিগারেট নিষিদ্ধ করতে বর্তমান আইনগুলি যথেষ্ট শক্তিশালী। তাই যুব সমাজকে এই ক্ষতিকর নেশা থেকে বাঁচাতে নতুন কিছু করবার কথাই ভেবেছিলেন তিনি। সিগারেটকে ‘বিশ্বের ইতিহাসে মানুষের তৈরি সব থেকে ভয়ানক প্রাণঘাতী বস্তু’ বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

যুক্তরাষ্ট্রের সেন্টার ফর ডিজিস কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশন বিভাগের তথ্য মতে, দেশটিতে প্রতি বছর প্রায় ৫ লাখ ব্যক্তির মৃত্যুর জন্য প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে ধূমপান দায়ী।