‘২৩ ডিগ্রিতে ছড়ায় না কোভিড-১৯’, ভারতীয় চিকিৎসকের এই ভিডিওতে কি ভরসা করা যায়?

প্রকাশিত: ১০:০৯ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ১, ২০২০ | আপডেট: ১০:০৯:অপরাহ্ণ, এপ্রিল ১, ২০২০

কী তথ্য ছড়িয়েছে?

নীল জামা, চশমা পরা এক ভদ্রলোকের ভিডিও। ক্যাপশনে লেখা, ”এমস থেকে ডাক্তার অর্কপ্রভ সিনহা রিসেন্ট আপডেটের ডিটেলস পাঠিয়েছেন। ভীষণ জরুরি এটা শোনা। Please go through the recent update by Dr. Arkaprava Sinha from.AIIMS”

ভদ্রলোকের হাতে একটি পোস্টার, যাতে লেখা,

“করোনাভাইরাস ও তাপমাত্রা

যে সব এলাকার তাপমাত্রা ২৩ ডিগ্রির উপরে

সেখানে এই রোগ ছড়ায় না”

এরপর ভিডিওতে তিনি ব্যাখ্যা করছেন, “২৩ ডিগ্রির উপরে করোনাভাইরাসের জীবাণু ছড়ায় না”। তাঁর দাবি, “দেখা গিয়েছে ২৩ ডিগ্রির উপরে এই জীবাণু কয়েক মিনিটের বেশি বাঁচে না, এইটা খুব গুরুত্বপূর্ণ একটা পয়েন্ট”। চ্যালেঞ্জ করেই বলছেন, “যে সব দেশে বসন্ত কিংবা গ্রীষ্ম চলে এসেছে সেখানে অত গুরুতর কিছু নয়”। দাবির স্বপক্ষে তুলে ধরেছেন কিছু পরিসংখ্যান। “এপ্রিল থেকেই এই রোগ অতটা গুরুতর থাকবে না”, এটাও তাঁর চ্যালেঞ্জ। এই ভরসার কথা সকলের মধ্যে ছড়িয়ে দিয়ে মনে আশা জাগাতে বলছেন, শেয়ার করতে বলছেন, আতঙ্কিত হতে, প্যানিকড হতে বারণ করছেন।

ভিডিওটি দেখুন এখানে

কোথায় ছড়িয়েছে?

শেষ কয়েকদিন ধরে হোয়াটসঅ্যাপ, ফেসবুক, ইউটিউবে ছড়িয়ে পড়েছে ৪ মিনিট ১১ সেকেন্ডের এই ভিডিওটি।

এই তথ্য কি সঠিক?

না। প্রথমত এই ভিডিওটি ভুয়া নয়। কিন্তু ভদ্রলোক এমস-এর ডাক্তার অর্কপ্রভ সিংহ নন। দ্বিতীয়ত, ২৩ ডিগ্রির উপরে করোনাভাইরাসের জীবাণু ছড়ায় না বলে উনি যে দাবি করেছেন, তার সমর্থনে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা হু-র কোনও বয়ান বা ঘোষণা এখনও পর্যন্ত নেই। এই দাবি যে সঠিক, তা প্রমাণ করার মতো কোনও গবেষণাপত্রও আমাদের হাতে আসেনি।

সত্যি কী এবং তা কিভাবে যাচাই করা হলো?

ফেসবুকে খোঁজ করে দেখা গেল অর্কপ্রভ সিংহ নামে এমস-এর একজন চিকিৎসক থাকলেও ইনি তিনি নন। তর্কের খাতিরে যদি ধরাও যায় ভিডিওতে মুখ দেখানো চিকিৎসকটির কোনও ফেসবুক প্রোফাইল নেই। গুগলে অর্কপ্রভ সিংহ এমস লিখতেই এই ভিডিওর ইউটিউব লিঙ্ক পাওয়ায় যায়।

ফেসবুকে খোঁজ করে দেখা গেল অর্কপ্রভ সিংহ নামে এমস-এর একজন চিকিৎসক থাকলেও ইনি তিনি নন। তর্কের খাতিরে যদি ধরাও যায় ভিডিওতে মুখ দেখানো চিকিৎসকটির কোনও ফেসবুক প্রোফাইল নেই। গুগলে অর্কপ্রভ সিংহ এমস লিখতেই এই ভিডিওটির ইউটিউব লিঙ্ক পাওয়ায় যায়। ভিডিওটির কমেন্ট সেকশনে অনেকেই প্রশ্ন তুলেছেন তাঁর আইডেন্টিটি নিয়ে। কেউ কেউ বলছেন ইনি বাংলাদেশের চিকিৎসক, জাকির হোসেন সবুজ।

ইউটিউব সার্চে জাকির হোসেন সবুজ লিখতেই খুলে যায় এই চ্যানেলটি।

সেখানেই স্ক্রল করলে পাবেন এই ভিডিওটি। গত ৫ মার্চ যা পোস্ট হয়। গোটা ভিডিওটি ১০ মিনিট ৪৯ সেকেন্ডের। তারই শেষের ৪ মিনিট ১১ সেকেন্ড সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়েছে। চিকিৎসক জাকির হোসেন সবুজ বাংলাদেশের উত্তরা আধুনিক মেডিকেল কলেজের চিকিৎসক। মাঝেমধ্যেই নানা বিষয়ে ভিডিও পোস্ট করেন। ডক্টর জাকির’স চেম্বার নামে একটি ফেসবুক গ্রুপও রয়েছে তাঁর। ৫ মার্চের ভিডিও নিয়ে বিতর্ক হচ্ছে দেখে তিনি ১৪ মার্চ একটি পাল্টা ভিডিওটিও ইউটিউবে আপলোড করেন।

২৩ ডিগ্রির উপরে করোনাভাইরাস বাঁচে না বলে এই চিকিৎসক যে দাবি করেছেন, সেটা কি ঠিক? (যদিও উনি সেলসিয়াস বা ফ্যারেনহাইট বলেননি, কিন্তু ধরে নেওয়া যেতেই পারে উনি সেলসিয়াস বলতে চেয়েছেন, কারণ ২৩ ডিগ্রি ফ্যারেহাইট মানে হিমাঙ্কের নীচে)

গত ১৭ মার্চ প্রকাশিত ম্যাসাচুসেটস ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজির দুই বিজ্ঞানী, কাসিম বুখারি এবং ইউসুফ জামিলের একটি গবেষণাপত্র বলছে ১৮ ডিগ্রি সেলসিয়াসের উপর তাপমাত্রায় কোভিড-১৯ এর ছড়িয়ে পড়ার গতি কমে। কিন্তু তাই বলে সংক্রমণ বন্ধ হয়ে যায় তা নয়। কোনওভাবেই বলা যায় না যে গরম বা স্যাঁতসেঁতে পরিবেশে কোভিড-১৯ ছড়াবে না।

হোয়াটস‌্অ্যাপ, ফেসবুক, টুইটারে যা-ই দেখবেন, তা-ই বিশ্বাস করবেন না। টুক করে শেয়ারও করে দেবেন না। বিশেষত এই আতঙ্কের মধ্যে তো নয়ই। এ ভাবেই ছড়িয়ে পড়ে ভুয়ো খবর। যাচাই করুন। কোনও খবর, তথ্য, ছবি বা ভিডিও নিয়ে মনে সংশয় দেখা দিলে আমাদের জানান এই ঠিকানায় [email protected]

-আনন্দবাজার পত্রিকা।